1. alamin@ebarta24.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  2. online@ebarta24.com : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  3. reporter@ebarta24.com : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  4. news@ebarta24.com : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
স্মৃতিতে উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থান - ebarta24.com
  1. alamin@ebarta24.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  2. online@ebarta24.com : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  3. reporter@ebarta24.com : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  4. news@ebarta24.com : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
স্মৃতিতে উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থান - ebarta24.com
বৃহস্পতিবার, ০২ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০২:১৪ অপরাহ্ন

স্মৃতিতে উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থান

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী
  • সর্বশেষ আপডেট : মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারী, ২০২৩
উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থানের এক পাশে বায়ান্নর রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন, অন্য পাশে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ। একটির ঐতিহ্য অন্যটির সম্ভাবনা—দুটিই এই অভ্যুত্থানের ভেতরে ছিল। ঐতিহ্যটি অবশ্য আরো পুরনো; ১৮৫৭ সালে উপমহাদেশে সিপাহি অভ্যুত্থান হয়েছিল, পাশাপাশি কৃষক বিদ্রোহ ঘটেছে, সাঁওতাল বিদ্রোহের কথা আমরা জানি, বাধাবিঘ্ন সত্ত্বেও ঐতিহ্যটি প্রবহমান ছিল। ১৯৪৫-এর শেষ দিকে, বিশেষভাবে বাংলায় একটি প্রায় বিপ্লবী পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল, যেটিকে দমন করা হয়েছে প্রথমে নির্বাচন দিয়ে, তার পরে দাঙ্গা ঘটিয়ে এবং আরো পরে সাতচল্লিশের দেশভাগ সম্ভব করে।

বায়ান্নতেও একটি অভ্যুত্থান ঘটে, যার পরিণতিতে চুয়ান্ন সালে নির্বাচন দেওয়া হয় এবং পরে সামরিক শাসন চলে আসে; ওই সামরিক শাসনের বিরুদ্ধেই ছিল উনসত্তরের অভ্যুত্থান। তবে এর গভীরে ছিল আরো এক আকাঙ্ক্ষা। সেটি পাকিস্তান রাষ্ট্রের বন্ধন থেকে মুক্তির; আন্দোলনকারীদের একাংশের আকাঙ্ক্ষায় উপস্থিত ছিল সমাজ বিপ্লবের স্বপ্নও। বায়ান্নর রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন জাতি প্রশ্ন এবং শ্রেণি প্রশ্ন দুটিরই মীমাংসার জন্য চাপ দিচ্ছিল। বাস্তবে ভারতীয় উপমহাদেশটি ছিল বহু জাতির দেশ; সেখানে এক জাতিতত্ত্বের প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে পথ করে দেওয়া হয়েছিল দ্বিজাতিতত্ত্বের আবির্ভাবের জন্য এবং তার পরে ওই দ্বিজাতিতত্ত্বের ওপর ভিত্তি করেই ঘটে সাতচল্লিশের দেশভাগ। বলা বাহুল্য, তাতে জাতি প্রশ্নের সমাধান হয়নি, না ভারতে, না পাকিস্তানে। পাকিস্তানে বাঙালির সংখ্যা ছিল শতকরা ৫৬ জন; কিন্তু শাসন চালু হয়েছিল অবাঙালিদের; রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন ছিল ওই রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থার বিরুদ্ধেই একটি অভ্যুত্থান। বাংলাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার দাবি ধর্মভিত্তিক জাতীয়তাবাদের জায়গায় ভাষাভিত্তিক জাতীয়তাবাদকে প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিল। পূর্ব পাকিস্তানের ওপর পশ্চিম পাকিস্তানের শাসনের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর পেছনে পাকিস্তানের পূর্ব ভূখণ্ডে বসবাসকারীরা ছিল ঐক্যবদ্ধ; তদুপরি ভাষা যেহেতু কোনো শ্রেণির একচেটিয়া অধিকার ও সম্পত্তি নয়, তাই ভাষার দাবি প্রতিষ্ঠা সব শ্রেণির মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার আদায়ের অব্যাহত সংগ্রামেরও একটি অংশ ছিল বৈকি। ভাষাভিত্তিক জাতীয়তার প্রশ্ন এবং সমাজের সব শ্রেণির মানুষের সমান অধিকারের প্রশ্ন একত্র হয়ে গিয়েছিল।

