মঙ্গলবার, ০৯ মার্চ ২০২১, ০৬:৫৩ পূর্বাহ্ন
শীর্ষ সংবাদ
বিএনপির ঐতিহাস ৭ই মার্চ পালন মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতির আরেকটা প্রচেষ্টা মাত্র বাক স্বাধীনতার নামে দেশবিরোধী চক্রের গুজব সন্ত্রাস লিঙ্গ সমতায় বাংলাদেশ এখন রোল মডেল : আরও যোগ্য হওয়ার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর জাতিসংঘের প্রতিটি ভাষায় ৭ মার্চের ভাষণ : বাংলাদেশে ডাকটিকিট অবমুক্ত বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের চক্রান্তের স্ক্র্যাপ ও খুনিদের পুনর্বাসন ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ৫০ বছর কালজয়ী এই ভাষণ বিশ্বের শোষিত, বঞ্চিত ও মুক্তিকামী মানুষকে সবসময় প্রেরণা যুগিয়ে যাবে দীর্ঘদিন পর গণভবনের বাইরে এসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা সফল তিন নেতার একজন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ৭ মার্চের ভাষণ : পটভূমি ও তাৎপর্য

আমরা তো এমন লৌহমানবী প্রধানমন্ত্রীকেই চেয়েছিলাম

হামজা রহমান অন্তর
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

All the Prime Minister’s Men
আগ্রহ না থাকার পরেও এক বিশেষ মহলের হৈচৈ শুনে জীবন থেকে এক ঘন্টা নষ্ট করলাম। দেখার পর আমার একমাত্র অনুভূতি, নামটা তো এমনও হতে পারতো-
All the Mohammadpur’s Men
All the Dhakaiya Men
All the Bangladeshi Men
All the Ahmed Brothers
কিংবা ডকুমেন্টারিতে আরও অনেক ব্যক্তি আছে যাদের সরাসরি আক্রমণ করে এই তথাকথিত ডকুফিল্মের নাম দেওয়া যেতো! এমনকি এসবের সাথে পুরো এক ঘন্টার ভিডিওতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নুন্যতম কোনো সম্পর্ক দেখাতে পারে নাই, তবু তারা নাম দিয়েছে All the Prime Minister’s Men!
কিন্তু এই ডকুমেন্টারিতে একমাত্র টার্গেট আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, তাই এমন উদ্ভট নাম! একমাত্র তাকে দুর্বল করতে পারলেই বাংলাদেশকে পিছিয়ে দেওয়া যাবে।
ব্রিটিশ অর্থনৈতিক গবেষণা সংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী ২০৩৫ সালে বাংলাদেশ হবে পৃথিবীর ২৫তম বৃহৎ অর্থনৈতিক দেশ। পেছনে ফেলবে মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, ডেনমার্ক, হংকং, সংযুক্ত আরব আমিরাত, মিশর, নরওয়ে, আর্জেন্টিনা, ইজরায়েল, আয়ারল্যান্ড, অস্ট্রিয়া, বেলজিয়াম, সুইডেন, ইরান, তাইওয়ানের মতো দেশকে।
শেখ হাসিনাকে ক্ষমতা থেকে না সরাতে পারলে তো আগামী ১৫ বছরের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত দেশ হয়ে যাবে! পরাজয় কাদের? যারা বাংলাদেশ চায় নাই।
শেখ হাসিনার গত ১২ বছরে রাজাকার শিরোমণি গোলাম আজমের ছেলেসহ কাকুল মেন্টালিটির প্রো পাকিস্তানি ও পাকিস্তান ফেরত সেনা কর্মকর্তারা বিদায় নিয়েছে, গড়ে উঠেছে একটি পুরোপুরি বাংলাদেশী প্রজন্মের সেনাবাহিনী। এই সেনাবাহিনীকে বিতর্কিত করতে পারলে কার লাভ? যারা পাকিস্তানকে এখনো ধারণ করে।
