[…]ছেলেধরা সন্দেহে কক্সবাজারে এক রোহিঙ্গাকে নির্মমভাবে হত্যা! […]ছেলেধরা সন্দেহে কক্সবাজারে এক রোহিঙ্গাকে নির্মমভাবে হত্যা!

ছেলেধরা সন্দেহে কক্সবাজারে এক রোহিঙ্গাকে নির্মমভাবে হত্যা!

ইবার্তা টুয়েন্টিফোর ডটকম:
আপডেট সময়:সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৭ , ১২:৫১ অপরাহ্ন
বিভাগ: অপরাধ বার্তা

মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বর্বরতার হাত থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেও নির্মমতার কাছে হেরে না ফেরার দেশে চলে গেলেন এক রোহিঙ্গা পুরুষ। সংবাদ ব্রিটিশ দৈনিক দ্য সান এর।

কক্সবাজারে শিশু চুরির অভিযোগ এনে নির্দয়ভাবে প্রহার করা রোহিঙ্গা শরণার্থীর নাম জাকির সালাম।

জানা গেছে, কক্সবাজারে একটি বাড়িতে খাবারের জন্য গিয়েছিল ওই রোহিঙ্গা জাকির। এ সময় এক শিশুকে না পেয়ে জাকিরকে শিশু চোর হিসেবে সন্দেহ করে স্থানীয় অধিবাসীরা। ২০/২২ জন ক্ষুব্ধ তরুণ রোহিঙ্গা শরণার্থীকে মাটিতে ফেলে কিল-ঘুষি, লাথি ছাড়াও গাছে বেঁধে নির্দয়ভাবে পিটিয়ে হত্যা করে।

রোহিঙ্গা ব্যক্তিটিকে গণপিটুনির দৃশ্য ধারণ করেছেন বার্তাসংস্থা এপির এক আলোকচিত্রী।

ছবিতে দেখা যাচ্ছে, চারদিক থেকে উত্তেজিত জনতা তার মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাত করছে। এসময় তিনি আঘাত থেকে বাঁচতে প্রাণপণ চেষ্টা চালান।

গণপিটুনির এক পর্যায়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন তিনি।

নিস্তেজ শরীরে মাটিতে লুটিয়ে পড়েও রেহাই মেলেনি তার। পরে তাকে একটি গাছের সঙ্গে বেঁধে মারপিট করা হয়।

ব্রিটিশ দৈনিক দ্য সান বলছে, ২০ জনেরও বেশি মানুষ ওই রোহিঙ্গা ব্যক্তির ওপর হামলা চালায়। হামলাকারীদের মধ্যে অনেক তরুণ ছিল। রোহিঙ্গা ওই ব্যক্তিকে গাছের সঙ্গে বাঁধার আগে প্রাণভিক্ষা চান তিনি।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এ নিয়ে কোনো মামলা হয়নি। আরো জানা গেছে হারিয়ে গেছে বলে সন্দেহ করা শিশুটিকে পাশের বাড়িতে পাওয়া গেছে।