1. [email protected] : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  2. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  3. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  4. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
বঙ্গবন্ধুকে হত্যার উদ্দেশ্যেই আগরতলা মামলা - ebarta24.com
  1. [email protected] : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  2. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  3. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  4. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
বঙ্গবন্ধুকে হত্যার উদ্দেশ্যেই আগরতলা মামলা - ebarta24.com
শনিবার, ২১ মে ২০২২, ০৩:০১ অপরাহ্ন

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার উদ্দেশ্যেই আগরতলা মামলা

মমতাজউদ্দীন পাটোয়ারী
  • সর্বশেষ আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী, ২০২২

১৮ জানুয়ারি। ১৯৬৮ সালের এই দিনের প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে আর্মি, নেভি ও এয়ারফোর্স আইন অনুযায়ী গ্রেপ্তার দেখিয়ে ঢাকা সেনানিবাসের উদ্দেশ্যে নেয়া হয় এবং সেখানেই তিনি ‘আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা’র কথা জানতে পারেন। ২২ জানুয়ারি ১৯৬৯-এ মুক্তি পাওয়া পর্যন্ত সেখানেই তিনি বন্দি ছিলেন। পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১৯৪৭ উত্তরকাল থেকে সূচিত রাজনৈতিক আন্দোলন সংগ্রামে বিভিন্ন মামলায় তাকে কারারুদ্ধ করা হয়।

সেসব মামলাকে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ সরকারের রোষানলের বিষয় হিসেবে চিহ্নিত করে থাকেন। দেশের আইন-আদালতে মামলার বিরুদ্ধে লড়াই করে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ জামিনে মুক্তি নেন, কারাগারে বন্দি থেকেও মুক্ত হন। পাকিস্তানের শুরু থেকে শেখ মুজিবুর রহমান যেহেতু শাসকগোষ্ঠীর সব অনাচারের বিরুদ্ধে এবং পূর্ব বাংলার জনগণের অর্থনৈতিক, রাজনৈতিকসহ বিভিন্ন অধিকার আদায়ের লড়াইয়ে নিরবিচ্ছিন্নভাবে যুক্ত ছিলেন, নিয়েছিলেন উদ্যোগী ভূমিকা।

তাই পাকিস্তান সরকার তাকে সবসময়ই ‘বড় হুমকি’ হিসেবে মনে করত। এসব কারণে তার বিরুদ্ধে ১৯৪৮ ও ৪৯ সাল থেকে একের পর এক মামলা রুজু করা হতে থাকে। তিনি এসব মামলার বিরুদ্ধে আইন ও আদালতে লড়াই করে কখনও জামিন পেয়েছিলেন, আবার কখনও রুজু করা নতুন মামলায় কারাগারে আটক থেকেছেন। অবশেষে মুক্ত হয়ে আবার তিনি মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছেন। যতদিন তিনি এই আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে গেছেন ততদিন তিনি পাকিস্তান সরকারের রোষানল থেকে মুক্ত থাকতে পারেননি, মামলা তার পিছু ছাড়েনি।

সেকারণে আদালতে সবসময় তার বিরুদ্ধে কোনো না কোনো মামলা থাকতই । তিনি সেসব মামলায় লড়াই করেই রাজনীতিতে টিকে ছিলেন। মামলাকে বঙ্গবন্ধু কখনও ভয় করার বিষয় মনে করেননি। ১৯৬৬ সালে ৬ দফা প্রদানের পর তাকে একের পর এক মামলায় নতুন করে জড়ানো হতে থাকে। ৯ মের প্রথম প্রহরে তাকে আবার বন্দি করে জেলে রুদ্ধ করা হয়। জেলে থাকা অবস্থায় তার বিরুদ্ধে পুরাতন এবং নতুন মোট ১২টি মামলা একের পর এক চলছিল।

