রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৪০ পূর্বাহ্ন
শীর্ষ সংবাদ
পঁচাত্তরের খুনিদের দায়মুক্তি অধ্যাদেশ “ধর্ষিত” মামুনের স্ক্রিনশপ জালিয়াতি ফাঁস : ইলিয়াস সহ সুশীলদের কটাক্ষ জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ : বিশ্ব সভায় বাংলা ভাষার প্রথম আনুষ্ঠানিক প্রতিনিধিত্ব গার্ডিয়ানে প্রকাশিত শেখ হাসিনার নিবন্ধ: ‘আ থার্ড অফ মাই কান্ট্রি ওয়াজ জাস্ট আন্ডারওয়াটার। দ্য ওয়ার্ল্ড মাস্ট অ্যাক্ট অন ক্লাইমেট’ হেফাজতের কর্তৃত্ব যাচ্ছে দেওবন্দের কাফের ঘোষিত জামায়াতের কব্জায় ! অনলাইনে মিলছে টিসিবির পেঁয়াজ আজ টিউলিপ সিদ্দিকের জন্মদিন বাংলাদেশের সঙ্গে রাজনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক বাড়াতে চায় যুক্তরাষ্ট্র প্রধানমন্ত্রীকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর ফোন ফ্রন্টিয়ার, ইমার্জিং ও ডেভেলপড মার্কেট রিটার্নে সবার ওপরে বাংলাদেশ

অনলাইনে পেনশন তুলতে পারবেন বেসরকারি স্কুল-কলেজের শিক্ষকরা

ইবার্তা ডেস্ক
আপডেট : সোমবার, ২২ জানুয়ারী, ২০১৮

শিক্ষকদের ভোগান্তি কমানোর কথা চিন্ত করে অনলাইন কার্যক্রম চালু করছে সরকার। ফেব্রুয়ারি মাস থেকে বেসরকারি স্কুল-কলেজ ও মাদ্রাসা শিক্ষকরা অনলাইনেই পেনশনের টাকা তুলতে পারবেন। এ সেবা পেতে শিক্ষকদের সহায়তার জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আইটি শাখাকে নির্দেশনা দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এতে ভোগান্তি কমার পাশাপাশি দালাল চক্রের অপতৎপরতা দূর হবে বলে মনে করছে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

শিক্ষকদের অবসর ভাতা নেওয়ার জন্য এখন কমপক্ষে তিন বছর অপেক্ষা করতে হয়। এছাড়া পড়তে হয় সীমাহীন ভোগান্তিতে। সেই সাথে আছে দালালদের দৌরাত্ম। শিক্ষকদের ভোগান্তি দূর করতে ফেব্রুয়ারি মাস থেকে অনলাইন কার্যক্রমে যাচ্ছে অবসর সুবিধা বোর্ড এবং কল্যাণ ট্রাষ্ট।

কল্যাণ ট্রাষ্টের সদস্য সচিব শাহজাহান আলম সাজু বলেন, দেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে শিক্ষকরা অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন পেনশনের টাকা তুলার জন্য। আর অনলাইনেই পেনশনের টাকা পাঠানো হবে। এই কার্যক্রমটি আগামী মাস থেকে চালু করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

অবসর সুবিধা বোর্ডের শরীফ আহমদ সাদী বলেন, শিক্ষকদের অবসরের ৬ মাসের মধ্যেই তাদের পেনশনের টাকা দিয়ে দেওয়া যায় এবং হাসি মাখা মুখে যেন তার এই টাকা নিয়ে যেতে পারে। সে জন্য সরকার এবং কমিটি বোর্ড একটি উদ্যোগ নিচ্ছে। অনলাইনে কার্যক্রম শুরুর পর শিক্ষকদের পেনশনের টাকা পাওয়ার জটিলতা অনেকটা কমে আসবে বলে মনে করছেন তিনি ।

উল্লেখ্য যে, বেসরকারি শিক্ষকদের প্রতি মাসের বেতন থেকে ছয় শতাংশ কেটে রাখা হয়। এর চার ভাগ যায় অবসর সুবিধা বোর্ডে এবং বাকি দুই ভাগ কল্যাণ ট্রাস্টে। এর সঙ্গে সরকারি অর্থ যোগ করে শিক্ষকদের পেনশন দেয়া হয়।


আরও সংবাদ