আল জাজিরার বাংলাদেশের প্রকাশ্য সহযোগী বিএনপি-জামায়াতের জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান সমন্বয়ক, ড. কামাল হোসেনের মেয়ের জামাই, ডেভিড বার্গম্যান। এই লোকটাকে বাংলাদেশের মানুষ গত ৮-৯ বছর ধরেই চেনে একাত্তরে যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্ত জামায়াতে ইসলামীর নুন খাওয়া দালাল হিসেবে। বিশ্বের আর কোথাও ঠিকমতো চেনে কিনা সন্দেহ আছে।
মুক্তিযুদ্ধের শহীদের সংখ্যা, রাজাকারের তালিকাসহ জামায়াত এ পর্যন্ত যা যা মিথ্যাচার করে এসেছে সবই বার্গম্যানের লেখনীতে ফুটে উঠছে। তার একমাত্র লক্ষ্য প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রীয় বাহিনীকে আক্রমণ করে লেখা। বার্গম্যান যেনো জামায়াতের বিদেশি মুখপাত্র! জামায়াতের যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচাতে আন্তর্জাতিক লবিস্ট নিয়োগেও ভূমিকা রেখেছিলো এই বার্গম্যান। একাত্তরের জামায়াতের মতো দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধেও একই অভিযোগে অভিযুক্ত রাজনৈতিক দল ক্ষমতাশালী নাৎসিদের পক্ষেও এমন অর্থলোভী নির্লজ্জ দালাল খুঁজে পাওয়া যায়নি। কিন্তু জামায়াতকে অনেক ভাগ্যবান বলা যায় এমন অনুগত দালাল যেহেতু পেয়েছে।
বার্গম্যানরা মূলত বাংলাদেশবিরোধী সব পক্ষকে নিয়ে ঐক্য করার কাজটা করে যাচ্ছেন। আমেরিকায় এসকে সিনহা, যুক্তরাজ্যে তারেক রহমান, জঙ্গীবাদের অভিযোগে বিদেশে পলাতক কয়েকজন জুনিয়র সেনা কর্মকর্তা, বাংলাদেশের বিএনপি-জামায়াত, হেফাজত, মোল্লা সম্প্রদায় ও আন্তর্জাতিক প্রোপাগাণ্ডা মিডিয়া আল জাজিরাসহ সকল পক্ষকে এক জায়গায় আনতে চাইছেন বার্গম্যানরা। তাই এবার আটঘাট বেঁধেই নেমেছেন, তবে মাঠের রাজনীতিতে নয়, পেছন দরজা দিয়ে ক্ষমতা পরিবর্তনের ইচ্ছে নিয়ে।
কিছু প্রশ্ন মাথায় ঘুরপাক খাচ্ছে। আল জাজিরাকে চ্যালেঞ্জ দিচ্ছি পারলে আবার ডকুমেন্টারি বানাক এসব যুক্তি খণ্ডন করে।
★ সেনাবাহিনী রাষ্ট্রের নিরাপত্তা রক্ষার দায়িত্ব পালনকারী প্রতিষ্ঠান যা নিজস্ব আইনে পরিচালিত। পৃথিবীর কোনো দেশে সেনাবাহিনী নিয়ে বিতর্ক তোলা হয় না। আল জাজিরা আন্তর্জাতিক নীতিমালা উপেক্ষা করে একটি গণতান্ত্রিক দেশের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করে কি প্রমাণ করতে চাইছে?
★ ডকুমেন্টারিতে বলা হয়েছে জেনারেল আজিজ আহমেদ কোথাকার কোন সামিকে ইমেলে হুমকি দিয়েছেন। ফেক স্ক্রিনশটের যুগে এমন অভিযোগ হাস্যকর।
★ জোসেফ প্রায় দুই দশক জেল খাটার পর মুক্ত হয়েছে। এদেশে যাবজ্জীবনের মেয়াদ ১২ বছরের বিধানও ছিল। আমরা কি সেভেন মার্ডারের আসামী শফিউল আলম প্রধানকে ভুলে গেছি? জিয়াউর রহমান তো ফাঁসি থেকে ফিরিয়ে প্রধানকে বাংলাদেশের রাজনীতির মাঠে ফিরিয়ে এনেছিলেন, আল জাজিরা সেসব নিয়ে কখনো কোনো রিপোর্ট করেছে?
