মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১, ০৫:০৯ অপরাহ্ন
শীর্ষ সংবাদ
৫০০ গৃহকর্মী ও ৮১ তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ পেলেন প্রধানমন্ত্রীর উপহার ৭ মে – শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন : গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার দিবস যে যেখানে আছে সেখানেই ঈদ : ‘নবসৃষ্ট অবকাঠামো ও জলযান’ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী জাহাঙ্গীরনগরের দেয়ালগুলো যেভাবে রঙিন হলো সংসদ ভবনে হামলার পরিকল্পনায় গ্রেফতার ২ : নেপথ্যে হেফাজত অনিয়মের বিরুদ্ধে সাবধান করলেন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার আল্টিমেটামের পরেই হেফাজতের তাণ্ডব সারদেশে প্রধানমন্ত্রীর উপহার পেলেন শ্রমিক, ইমাম, ভ্যানচলক : আশ্রয়হীদের জন্য সরকারি ঘর উগ্রতার দায়ে স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেওয়া হল কঙ্গনার টুইটার অ্যাকাউন্ট বিচ্ছেদের আগেই সম্পত্তি ভাগাভাগির চুক্তি !

‘জান ও জবান’ নিয়ে ফেসবুক তোলপাড়

শিমুল সালাহ্উদ্দিন
আপডেট : মঙ্গলবার, ২ মার্চ, ২০২১

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তারের পর কারাগারে লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় আইনটি বাতিলের দাবিতে আন্দোলন করছে একাধিক বামপন্থি সংগঠন। তবে এই আন্দোলনেই বিতর্ক উঠেছে একটি স্লোগানের দুটি শব্দ ঘিরে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চলছে পাল্টাপাল্টি সমালোচনা। এমনকি আন্দোলনকারীদের মধ্যেই তৈরি হয়েছে দুটি পক্ষ।

প্রতিবাদ সমাবেশের একটি ব্যানারে লেখা ছিল ‘জান ও জবানের স্বাধীনতা চাই’। আর এরপর থেকেই সেই ‘জান ও জবান‘ নিয়ে তোলপাড় চলছে ফেসবুকে।

বিতর্কের সূত্রপাত হয় বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রীর কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক দিলীপ রায় এবং সুইডেন প্রবাসী লেখক ও উইমেন চ্যাপ্টার সম্পাদক সুপ্রীতি ধরের স্ট্যাটাসের সূত্রে।

এর মধ্যে দিলীপ রায়ের স্ট্যাটাসটি ছিল আন্দোলনের কর্মসূচি হিসেবে ‘গায়েবানা জানাজা’র আয়োজন নিয়ে। ২৮ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ সময় রাত ১২টা ৪২ মিনিটে দিলীপ রায় স্ট্যাটাস দেন, ‘সারাদিন মিটিং মিছিল করে আসার পর ফেসবুকে কূটক্যাচাল করতে ইচ্ছে করছে না। তারপরও শুধু একটা প্রশ্ন করতে চাই- এটি একটি সাধারণ জিজ্ঞাসা। অপরাধ নেবেন না।

গায়েবানা জানাজা যদি ধর্মীয় না হয়ে রাজনৈতিক কর্মসূচি হয়ে থাকে, সেই কর্মসূচির নেতৃত্ব কি দিলীপ রায় দিতে পারবে?’

 

ভোর ৬টা ২৪ মিনিটে সুপ্রীতি ধর লেখেন, “জান ও জবান’-এর স্বাধীনতা চেয়ে আন্দোলনের ডাক দেয়া হয়েছে। এই দুটো শব্দই আমার কানে বাজছে। এতো বয়স হয়ে গেলেও মনে হয় না খুব বেশি বার/কখনও আমি এই দুটি শব্দ ব্যবহার করেছি। কথা বলার স্বাধীনতা চেয়েছি, লেখার স্বাধীনতা চেয়ে এসেছি এতোকাল। শব্দ, ভাষাও যে সাম্প্রদায়িক হয়, এ দুটো তার প্রমাণ।”

আন্দোলনে ‘জান ও জবান’ দুটি উদ্দেশ্যপূর্ণ শব্দের ব্যবহারকে ইঙ্গিত করে তার এই বক্তব্য সমর্থন করেন নেটিজেনদের অনেকে। সুপ্রীতি ধরের স্ট্যাটাসে আইনজীবী ইমতিয়াজ মাহমুদ লেখেন, ‘এটা হচ্ছে সাম্প্রদায়িকতা। ধর্মকে ব্যবহারের সফটকোর কায়দা। মওলানা ভাসানি স্টাইল। কে করেছে? আমি শুনিনি।’

 