মূলত, ৬ দফার আন্দোলনকে স্তব্ধ করে দেয়ার জন্যই পাকিস্তানের সামরিক সরকার আইয়ুব খান শেখ মুজিবের ওপর এসব মামলায় তাকে কারারুদ্ধ করে রাখছিল। কিন্তু আইয়ুব সরকার যখন মামলার ভয় দেখিয়ে কিংবা সংখ্যা বাড়িয়েও শেখ মুজিব ও তার অনুসারীদের ৬ দফার আন্দোলন থেকে বিরত রাখতে পারছিল না কিংবা সেই আন্দোলনকে দুর্বলও করতে পারছিল না তখন প্রথমে আওয়ামী লীগের মধ্যে ফাটল ধরানোর জন্য পাকিস্তান ডেমোক্র্যাটিক মুভমেন্ট (পিডিএম) নামের একটি জোট গঠন করে। জোটের ৮ দফা দাবিনামাও প্রণয়ন করা হয়। উদ্দেশ্য ছিল ৬ দফার আন্দোলনকে বিভক্ত করা এবং আওয়ামী লীগকে দুইভাগে ভাগ করা। ১৯৬৭ সালে পিডিএম সেই চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। তখনই আইয়ুব সরকার শেখ মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে সাধারণ সরকারবিরোধী কোনো মামলা নয় বরং রাষ্ট্রবিরোধী মামলা রুজু করে তাকে সামরিক আদালতের মাধ্যমে রাষ্ট্রদ্রোহী হিসেবে প্রমাণিত করে হত্যা করার নতুন ষড়যন্ত্র আটতে থাকে। নতুন এই ষড়যন্ত্রের বিষয়টি গোপন রাখা হয়।

১৯৬৮ সালের ৩ জানুয়ারি শেখ মুজিবুর রহমানকে এক নম্বর আসামি করে অপর ৩৪ বাঙালি সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাকে পাকিস্তান থেকে পূর্ব পাকিস্তানকে আলাদা করার ষড়যন্ত্রের অভিযোগ এনে একটি রাষ্ট্রোদ্রোহী মামলা গোপনে করে। ৬ জানুয়ারি রাওয়ালপিন্ডি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র দপ্তর থেকে একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তি জারির মাধ্যমে ২৮ ব্যক্তিকে গ্রেপ্তারের ঘোষণা প্রদান করে। এই মামলাতেই ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি শেখ মুজিবুর রহমানকে ১৭ জানুয়ারি দিবাগত রাত ১২টার পর অর্থাৎ ১৮ জানুয়ারি রাত ১টায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে গোপনে কাউকে না জানিয়ে ঢাকা সেনানিবাসের উদ্দেশে যাত্রা করা হয়। কোনো সাধারণ মামলায় কোনো আসামিকে এভাবে গ্রেপ্তার করা হয় না, নিরুদ্দেশেও নেয়া হয় না। কিন্তু ১৯৬৮ সালের ১৮ জানুয়ারির প্রথম প্রহরে পাকিস্তানি সামরিক শাসকগোষ্ঠী ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি পূর্ব বাংলার স্বাধিকার আন্দোলনের প্রধান নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সাধারণ আইন-আদালত ভঙ্গ করে সেনানিবাসে প্রহসনের বিচারের মাধ্যমে হত্যার উদ্দেশ্যেই কারাগার থেকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়। একারণেই এই গ্রেপ্তার, মামলা এবং নিরুদ্দেশে নিয়ে যাওয়ার ঘটনাবলি ইতিহাসের এক ভয়ংকর অভিজ্ঞতার গুরত্ব বহন করে।

কী ঘটেছিল সেই রাতে কিংবা তার আগে যা অনেকেরই জানা ছিল না, এমনকি বন্দি শেখ মুজিবও জানতেন না। সেসম্পর্কে জানার একমাত্র উৎস হচ্ছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের লেখা ‘কারাগারের রোজনামচা’ গ্রন্থটি। এই গ্রন্থেই তিনি দিয়েছেন এর লোমহর্ষক বিবরণ। আমরা সেই সময়ের ঘটনাবলির বিস্তারিত বিবরণ বইয়ের ২৫২ নম্বর পৃষ্ঠা থেকে ২৬৬ পর্যন্ত সবিস্তারে জানতে পারব। আমরা শুধু ১৭ জানুয়ারি রাত ১২টা থেকে ১৮ তারিখের প্রথম প্রহরে কী ঘটেছিল তার কিছু দিক সংক্ষিপ্তাকারে তুলে ধরছি। গ্রন্থের লেখক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব লিখেছেন-

