[…]বিশ্বজিৎ হত্যা মামলার রায়: ‘এটা বিচার না খেলা?’ […]বিশ্বজিৎ হত্যা মামলার রায়: ‘এটা বিচার না খেলা?’

বিশ্বজিৎ হত্যা মামলার রায়: ‘এটা বিচার না খেলা?’

ইবার্তা টুয়েন্টিফোর ডটকম:
আপডেট সময়:আগস্ট ৭, ২০১৭ , ৮:২০ পূর্বাহ্ন
বিভাগ: অভিমত

চিররঞ্জন সরকার

মামলার রায়ে ক্ষুব্ধ-বিস্মিত বিশ্বজিতের ভাই উত্তম দাস। চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলায় রায় ঘোষণার পরপরই এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেছেন, ‘এটা কেমন রায় হলো! এমনটা তো আমরা চাইনি। এটা বিচার না খেলা? আগের আদালত আট জনকে ফাঁসি দিলো। আর এখন দিলো মাত্র দুই জনকে। তাহলে আগের বিচারক কী দেখে রায় দিলেন?’ এটা শুধু উত্তম দাসেরই প্রতিক্রিয়া নয়, দেশের শুভবুদ্ধিসম্পন্ন সব মানুষেরই প্রতিক্রিয়া!

নিম্ন আদালতের সঙ্গে উচ্চ আদালতের রায়ের পার্থক্য তুলে ধরে দেশের অধিকাংশ মানুষের মতো বিস্ময় প্রকাশ করে উত্তম দাস যথার্থই বলেছেন, ‘দুই রায়ে এত পার্থক্য হয় কিভাবে! এখন দেখি চারজনকে খালাসও দেওয়া হয়েছে। তার মানে এই চারজন জড়িত ছিল না।’ সেদিনের সেই মর্মান্তিক হত্যাকাণ্ডের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেছেন, ‘এখানে তো লুকোচুরি করার কিছু নাই। সাক্ষী-প্রমাণ বানানো বা সাজানোও নয়। সব চোখের দেখা, বাস্তবের মতো। ভিডিও ফুটেজ আছে, ছবি আছে। তারপরও দুই রায়ে এত বেশ কম!’

বিষয়টি সত্যি আমাদের ব্যথিত, ক্ষুব্ধ ও হতাশ করেছে। এ কেমন রায়? ন্যায়বিচার পাওয়া দেশের প্রতিটি নাগরিকের সাংবিধানিক অধিকার। কিন্তু বিশ্বজিতের পরিবার কি ন্যায় বিচার পেয়েছেন? যদি না পেয়ে থাকেন, তবে এর জন্য দায়ী কে? দায়ীরা কি কোনও দিন চিহ্নিত হবে? শাস্তি ভোগ করবে? নাকি সুষ্ঠু বিচার না-পাওয়ায় হতাশায় নিমজ্জিত বিশ্বজিতের বাবা-মার চোখের জলই কেবল সার হবে?

এমনিতেই বিশ্বজিৎ হত্যার ঘটনায় আট ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীর ফাঁসির রায়ের ওপর আপিলের শুনানি চার বছর ধরে ঝুলে ছিল। ২০১৩ সালের ১৮ ডিসেম্বর ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৪-এর বিচারক এ বি এম নিজামুল হক বিশ্বজিৎ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ২১ আসামির মধ্যে আটজনকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন। যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পান বাকি ১৩ জন। আশা করা হয়েছিল, এই পৈশাচিক খুনের জন্য নিম্ন আদালতে দণ্ডপ্রাপ্ত এই ২১ জনকে যারা ডেকে এনেছিল, যারা নির্দেশ দিয়েছিল, যেসব পুলিশ সদস্য কর্তব্য পালন না করে দাঁড়িয়ে এই নির্মম হত্যা-উৎসব উপভোগ করেছিল, আদালত তাদেরকেও দোষী সাব্যস্ত করবে। তাদেরও শাস্তির আওতায় আনবে। কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা তো গ্রহণ করা হলোই না, উল্টো বিচারিক আদালতে দণ্ডপ্রাপ্ত অনেকের সাজা কমিয়ে দেওয়া হলো। যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পাওয়া দুজনকে খালাস দেওয়া হলো। মাত্র দুজনের মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখে, চারজনের মৃত্যুদণ্ড পরিবর্তন করে যাবজ্জীবন। এই মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুজন ও যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ১১ জন পলাতক। তার মানে এত নির্মম হত্যাকাণ্ডের পরও কারোরই ফাঁসি হচ্ছে না? আর যারা ভেতরে আছে, কিছুদিন পরে তারাও যদি রাষ্ট্রপতির করুণা-ভিক্ষা জুটিয়ে বের হয়ে আসে, তাতেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না!

তাহলে ‘ন্যায়বিচার’ কোথায় থাকলো? কোথায় থাকলো সাংবিধানিক ঘোষণা: আইনের চোখে সকলে সমান?

একথা ঠিক বিজ্ঞ আদালতের বিচারকগণ সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে রায় দেন। মামলায় পর্যাপ্ত পরিমাণে দালিলিক তথ্য-প্রমাণ না থাকলে এবং ফাঁক-ফোঁকর থাকলে বিচারকগণের তেমন কিছু করার থাকে না। এ জন্য সরকারের পক্ষ থেকে অত্যন্ত দক্ষতা ও সতর্কতার সঙ্গে মামলাটি পরিচালনা করা উচিত ছিল।

মনে রাখা দরকার যে, বিশ্বজিৎ হত্যাকাণ্ড আমাদের দেশের রাজনীতিতে প্রচলিত চরম বর্বরতার এক দৃষ্টান্ত। কুপিয়ে কুপিয়ে বিশ্বজিৎকে হত্যা করা হয়েছে। এই হত্যাকাণ্ড দেখে স্তব্ধ হয়েছে গোটা জাতি। তাকে হত্যা করা হয়েছে প্রকাশ্য দিবালোকে।

বিচারিক আদালতের রায় যেটুকু আশার সঞ্চার করেছিল, উচ্চ আদালতের রায় চরম হতাশা সৃষ্টি করেছে।

এখনও সব কিছু শেষ হয়ে যায়নি। হাইকোর্টের এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিলের সুযোগ আছে। যে ফাঁক-ফোঁকরের কারণে অভিযুক্ত খুনিরা সুযোগ নিয়েছেন, সেসব ফাঁক-ফোঁকর বন্ধ করতে হবে।

বিশ্বজিতের পরিবার কোনও দিনই আর ছেলেকে ফিরে পাবে না, সেই শোক ও কষ্ট তাদের সারা জীবন বয়ে বেড়াতে হবে। কিন্তু খুনিদের শাস্তি নিশ্চিত করে এই পরিবারকে কিছুটা হলেও স্বস্তি দেওয়ার দায় সরকার ও রাষ্ট্রের। আর সরকার ও রাষ্ট্র যদি খুনিদেরই বেশি আপন মনে করে তাদের রেহাই দেওয়ার পণ করে তাহলে অবশ্য বলার কিছুই নেই। কেবল কান্না, হতাশা আর বিস্ময়! ‘বিচারের নামে খেলা’ই দেখে যেতে হবে। অন্তত এই মামলায়!

লেখক: কলামিস্ট



নির্বাচন বার্তা