[…]আরো একটি নতুন গ্যাস কূপ খনন কাজের উদ্বোধন […]আরো একটি নতুন গ্যাস কূপ খনন কাজের উদ্বোধন

আরো একটি নতুন গ্যাস কূপ খনন কাজের উদ্বোধন

ইবার্তা টুয়েন্টিফোর ডটকম:
আপডেট সময়:আগস্ট ৭, ২০১৭ , ৩:৪৫ পূর্বাহ্ন
বিভাগ: সারাদেশ

ইবার্তা টুয়েন্টিফোর ডটকম: রোববার বিকেলে ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় গ্যাস অনুসন্ধানের লক্ষ্যে নতুন একটি কূপ খনন কাজের উদ্বোধন করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন যৌথভাবে সেতুটি উদ্বোধন করেন।

উপজেলার মুন্সিরহাট এলাকায় শাহাবাজপুর ইস্ট-১ অনুসন্ধান কূপ খনন উদ্বোধনকালে তোফায়েল আহমেদ বলেন, এই কূপটি ছাড়াও সদর উপজেলার ভেলুমিয়া ইউনিয়নে আরেকটি অনুসন্ধান কূপ উদ্বোধন করা হবে। এই কূপ থেকে যদি গ্যাস পাওয়া যায় তাহলে আরো ১০টি কূপ খনন করা হবে। এখানে যদি গ্যাসের পরিমাণ নিশ্চিত করা যায় তাহলে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে বিনিয়োগকারীরা এখানে আসবে বিনিয়োগ করার জন্য। এখানে শিল্প কারখানা হবে, জমির দাম বৃদ্ধি পাবে এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, এই গ্যাস দিয়ে ইতোমধ্যে একটি ২২৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। আরো বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করা হবে। কারণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়নে গ্যাস অতি গুরুত্বপূর্ণ।
জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব নাজিমুদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান আবুল মনসুর মো. ফয়জুল্লাহ।

এদিকে তোফায়েল আহমেদ রোববার দুপুরে উপজেলা সদরের দক্ষিণ দিঘলদী ইউনিয়নে বাঘমারা সেতু উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের বলেছেন, আগামীতে ৪১ বিলিয়ন ডলার রপ্তানী করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। বিশ্বের মন্দাভাব থাকা সত্ত্বেও আমাদের রপ্তানীতে কোন প্রভাব পড়বেনা। এই খাতে আমরা অবশ্যই সফল হব।
বাণিজ্য মন্ত্রী বলেন, আমাদের রপ্তানী প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমান আমাদের আইটি সেক্টর সবচেয়ে সম্ভাবনাময় সেক্টর। এই খাত থেকে ২০২১ সালে ৫ বিলিয়ন ডলার রপ্তানী করতে সক্ষম হব। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য পুত্র সজিব ওয়াজেদ জয় আইটি সেক্টরকে অনেক দূরে নিয়ে গেছেন।

তোফায়েল আহমেদ আরও বলেন, ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ডিজিটাল বাংলাদেশে রুপান্তরিত হয়েছে। আন্তর্জাতিক বিশ্বে আমাদের পাটের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। আইটি থেকে আমাদের অর্জন হবে, চামড়া থেকে হবে, পাট থেকে হবে। সব দিক থেকে আমাদের অর্জন বাড়বে।
মন্ত্রী বলেন, যারা বঙ্গবন্ধুকে স্ব-পরিবারে হত্যা করেছে, তারা চেয়েছিল বঙ্গবন্ধু পরিবারে যাতে কেউ বেঁচে না থাকে। ২০০৪ সালে গ্রেনেড হামলা করে শেখ হাসিনাকে হত্যা চেষ্টা করা হয়েছে। আল্লাহর অশেষ রহমতে তিনি সেদিন প্রাণে বেঁচেছেন। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাজ করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সিরাজগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য হাবিবে মিল্লাত, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জামাতা মাশরুর হোসেন মিতু, জেলা প্রশাসক মো: সেলিমউদ্দিন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মমিন টুলু, পুলিশ সুপার মো: মোকতার হোসেন, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো: মোশারেফ হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান মো: ইউনুছ, জেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব প্রমুখ।



নির্বাচন বার্তা