উনসত্তরের অভ্যুত্থানে তাই জাতি ও শ্রেণি উভয় প্রশ্নেরই মীমাংসার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছিল। আন্দোলনকে প্রথমে মনে হয়েছিল আইয়ুব খানের সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে অভ্যুত্থান, কিন্তু অচিরেই বোঝা গিয়েছিল যে পূর্ববঙ্গের মানুষ শুধু যে সামরিক শাসনের অবসান চায় তা নয়, পাকিস্তান রাষ্ট্র থেকেও তারা মুক্তি চায়। স্বায়ত্তশাসনের অভাবের দরুন অসন্তোষ অবশ্য শুরু থেকেই, বলা চলে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার আগে থেকেই ছিল। ১৯৪০ সালের সেই লাহোর প্রস্তাবে একটি নয়, একাধিক রাষ্ট্রের কথাই বলা হয়েছিল। পূর্ববঙ্গের বাঙালি মুসলমান পাকিস্তানকে সেভাবেই দেখত। কিন্তু তার বদলে প্রতিষ্ঠা ঘটল অখণ্ড ও এককেন্দ্রিক একটি আমলাতান্ত্রিক রাষ্ট্রের, যেটিকে আরো বেশি এককেন্দ্রিক করার জন্যই একটিমাত্র রাষ্ট্রভাষা হিসেবে উর্দুকে চালু করার প্রস্তাবটি এসেছিল। পূর্ববঙ্গের মানুষ স্বভাবতই হতাশ ও বিক্ষুব্ধ হয়েছে এবং তারা আন্দোলনে নেমেছে। পঞ্চাশ সালে লিয়াকত আলী খান সংবিধানের যে অগণতান্ত্রিক মূলনীতিগুলো ঘোষণা করেন তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হয়েছে; দাবি উঠেছে লাহোর প্রস্তবের ভিত্তিতে আঞ্চলিক স্বায়ত্তশাসন দেওয়া হোক। বায়ান্নতেও ওই দাবি ছিল, উনসত্তরে এসে তা আরো প্রবল হলো। আন্দোলন যখন প্রবল হয়ে উঠল, তখন বোঝা গেল স্বায়ত্তশাসন নয়, মানুষ আসলে স্বাধীনতাই চায়।

যে প্রশ্নটা সংগত, যদিও কিছুটা প্রচ্ছন্নভাবে ছিল, সেটা হলো এবারের স্বাধীনতা কাদের নেতৃত্বে অর্জিত হবে, আগেরবারের মতো জাতীয়তাবাদীদেরই, নাকি সমাজতন্ত্রীদের? আন্দোলনে উভয় ধারাই ছিল। রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনে যে তরুণরা অংশ নেয়, অস্পষ্ট রূপে হলেও তারা জাতীয়তাবাদের সঙ্গে সমাজতন্ত্রকেও যুক্ত করতে চেয়েছে, কিন্তু চুয়ান্নর নির্বাচনে যে রাজনৈতিক নেতারা সামনে চলে এসেছিলেন, তাঁদের বেশির ভাগ জাতীয়তাবাদী ধারারই ছিলেন; নির্বাচনে সমাজতন্ত্রীরা অখণ্ড বঙ্গের ছেচল্লিশ সালের নির্বাচনে তেমন একটা সুবিধা করতে পারেননি, চুয়ান্নতেও পারলেন না; পারার অবশ্য কথাও ছিল না। কিন্তু উনসত্তরের অভ্যুত্থানে জাতীয়তাবাদীদের পাশাপাশি সমাজতন্ত্রীরাও সামনে চলে এসেছেন। বস্তুত পরিমাণে ও গুণে তাঁরাই ছিলেন অধিক শক্তিশালী, কিন্তু নেতৃত্ব তাঁরা ধরে রাখতে পারেননি।