“১৯৬৮ সালের ১৭ জানুয়ারি রাত্রে যথারীতি খাওয়া দাওয়া শেষ করে ঘুমিয়ে পড়ি। দেওয়ানি ওয়ার্ডে আমি থাকতাম। দেশরক্ষা আইনে বন্দি আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক আবদুল মোমিন এডভোকেট আমার কামরায় থাকতেন। ১৭ মাস একাকী থাকার পর তাকে আমার কাছে দেওয়া হয়। একজন সাথী পেয়ে কিছুটা আনন্দও হয়েছিল। হঠাৎ ১৭ই জানুয়ারি রাত্র ১২টার সময় আমার মাথার কাছে জানালা দিয়ে কে বা কারা আমাকে ডাকছিলেন। ঘুম থেকে উঠে দেখি নিরাপত্তা বিভাগের ডেপুটি জেলার তোজাম্মেল সাহেব দাঁড়াইয়া আছেন।

জিজ্ঞাসা করলাম, এত রাত্রে কি জন্য এসেছেন? তিনি বললেন, দরজা খুলে ভিতরে এসে বলব। ডিউটি জমাদার দরজা খুলে দিলে তিনি ভিতরে এসে বললেন, আপনার মুক্তির আদেশ দিয়েছে সরকার। এখনই আপনাকে মুক্ত করে দিতে হবে। মোমিন সাহেবও উঠে পড়েছেন। আমি বললাম, হতেই পারে না। ব্যাপার কি বলুন। তিনি বললেন, সত্যই বলছি আপনাকে ছেড়ে দিতে হবে- এখনই, কাপড় চোপড় নিয়ে চলুন। আমি আবার তাকে প্রশ্ন করলাম, আমার যে অনেকগুলো মামলা আছে তার জামানত নেওয়া হয় নাই। চট্টগ্রাম থেকে কাস্টডি ওয়ারেন্ট রয়েছে, আর যশোর, সিলেট, ময়মনসিংহ, নোয়াখালী, পাবনা থেকে প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট রয়েছে। ছাড়বেন কি করে? এটাতো বেআইনি হবে। তিনি বললেন, সরকারের হুকুমে এগুলি থাকলেও ছাড়তে পারি। আমি তাকে হুকুমনামা দেখাতে বললাম। তিনি জেল গেটে ফিরে গেলেন হুকুমনামা আনতে।

আমি মোমিন সাহেবকে বললাম, মনে হয় কিছু একটা ষড়যন্ত্র আছে এর মধ্যে। হতে পারে এরা আমাকে এ জেল থেকে অন্য জেলে পাঠাবে। অন্য কিছু একটাও হতে পারে, কিছুদিন থেকে আমার কানে আসছিল আমাকে ‘ষড়যন্ত্র’ মামলায় জড়াইবার জন্য কোনো কোনো মহল থেকে চেষ্টা করা হতেছিলো। ডিসেম্বর মাস থেকে অনেক সামরিক, সিএসপি ও সাধারণ নাগরিক গ্রেপ্তার হয়েছে দেশরক্ষা আইনে- রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা উপলক্ষ্যে, সত্য মিথ্যা খোদাই জানে!” (পৃ-২৫২ )

এখানে স্পষ্ট যে, বঙ্গবন্ধু তখনও জানতে পারেননি তার বিরুদ্ধে পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী কী করতে যাচ্ছিল। তিনি সেই রাতে জেল কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থামতো রুম ত্যাগ করে জেলখানার গেটে আসার পর দেখতে পান-