★ সেনাপ্রধান আজিজ আহমেদ যদি বলেও থাকেন যে তার ভাইয়েরা দুঃসময়ে আওয়ামী লীগকে টিকিয়ে রেখেছেন, এতে অন্যায়ের কি আছে? আওয়ামী লীগ তো তৃণমূলের অবদানেই টিকে ছিল। এছাড়া তার বক্তব্য এডিটেড কিনা তা পরীক্ষায় দেয়ার মতো ঘোষণা কি তারা দিয়েছে?
★ ডকুমেন্টারিতে সেনাপ্রধানের ছেলের বিয়ের অনেক ভিডিও ফুটেজ দেখানো হলো, সেখানে কিন্তু তার ভাইয়েরা অনুপস্থিত। তাহলে যেসব বিয়ের ছবি দেখানো হয়েছে তার ভাইদের উপস্থিতি দেখিয়ে, সেগুলো ফেইক ও এডিটেড হবার সম্ভাবনা শতভাগ।
★পুরো ডকুমেন্টারি যার বক্তব্যের উপর ভিত্তি করে বানানো হলো, সেই হারিস আহমেদ যদি বলে তার কথায় দেশ চলে, তাহলে কি সেটাই সত্য হয়ে যাবে? এমন দাবি অনেকেই করে।
★ হারিসের ফোনের অপরপ্রান্তে একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তার কথা শোনানো হয়েছে, তার নাম প্রকাশ করা হয়নি কেন? বা বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনী কোন একাউন্টে কার মাধ্যমে টাকা নেয় সেটার একটা প্রমাণ থাকবে, সেটা কোথায়? প্রমাণ ছাড়া কি এমন বক্তব্য প্রচার করা দায়িত্ববোধের পরিচায়ক?
★ মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসকে আনিস আহমেদকে সাহায্য করার কথা বলা হয়েছে। যেকোনো নাগরিক তার দেশের দূতাবাস থেকে সাহায্য পাওয়ার অধিকার রাখে। আল জাজিরার কি এতটুকু কাণ্ডজ্ঞান নেই?
★ ইসরায়েলের সাথে বাংলাদেশের কোনো কুটনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক নাই। মিথ্যাচার করে ভিডিওতে সাথে সাথে বাংলাদেশের মোল্লা সম্প্রদায়কে দেখানো হলো কেন? মোল্লাদের উস্কে দিয়ে ধর্ম নিরপেক্ষ সরকারের বিরুদ্ধে ইসলামি জিহাদ করানোর জন্য? আল জাজিরা অতীতেও এমনিভাবে জঙ্গিবাদ উস্কে দিয়েছে।
এসব প্রশ্নের জবাব আল জাজিরা কখনো দিতে পারবে না। কারন আল জাজিরাকে ইতোমধ্যে জঙ্গিবাদের গডফাদার হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।
★ ওসামা বিন লাদেন তার সন্ত্রাসবাদী বক্তব্য প্রচার করার প্লাটফর্ম পেয়েছিলো একমাত্র কোথায়? আল জাজিরায়!
★বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের বিরোধিতা করে কোন আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম? আল জাজিরা!
★ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা ৩০ লক্ষের জায়গায় ৩-৫ লক্ষ দাবি করে কোন আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম? আল জাজিরা!
★ ৫ মে ২০১৩ সালে শাপলা চত্ত্বরে নিহতের সংখ্যা নিয়ে গুজব ছড়ায় কে? আল জাজিরা!
★ বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষের ব্লগারদের ‘নাস্তিক’ আখ্যা দিয়ে জঙ্গি সংগঠনগুলোর টার্গেটে ফেলে কে? আল জাজিরা!