আওয়াজ ছিল দুই ধরনেরই, ‘বীর বাঙালি অস্ত্র ধরো পূর্ব বাংলা স্বাধীন করো’ এবং ‘শ্রমিক কৃষক অস্ত্র ধরো পূর্ব বাংলা স্বাধীন করো’, আবার ‘তোমার আমার ঠিকানা পদ্মা মেঘনা যমুনা’ এবং পাশাপাশি ‘তোমার আমার ঠিকানা ক্ষেতখামার আর কারখানা’। কিন্তু সমাজতন্ত্রীরা নিজেরাই তত দিনে দুই ভাগ হয়ে গেছেন। এক দল পরিচিত হয়েছে মস্কোপন্থী হিসেবে, অন্য দলের পরিচিতি দাঁড়িয়েছে পিকিংপন্থী বলে। পিকিংপন্থীদের তুলনায় মস্কোপন্থীরা আপসপন্থী ছিলেন, কিন্তু পিকিংপন্থীরা ছিলেন কয়েকটি উপদলে বিভক্ত, উপরন্তু তাঁদের ওপর আবার এসে পড়েছিল পশ্চিমবঙ্গের নকশালবাড়ির ঢেউ। তাঁদের কেউ কেউ সব রকমের গণসংগঠন ও শ্রেণিসংগঠন ভেঙে দিয়ে সরাসরি শ্রেণিসংগ্রামের অর্থাৎ ‘শ্রেণিশত্রু’ খতম করার এবং গ্রাম দিয়ে শহর ঘেরাও করার অবৈজ্ঞানিক ও অবাস্তব পথ ধরেছিলেন। রাজনৈতিকভাবে প্রধান দ্বন্দ্বটি তত দিনে দাঁড়িয়ে গিয়েছিল পাকিস্তান রাষ্ট্রের সঙ্গে পূর্ববঙ্গবাসীর; সেই দ্বন্দ্ব বাঙালি জাতীয়তাবাদীদের ‘জয় বাংলা’ আওয়াজে যেমন স্পষ্টভাবে ধরা পড়েছিল, সমাজতন্ত্রীদের ‘জয় সর্বহারা’ আওয়াজে তেমনভাবে আসেনি, যদিও দুই আওয়াজের ভেতর বড় একটা বিরোধ ছিল না, সর্বহারার জয় সুনিশ্চিত করার জন্যই জয় বাংলার অধিকার কায়েম করা আবশ্যক ছিল। জাতি প্রশ্নের মীমাংসা শ্রেণি প্রশ্নের মীমাংসা করার পথ করে দিতে পারত। ওদিকে কি মস্কোপন্থী, কি পিকিংপন্থী উভয় ধারারই নেতৃত্বে ছিলেন মধ্যবিত্তরাই, তাঁদের কণ্ঠে ‘জয় সর্বহারা’ আওয়াজটি উঠতে চায়নি, উঠলেও তেমন জোরদার হয়নি এবং তাঁদের ঠিকানা যে ক্ষেতখামার-কলকারখানা—সেটিও খুব পরিষ্কার ছিল না; অন্যদের কাছে তো নয়ই, তাঁদের নিজেদের কাছেও নয়। বাঙালিকে বীর বলা ও অস্ত্র তুলে ধরে বীরত্বকে প্রদর্শিত করার ডাকের তুলনায় দূরবর্তী শ্রমিক-কৃষককে অস্ত্র ধরতে বলার ভেতর জোরটা কিছু কমই থাকার কথা। ছিলও। শেষ পর্যন্ত জয় হয়েছে তাই জাতীয়তাবাদীদেরই। চরিত্রগতভাবেই তাঁরা বিপ্লবী ছিলেন না, ছিলেন আপসপন্থী এবং পুঁজিবাদী উন্নতিতে আস্থাশীল সামরিক শাসক আইয়ুব খান যখন সরে দাঁড়াতে বাধ্য হলেন এবং তাঁরই অধীন সেনাপ্রধান ও তাঁর তুলনায় নিম্নমানের এক ব্যক্তি ইয়াহিয়া খানকে ক্ষমতায় বসিয়ে রাষ্ট্রব্যবস্থাকে ভেঙে পড়ার হাত থেকে রক্ষা করার ব্যবস্থা করলেন এবং ক্ষমতা পেয়ে ইয়াহিয়া খান যখন নির্যাতনমূলক পথ না ধরে নির্বাচনের ঘোষণা দিলেন, তখন বাঙালি জাতীয়তাবাদীরা, যাঁদের নেতৃত্বে ছিলেন শেখ মুজিবুর রহমান, তাঁরা স্বস্তি পেলেন এবং নির্বাচনের মধ্য দিয়ে রাষ্ট্রক্ষমতায় যাওয়ার পথ মোটামুটি উন্মুক্তই দেখতে পেলেন।

