[…]নিজ দলের নেতাদের হারানোর মরণঘাতী খেলা

নিজ দলের নেতাদের হারানোর মরণঘাতী খেলা

ইবার্তা টুয়েন্টিফোর ডটকম:
আপডেট সময়:ফেব্রুয়ারী ১, ২০১৮ , ১২:৪১ অপরাহ্ন
বিভাগ: অভিমত

মোস্তাফিজুর রহমান:
একটি রাজনৈতিক দল তখনই সাংগাঠনিকভাবে শক্তিশালী আর জনপ্রিয় হয়ে ওঠে যখন সেই দলের যে কোন সদস্য দেশের যেকোন অঞ্চল থেকে প্রতিপক্ষ দলের প্রার্থীকে নির্বাচনে হারিয়ে বিজয়ী হয়ে আসতে পারবে। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম যে রাজনৈতিক দলটির নেতৃত্বে হয়েছে আর সেই আওয়ামী লীগের কিছু এলাকার নেতারা নিজেদের মধ্য অন্তঃকলহে লিপ্ত রয়েছে , কোন কোন এলাকায় নেতারা প্রতিপক্ষ দলের নেতাদের চেয়ে নিজ দলের সহকর্মীদের প্রতিপক্ষ ভাবছে, প্রতিপক্ষ দলের নেতাদের পরাজিত করার চেয়ে নিজ দলের নেতাদের হারানোর মরণঘাতী খেলায় মগ্ন রয়েছে।

একি দলে একাধিক গ্রুপিং এর নেতৃত্বে দেওয়া প্রতিটি লিডার ভাবছে সেছাড়া দল চলবেনা , দলের জন্য সে বিরাট কিছু করে ফেলেছে ,তাকেই দলের স্বার্থে গ্রুপিং করতেই হবে নতুবা দল হেরে যাবে । যদি সত্যি তাই হয়ে থাকে তাহলে যিনি ভাবছেন তার জনপ্রিয়তা বেশি তার দায়িত্ব হচ্ছে দলের স্বার্থে ,মানুষের স্বার্থে গ্রুপিং না করে দল মনোনীত প্রার্থীকে বিজয়ী করা সে প্রকৃতই দলের শুভাকাঙ্ক্ষী সেখানে তার ব্যাক্তি স্বার্থ উদ্ধার করার কোন অভিপ্রায় নাই , সে দলের জন্যই কাজ করে ,মানুষের কল্যাণের জন্য , সে শুধু নেতা হতে চাই ,মহাত্মা গান্ধী বারবার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছেন ,তিনি শুধু নেতা হতে চেয়েছেন এবং সফল হয়েছেন ।

দলের জন্য নিজদলের মধ্য বিশৃঙ্খলা করে কিছু অর্জন করা যায়না , মনে হয় সাময়িক কিছু পেলাম ভাইয়ে ভাইয়ে ফ্যাসাদ করে কিন্তু তার আড়ালে সবাই নেতিবাচক সমালোচনা করে ।

সবাই মিলেমিশে চললে যে সফলতা অর্জন করা যায় সেটা গ্রুপিং করে অর্জন করা যায়না ।গ্রুপিংবাদি সবার কাছে অকাট্য যুক্তি রয়েছে সে কেন গ্রুপিং করছে কিন্তু সেই জটিল ভাবনার চেয়ে সুখ দায়ক চিন্তা করতে হবে , আমি বড় এবং জনপ্রিয় কারণ আমি ছাড় দিতে জানি , অপরের কল্যাণ করি বলেই আমি বড় ,অন্যর মান অভিমান ভাঙ্গানোই নেতার কাজ ,নেতা যদি নিজে চেয়ে বসে তাহলে অন্যর দুঃখ কষ্ট কে দেখবে ।

আমারা সাধারণ জনতা চাই আওয়ামী লীগ বার বার জনতার সেবা করার সুযোগ পাক ।



নির্বাচন বার্তা