ইমতিয়াজ মাহমুদ একটি আলাদা পোস্টে লেখেন, ‘…জান-জবান নিয়ে কি আমার অসুবিধা আছে? না, বিষয়টা অসুবিধার নয়, আশঙ্কার। আশঙ্কাটা কিসের?…বাংলাদেশে একদল লোক আছে যারা মওলানা ভাসানিকে খুব পছন্দ করেন, যে কোন অবস্থায় ভারতের বিরোধিতা করেন আর যে কোন অবস্থায় আওয়ামী লীগের বিরোধিতা করেন।…এরা কারা? আপনিই হিসাব করে দেখেন। বিএনপি জামাত এবং ওদের জোটের দলগুলি, সাবেক চীনপন্থি দল ও গ্রুপগুলি এবং এদের অনুগামী বা সমর্থক সমর্থকরা। এরা বাঙালিকে কেবল বাঙালি হিসাবে একটি জাতী হিসাবে দেখতে চায় না বা দেখতে পারে না, এরা বাঙালী মুসলমান ও বাঙালি হিন্দুর মধ্যে পার্থক্য করেন এবং বাংলাদেশকে বাঙালী মুসলমানের দেশ হিসাবে দেখতে পছন্দ করেন।

‘আমি মাওলানা ভাসানিকে পছন্দ করিনা। কেন করিনা? কারণ আমার জ্ঞান বুদ্ধিতে তিনি একজন সাম্প্রদায়িক নেতা ছিলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা প্রশ্নে তাঁর ভূমিকা একটু ম্লান ছিল এবং স্বাধীনতার পর দেশের সংবিধানে তিনি ধর্মনিরপেক্ষতার পরিবর্তে সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম মানুষের বিশ্বাসের প্রতিফলন দেখতে চেয়েছিলেন। চীনের প্রতি আনুগত্য ও ভারতের প্রতি বিদ্বেষ তাঁর রাজনৈতিক অবস্থানকে একটু জটিল তো করেছিলই, তাঁর উপর আবার তাঁর নিজের পীর হিসবে মুরিদ গ্রহণ করা, মানুষকে তাবিজ দেওয়া, পড়াপানি দেওয়া, এইসব আছে। আবার বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর পর ঘাতকদের প্রতি তাঁর ব্লেসিং, জিয়াউর রহমানকে সমর্থন, জিয়াউর রহমানের সমর্থন নিয়ে লং মার্চ এইসবও আছে।’

ইমতিয়াজ মাহমুদ লেখেন, ‘…আমি মনে সেক্যুলার মানুষ, আমি চাই দেশ সেক্যুলার হোক, রাষ্ট্র চলুক ইহজাগতিক নিয়মে। আমি মানুষকে হিন্দু মুসলমানে ভাগ করতে চাই না, বাঙালিকেও হিন্দু মুসলমানে ভাগ করতে চাই না। আমি মনে করিনা যে মাদ্রাসা শিক্ষকরা অনেক স্মার্ট আর রবীন্দ্রনাথ আমার শত্রু। আমি দেশের সমাজতন্ত্র চাই, দুনিয়াজুড়ে সমাজতন্ত্র চাই, বাজার অর্থনীতির পতন চাই। আমি মনে করি সমাজতন্ত্র অর্জন সম্ভব, সমাজতন্ত্র প্রয়োজন এবং বাজার অর্থনীতি উৎখাত করা সম্ভব। কঠিন বটে, কিন্তু অসম্ভব নয়। আমি এটাও মনে করি যে মার্ক্স সাহেবের থিসিস এখনও সঠিক। এবং আমি চাই না রাজনীতিতে কেউ ধর্মের ব্যবহার করুক।’

 

বাকস্বাধীনতা আদায়ের জন্য যে মঞ্চ তৈরির চেষ্টা, তাতে ‘জান ও জবান’ শব্দের ব্যবহার উদ্দেশ্যমূলক এবং সাম্প্রদায়িক মনে করে স্ট্যাটাস দেন দৈনিক সমকালের ফিচার সম্পাদক ও কবি মাহবুব আজীজ, দৈনিক দেশ রূপান্তর-এর যুগ্ম সম্পাদক গাজী নাসিরুদ্দিন খোকনসহ অনেকে।

মাহবুব আজীজ লেখেন, “কথা বলবার অধিকার আদায়ের জন্য যে মঞ্চ তৈরির চেষ্টা– তাতে ‘জান ও জবান’ শব্দের ব্যবহার সাম্প্রদায়িকতাকে উসকে দেয়। ভাষা সুতীব্রভাবে রাজনৈতিক — জান, জবান বা সিনা, সিলসিলা — এসব শব্দ যারা ব্যবহার করে; তাদের রাজনৈতিক গন্তব্য অবশ্যই সাম্প্রদায়িকতার পক্ষে।”