★ জাতিসংঘের মতে বিশ্বব্যাপী সরাসরি সন্ত্রাসবাদে মদদদাতা, আইএস এর আর্থিক সাহায্যকারী ও বাংলাদেশের জামায়াতে ইসলামীর মতো উগ্র ইসলামিস্ট মতাদর্শে বিশ্বাসী মুসলিম ব্রাদারহুডের পক্ষে কাজ করার জন্য সৌদি আরব, বাহরাইন, মিশর, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও জর্ডানের মতো মুসলিম দেশসহ মধ্যপ্রাচ্যের প্রায় সব মুসলিম দেশে নিষিদ্ধ কোন চ্যানেল? আল জাজিরা!
এতো অপকর্মের বিপরীতে আল জাজিরার নুন্যতম বস্তুনিষ্ঠতাও খুঁজে পাওয়া যায় না।
★ আল জাজিরা কি কখনো ১৯৭৫ থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত প্রো-পাকিস্তানিদের ক্ষমতা দখল, সেনাশাসন, সীমাহীন দুর্নীতি, রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়ন, সারাবিশ্বের সাথে কুটনৈতিক পরাজয়সহ বাংলাদেশকে পিছিয়ে দেওয়ার মহা আয়োজন নিয়ে কখনো ডকুমেন্টারি বানিয়েছিলো? উত্তর হলো ‘না’।
★ আল জাজিরা কি বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার, খুনিদের বিদেশে পালিয়ে যাওয়া, এখনো আমেরিকা, কানাডায় পালিয়ে থাকা, খুণীদের দল ফ্রিডম পার্টি নিয়ে কখনো কিছু বলেছে? উত্তর হলো ‘না’। উলটো ফ্রিডম পার্টির নেতাদের খুন হওয়া নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেছে ১ ঘন্টার ভাইরাল ভিডিওতে।
★ আল জাজিরা কি ২০০১ থেকে ২০০৬ সালের বিএনপি-জামায়াতের ৫ বার দুর্নীতিতে বিশ্বচ্যাম্পিয়ানশিপ, জঙ্গিবাদে সরাসরি মদদ ও ব্যার্থ রাষ্ট্রের দিকে ঝুঁকে যাওয়া নিয়ে কিছু লিখেছে? উত্তর হলো ‘না’।
আল জাজিরা আমাদের প্রধানমন্ত্রী ও সরকারের তেমন কোনো ক্ষতি না করতে পারলেও কিন্তু দেশের নিরাপত্তা বাহিনীকে অপমান করেছে। আজকে আল জাজিরার ১ ঘন্টার পাতানো ডকুমেন্টারিতে বাংলাদেশের সেনাবাহিনী, পুলিশ, বিজিবি, র‍্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী ও গোয়েন্দাবাহিনীকে যেভাবে দুর্নীতিবাজ বলা ও ছোট করা হয়েছে, এরপরও যারা উল্লাসিত ও উচ্ছ্বসিত তারা কারা? তারা গোলাম আজমদের রেখে যাওয়া প্রো পাকিস্তানি কুসন্তান।
আজ সংসদে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, “আমি এইটুকু বলতে চাই, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে। শত্রুর মুখে ছাই দিয়ে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে, যে যাই বলুক।”
আমরা তো এমন লৌহমানবী প্রধানমন্ত্রীকেই চেয়েছিলাম। ইতিহাস সাক্ষী, মোশতাক-জিয়া-এরশাদ-খালেদা গংরা ক্ষমতায় থাকার জন্য বিদেশি অপশক্তির কাছে মাথা বিক্রি করেছিলেন, কিন্তু জাতির পিতা ও তার কন্যা কখনো মাথা নোয়ান নাই। তাই গর্বের সাথে উচ্চারণ করতে চাই #we_are_primeministers_men.
লেখকঃ হামজা রহমান অন্তর – কলামিস্ট, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কর্মী


আরও সংবাদ