1. alamin@ebarta24.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  2. online@ebarta24.com : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  3. reporter@ebarta24.com : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  4. news@ebarta24.com : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
সারাহ ইসলামের জন্যে ভালবাসা ও দুফোটা অশ্রু - ebarta24.com
  1. alamin@ebarta24.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  2. online@ebarta24.com : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  3. reporter@ebarta24.com : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  4. news@ebarta24.com : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
সারাহ ইসলামের জন্যে ভালবাসা ও দুফোটা অশ্রু - ebarta24.com
বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৩:১১ অপরাহ্ন

সারাহ ইসলামের জন্যে ভালবাসা ও দুফোটা অশ্রু

লুৎফর রহমান হিমেল
  • সর্বশেষ আপডেট : শনিবার, ২১ জানুয়ারী, ২০২৩

মানুষ তাঁর সংক্ষিপ্ত জীবনে কতো কিছুই না করতে চায়। কতোই না কীর্তি গড়তে চায়। কেউ চায় সাহিত্য রচনা করে নাম করবে, কেউবা চায় আবিষ্কার করে চমকে দেবে সবাইকে, কেউবা চায় টাকার পাহাড় গড়বে। সারাহ ইসলাম কী চেয়েছিল জানি না, তবে তাঁর জীবন থেমে গেছে মাত্র বিশ-এ। বিশ বছর সুন্দর একটি বয়েস। এই সুন্দর বয়েস থেকেই সে ঝড়ে গেছে। সে আর বড় হবে না। তাঁর আর বয়স বাড়বে না। তবে এই এতটুকুন ছোট্ট জীবনে সারাহ সত্যিকার অর্থেই বিরাট কীর্তি গড়ে দিয়ে গেলো। যেমনটা সুকান্ত তাঁর ছোট্ট জীবনেই গড়ে গিয়েছিলেন বিরাট সাহিত্যকীর্তি।

এ দেশে মরণোত্তর চক্ষুদানের কথা জেনেছি এতোদিন। এবার মরণোত্তর কিডনি দানের বিষয়টিও সামনে এলো। তরুণী সারাহ ইসলামের দান করে যাওয়া দুটি কিডনি এরই মধ্যে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে দু’জন রোগীর দেহে। শুধু তাই নয়, সারাহর দুটি কর্নিয়া দুজন ব্যক্তির চোখের আলোও ফিরিয়ে দিয়েছে। মানুষকে কিডনি দানে উৎসাহিত করতে প্রথম পথটি সারাহই দেখিয়ে গেলো। এই কীর্তি তাঁর জন্মকে সার্থক করেছে। সে বহুকাল এ দেশের মানুষের মনে থাকবে। এখন থেকে এ দেশে অঙ্গ প্রতিস্থাপনের প্রসঙ্গ উঠলেই সারাহ ইসলামের নাম মানুষের মনে পড়বে। ২০ বছর বয়সী সারাহ রোগশয্যায় থেকে নিজের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ অন্যকে দান করার ইচ্ছা মাকে জানিয়েছিলেন। সে-ই ইচ্ছাই পূরণ করেছে তাঁর পরিবার। সারাহর মা শবনম সুলতানা বলেছেন, সারাহ সত্যি সত্যি এক স্বর্গীয় সন্তান ছিলো। সে যেখানে যেত, সে তাঁর ব্যবহার দিয়ে সবাইকে মুগ্ধ করে রাখত।

জীবনপথের যাত্রা থেমে গেছে সারাহ ইসলামের। সদ্য কিশোরী থেকে তরুণী হয়ে ওঠা মেয়েটি, কতোই না স্বপ্ন ছিল তাঁর। কিন্তু সেসব স্বপ্ন অপূর্ণই থেকে গেছে। কিন্তু সে হয়তো জেনে গেলো না যে, সে এমন একটি কীর্তি রচনা করে গেলো, যা রয়ে যাবে যুগ যুগ ধরে। সে থাকবে সবার অন্তরে, সে থাকবে তাঁর না-থাকা জুড়ে। এমন অর্জন সবার কপালে জোটে না। মানব হয়ে জন্ম নিয়ে মানবতার কল্যাণ সাধন সবার দ্বারা সম্ভব হয় না। কিন্তু সারাহ সেই গৌরব অর্জন করেছে। এই অর্জন অন্য সকল অর্জন থেকে অনেক অনেক বেশি বড় অর্জন। সারাহর দ্বিতীয় জীবনের সর্বোচ্চ প্রশান্তি কামনা করছি। সৃষ্টিকর্তা তাঁর সর্বোচ্চ পুরস্কার নিশ্চিত করুন। আমীন।

লেখক : লুৎফর রহমান হিমেল – সম্পাদক, দ্য রিপোর্ট.লাইভ

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ
ebarta24.com © All rights reserved. 2021