‘জান জবানের স্বাধীনতা চাই’ দাবি তুলে আন্দোলনকারীরা এর মধ্যে খাটিয়া মিছিল ও গায়েবানা জানাজা করলে সাংবাদিক গাজী নাসিরুদ্দিন খোকন স্ট্যাটাস দেন, “বামপন্থীরা গায়েবানা জানাজা করল। এটিতো আর মৃত ব্যক্তির আত্মার শান্তি কামনায় করা হয়নি। রাজনৈতিক কর্মসূচি ছিল। তাতে দেশের অন্য ধর্মের লোকদের এক্সক্লুড করে দেয়া হল। তারপর নাকি আন্দোলনের ডাক দেয়া হয়েছে ‘জান ও জবান’ রক্ষার দাবি নিয়ে। দৃশ্যত ভাসানী ভাসানী মনে হলেও এর স্পিরিচুয়াল গুরু সন্দেহাতীতভাবে ফরহাদ মজহার। ভাষার বিউপনিবেশিকরণের নামে ধর্মবিদ্বেষ ছড়ানোই এই স্লোগানের অন্তর্নিহিত উদ্দেশ্য। মজার ব্যাপার ফরহাদের এই সমস্ত বিদ্বেষের সাবস্ক্রাইবার হচ্ছে বামপন্থী পরিচয় দেওয়া প্রতিক্রিয়াশীলরা। বাংলাদেশের রাজনীতিতে বামপন্থীরাও যদি ইনক্লুসিভ হতে না পারে তাহলে ভেদবুদ্ধিই রাজনীতি শাসন করবে। দিব্যচোখে এদেশের পরিণতি দেখা যায়। আরেকটা পাকিস্তান ইজ ইন দ্য অফিং।”

সোশাল মিডিয়া ব্যবহারকারী অনেকেই এসব স্ট্যাটাসে তাদের প্রতিক্রিয়া ও মতামত দেন। সুপ্রীতি ধরের স্ট্যাটাসে খান আসাদ নামের একজনের মন্তব্য ছিল, “ব্যাপারটা খেয়াল করেছি। প্রথমে ফরহাদ মজহার এলো ‘জ্বিহাদ হচ্ছে শ্রেণীসংগ্রাম’ তত্ত্ব নিয়ে। তারপর পিনাকী ভটচাজ এলো সংখ্যাগুরু ‘মুসলমানের’ সাথে ঐক্য করার ‘কৌশল’ বোঝাতে। এরপর এখন ‘মুসলমানদের’ সাথে রিলেট করা যায়, এমন স্লোগান খোঁজা হচ্ছে। হোক এগুলো। পার্ট অফ দি প্রসেস। কিন্তু আন্দোলনে ‘সাম্প্রদায়িক ভাষা’ সম্পর্কে প্রশ্ন তোলায় যে উষ্মা ও গালাগাল দেখছি, সেটা আমাকে খুবই বিস্মিত করেছে। এই ধরনের বুদ্ধিবৃত্তিক সহিঞ্চুতা তো ফ্যাসিস্টদের থাকে।”

 

‘জান ও জবান’-এর এই তর্কের সূত্র ধরে লেখক ও ব্লগার অমি রহমান পিয়াল লেখেন, “বাংলা ভাষার মাসের শেষ দিনটায় দারুণ এক বলাৎকার উপহার দিলো বিপ্লবীরা। তারা মুশতাকরে ভাষা সৈনিক বইলা দাবি করছে, সেটা করতেই পারে। কিন্তু ইনকিলাবি জোশে নতুন কিছু শব্দ যোগ করছে বাংলার রাজনীতিতে, শ্লোগানে, পোস্টারে। যদিও তাগো নেতারা বলতেছে ডানপন্থী জামাত শিবির ও বিম্পি যেন তাদের দূরের না ভাবে এবং ইসলামী আন্দোলনকারীরা যেন নাস্তিক বইলা তাগো দূরে ঠেইলা না দেয় সেই নৈকট্য আনতেই তারা এইসব ভাষা প্রয়োগ করতেছে। তো আমরা ইনসানিয়াত, ইনসাফ, নফসানিয়াত, মাগরমছলি, জান কি বাজি ইত্যাদি অনেক নতুন জবান শিখলাম আলহামদুলিল্লাহ। পরে গুগল মাইরা দেখি এইসব নামে সুপারহিট সব উর্দু সিনেমা আছে! মারহাবা…”

 

লেখক- শিমুল সালাহ্উদ্দিন, কবি ও সাংবাদিক

(এই প্রতিবেদনে ফেসবুকের স্ট্যাটাসের বানান ও ভাষারীতি একই রাখা হয়েছে। তবে কোনো কোনো দীর্ঘ স্ট্যাটাস সংক্ষিপ্ত আকারে দেয়া হয়েছে। বিপরীত মতামতগুলো রাখা হয়নি। )


আরও সংবাদ