রাষ্ট্রক্ষমতায় অধিষ্ঠিতদের জন্য নির্বাচন দিয়ে জনরোষ শান্ত করা ছিল পুরনো কৌশল। ছেচল্লিশে নির্বাচন দিয়ে তাঁরা একটি প্রায় বিপ্লবী পরিস্থিতিকে সামাল দিয়েছিলেন; চুয়ান্নতে নির্বাচন দিয়ে রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের ভেতর দিয়ে শক্তিশালী হয়ে ওঠা রাষ্ট্রবিরোধী শক্তিকে বিভক্ত করা সম্ভব হয়েছিল। সত্তরে নির্বাচন দেওয়ার পেছনেও হিসাবটা ছিল ওই একই রকমের। আন্দোলনকারীরা বিভক্ত হয়ে যাবেন এবং ক্ষমতাসীনরা রক্ষা পাবেন, আশা ছিল এইটাই। তাঁদের সেই হিসাব মেলেনি; কারণ আগের আন্দোলনগুলোর ভেতরকার শক্তিটাকে ধারণ করে ও বিদ্যমান পরিস্থিতিতে অনেক বেশি ক্ষুব্ধ হয়ে শুধু মধ্যবিত্ত নয়, সব শ্রেণির মানুষই তত দিনে বুঝে নিয়েছিল যে পাকিস্তান নামের শোষণমূলক রাষ্ট্রে তাদের জন্য আসলে কোনো ভবিষ্যৎ নেই। শত্রু হিসেবে অবাঙালি শাসকদের তাদের চেনাটাও আর অসম্পূর্ণ ছিল না।