“এলাহি কাণ্ড! সামরিক বাহিনীর লোকজন যথারীতি সামরিক পোষাকে সজ্জিত হয়ে দাঁড়াইয়া আছেন আমাকে ‘অভ্যর্থনা’ করার জন্য।” বঙ্গবন্ধু জেলারের কক্ষে বসা ছিলেন। সেখানেই একজন সামরিক বাহিনীর বড় কর্মকর্তা এসে তাকে জানালেন, “শেখ সাহেব আপনাকে গ্রেপ্তার করা হলো।” বঙ্গবন্ধু গ্রেপ্তারি পরোয়ানা দেখতে চাইলেন। সাদা পোশাক পরিহিত একজন কর্মকর্তা পড়লেন, “আর্মি, নেভি ও এয়ারফোর্স আইন অনুযায়ী গ্রেপ্তার করা হলো।” এরপর বঙ্গবন্ধু বললেন। ‘চলুন’। তাকে নিয়ে বসানো হলো তাদের গাড়িতে। কিন্তু কোথায় নেয়া হচ্ছে। সেই সম্পর্কে কিছুই জানানো হলো না।

তিনি দেখলেন তিন জাতীয় নেতার কবরের পাশ দিয়ে গাড়িটি শাহবাগ হোটেল পার হয়ে এয়ারপোর্টের দিকে চলছে। তারপর তেজগাঁও বিমানবন্দর অতিক্রম করে তেজগাঁও সেনানিবাসে প্রবেশের পর বঙ্গবন্ধু বুঝতে পারলেন যে তাকে সেনানিবাসেই নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। তাকে নেয়া হলো একটি সামরিক অফিসার মেসে। সেখানে ডাক্তারি পরীক্ষা শেষে একটি কক্ষে নেয়া হলো। কিছুক্ষণ জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সামরিক কর্মকর্তা চলে যাওয়ার পর বঙ্গবন্ধু ঘুমিয়ে পড়েন। সেই রাতেই শুরু হলো বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবনে পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর রুজু করা নতুন আরেক মামলার অধ্যায়।

ইতিহাসে এটিকে আমরা ‘আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা’ বলে জানি। তবে মামলাটির পুরো নাম হচ্ছে ‘রাষ্ট্র বনাম শেখ মুজিবুর রহমান ও অন্যান্য’। এ মামলায় জড়িত করা হয়েছিল বেশ কজন বাঙালি আমলা, সামরিক কর্মকর্তা ও রাজনীতিবিদকে। ভূতপূর্ব নৌবাহিনীর কর্মচারী কামালউদ্দিনকে ব্যাপকভাবে শারীরিক নির্যাতনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আগরতলা ষড়যন্ত্রে যুক্ত ছিলেন সেই স্বীকারোক্তি লিখিয়ে নিয়েছিল। বেশ কজন সিএসপি ও বাঙালি অফিসারকে এর সঙ্গে যুক্ত করা হলো। বঙ্গবন্ধুসহ ৩৫ জনকে আসামি করা হয়।

আসামির তালিকায় তিনি ছিলেন প্রধান। ১৯৬৮ সালের ১৮ জানুয়ারি থেকে বঙ্গবন্ধুর এক কারা জীবন থেকে আরেক কারা জীবনে স্থানান্তর এবং শুরু হয়। এটি ছিল নির্ঘাত তাকে হত্যা করার এক পূর্বনির্ধারিত পরিকল্পনা। ১৮ তারিখ বঙ্গবন্ধু সেনানিবাসের সেই কঠোর বন্দি ও বিচারের জীবনে প্রবেশ করেছিলেন। পাকিস্তানিরা তাকে হত্যা করতেই এখানে এনেছিল। কিন্তু ষড়যন্ত্রের সেই প্রহসন একপর্যায়ে এসে বুমেরাং হয়ে গেল। পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী গণ-অভ্যুত্থানে গদিচ্যুত হয়ে গেল। বঙ্গবন্ধু মুক্ত হয়ে ফিরে এলেন তার প্রিয় জনগণের কাছে।

লেখক : মমতাজউদ্দীন পাটোয়ারী, গবেষক-অধ্যাপক।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ

ebarta24.com © All rights reserved. 2021