উনসত্তরের ওই অভ্যুত্থান শুধু শাসক পরিবর্তনের নয়, বিপ্লবের কাছাকাছিই পৌঁছে গিয়েছিল। আন্দোলনের সময়ে কমিউনিস্ট পার্টির নেতা মণি সিংহ জেলে ছিলেন, অভ্যুত্থানের ফলে তিনি মুক্ত হন; কারামুক্ত হয়ে ওই বছরই পহেলা মের এক ঘরোয়া সমাবেশে তিনি বলেছিলেন, ‘২৪ জানুয়ারির মহান গণ-অভ্যুত্থান আগামী বিপ্লবের ড্রেস রিহার্সাল।’ হ্যাঁ, হতে পারত, কিন্তু হয়নি। জানুয়ারির ২৪ তারিখে অভ্যুত্থান একটি চূড়ান্ত রূপ ধারণ করেছিল। বিপ্লবকে সম্ভব করে তোলার ক্ষেত্রে অন্য অনেকের তো বটেই, কমরেড মণি সিংহের নিজের দলের, কমিউনিস্ট পার্টিরই গড়িমসি ছিল। সম্পূর্ণ ভিন্ন অবস্থানে দাঁড়িয়ে পাকিস্তানের বিমানবাহিনীর সাবেক প্রধান আসগার খান জানুয়ারি মাসের ২৬ তারিখে পাকিস্তানের রক্ষাকামীদের সতর্ক করে দিয়ে বলেছিলেন, ‘পূর্ব পাকিস্তানের এইরূপ বিপ্লবের আশঙ্কা আছে বলিয়াই আমি সতর্ক করিয়া আসিতেছিলাম। আইয়ুব সরকারই এ জন্য দায়ী। আইয়ুব সরকারের অপসারণ দরকার। […] বিপ্লব চলিতেছে […] এখনও সময় আছে।’ তাঁর উদ্বেগটা ছিল পাকিস্তানের অখণ্ডতা নিয়ে; আশঙ্কা করছিলেন যে পূর্ব পাকিস্তান ‘বিপ্লব’ ঘটিয়ে স্বাধীন হয়ে যাবে। তিনি এটা বোঝেননি যে পাকিস্তান রাষ্ট্রের যে আমলাতান্ত্রিক পুঁজিবাদী চরিত্র, তাতে আইয়ুবকে সরিয়ে অন্য কাউকে বসালে পাকিস্তানকে রক্ষা করা যাবে না; আইয়ুব গেলে ইয়াহিয়া আসবেন, ইয়াহিয়ার পরে আসবেন জুলফিকার আলী ভুট্টো, জিয়াউল হক এবং পাকিস্তানকে ক্রমাগত অধঃপতিত করার কাজে আগের জনের তুলনায় পরের জনের ভূমিকা মোটেই খাটো হবে না। তখনকার পাকিস্তান অবজারভার পত্রিকা সাধারণত পূর্ববঙ্গের হয়েই কথা বলত, বলতে গিয়ে সরকারের রোষে পড়ে পত্রিকা একবার নিষিদ্ধ হতে হয়েছে ও সম্পাদক আবদুস সালামকে কারাযন্ত্রণাও সহ্য করতে হয়েছিল, কিন্তু পত্রিকার মালিক হামিদুল হক চৌধুরী, যিনি ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার’-এর জন্য আইয়ুববিরোধী ডেমোক্রেটিক অ্যাকশন কমিটিতে (ড্যাক) সক্রিয় ছিলেন, সামাজিক বিপ্লবের সম্ভাবনা দেখে তিনি বরং আসগার খানের চেয়েও অধিক শঙ্কিত হয়ে থাকবেন, যে জন্য তাঁর পত্রিকার সম্পাদকীয়তে লেখা হয়েছিল, ‘ছাত্রনেতারা যেন সামাজিক বিপ্লব সাধনের আহ্বান না দেয় এবং এই সংগ্রামকে যেন শেষ যুদ্ধে পরিণত না করে।’ দৈনিক ইত্তেফাক ছিল আগাগোড়াই স্বায়ত্তশাসনের পক্ষে, আইয়ুব-মোনেমের শাসনে পত্রিকা নিষিদ্ধ, ছাপাখানা বাজেয়াপ্ত ও সম্পাদক তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া কারারুদ্ধ হয়েছিলেন; মুক্ত হয়ে সেই পত্রিকাও কিন্তু উগ্রপন্থার, বিশেষ করে মওলানা ভাসানী ঘোষিত ঘেরাও ও কথিত ‘জ্বালাও-পোড়াও’ নীতির সমালোচনা করেছে। ইত্তেফাকের ‘রাজনৈতিক মঞ্চ’তে ‘বামপন্থীদের বিচ্ছিন্নতাবাদী’ তৎপরতার বিরুদ্ধেও বলা হয়েছে। এমনকি তাঁদের বিরুদ্ধে সামরিক আইনে ব্যবস্থা গ্রহণের পরামর্শ পর্যন্ত দেয়।

 

লেখক : সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী – ইমেরিটাস অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

 

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ
ebarta24.com © All rights reserved. 2021