শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৪৪ অপরাহ্ন
শীর্ষ সংবাদ
মসজিদের দানের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে মামুনুল অনুসারী হেফাজতের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, নিহত ১ হেফাজতভক্ত সাম্প্রদায়িক অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করছে ছাত্রলীগ : পাওয়া মাত্রই বহিষ্কার মুজিবনগর দিবসের সুবর্ণজয়ন্তীতে ‘সোনার বাংলার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে’ প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ়প্রতিজ্ঞা বিএনপি কেন পালন করে না মুজিবনগর দিবস? মামুনুল কাণ্ডে টালমাটাল হেফাজত যেকোনো মুহূর্তে গ্রেফতার মামুনুল কিংবদন্তী কবরীর জীবনাবসান চট্টগ্রামের ৩০০ পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রীর উপহার শিবিরের স্টাইলে কৃষক লীগ নেতার পায়ের রগ কেটে দিল ‘হেফাজত’ করোনা রোগীদের শয্যা প্রাপ্তিতে ছাত্রলীগের মানবিক টিম

‘এত কিছুর পরও অশিক্ষিত, অর্ধশিক্ষিত ও প্রায় অশিক্ষিত গোষ্ঠীর কাছে সবই মিথ্যা, মামুনুল মহাপুরুষ!

আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল
আপডেট : সোমবার, ৫ এপ্রিল, ২০২১

আমি প্রায়ই কথা প্রসঙ্গে বলি যে, বেশিরভাগ মোল্লা নাস্তিক। অনেক আলেমরা বলেছেন ইসলামী শিক্ষার একটি পর্যায়ে মনে কিছু প্রশ্ন জাগে, যা জিজ্ঞেস করলেও তাকে বহিষ্কার করা হবে। এ প্রশ্নগুলোর জবাব পাওয়ার মতো রিসোর্স তাদের থাকে না। এ অবস্থায় একটি অংশ নাস্তিক হয়ে পড়ে, কিন্তু প্রকাশ করতে পারে না। তখন তারা ইসলামকে শুধুমাত্র পেশা হিসেবে গ্রহণ করে। যেমন: মওদুদী ও সৈয়দ কুতুব যে মতবাদ দিয়েছে, এমন লেখা কোনো ঈমানদার মুসলিমের পক্ষে লেখা সম্ভব নয়। নাস্তিকরা যখন ইসলামকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করে তখন তাদের মূল ফোকাস হয় আল্লাহ ও রাসুল অপেক্ষা মোল্লাদের ইমেজ যেন বেশি প্রধান্য পায়। এ কারণেই মোল্লারা যত অপরাধ করুক না কেন, অনুসারীরা তার পক্ষে বলে। নিজেদের অজান্তেই তারা তাদের নেতাদের মাবুদের স্থান দেয়।
মামুনুল হকের পক্ষে অশিক্ষিত উগ্র একটি গোষ্ঠী সাফাই দিবে এটা অস্বাভাবিক নয়। কিন্তু হাসান জামিল, গুগল আলেম আজহারি, আজিজুল জেহাদী সহ অনেক মোল্লাই লাজ লজ্জার মাথা খেয়ে প্রমাণিত একটি মিথ্যার পক্ষ নিয়েছে। উগ্রতা, মিছিল, বিক্ষোভ, ভাংচুর, জেনা ইত্যাদি ক্ষেত্রে কোরআন হাদিসের সুস্পষ্ট নির্দেশনা অমান্য করলেও মামুনুলের মাস্তি জায়েজ করতে কোরআনের আয়াত ব্যবহার করছে! মোল্লাদেরকে অপছন্দ করি কারণ পছন্দ করার মতো দৃষ্টান্ত তারা দেখাতে পারে না।
মামুনুল হক শহীদুলের স্ত্রীকে নিয়ে সোনারগাঁও গেছে মৌজমাস্তি করতে। তার যদি সততা থাকতো এবং জান্নাত যদি তার দ্বিতীয় স্ত্রী হতো, তাহলে সে সেই নাম লিখেই হোটেলে উঠতো। কিন্তু রেজিস্ট্রারে নাম লিখেছে প্রথম স্ত্রীর। জিজ্ঞাসাবাদেও প্রথম স্ত্রীর নাম বলেছে। পরবর্তীতে দেখা গেলো মিথ্যা বলেছে। স্ত্রীকে ফোন করে পরামর্শ দিয়েছে, শহীদের স্ত্রীকে বিয়ের কথা যেন সে স্বীকার করে। এদিকে জান্নাতের কথোপকথনে জানা যাচ্ছে, তাদের কোনো‌ বিয়ে হয় নি। “কলেমা পড়ে বিয়ে হয়েছে” এই মর্মে স্বীকৃতি দিতে শিখিয়ে দেয়া হয়েছে তাকে। অন্যদিকে জান্নাত আরা ঝর্ণার স্বামী ও দুই ছেলে জানতে চাচ্ছে, বন্ধুর স্ত্রীকে নিয়ে মামুনুল কেন এসব করেছে!
এত কিছুর পরও অশিক্ষিত, অর্ধশিক্ষিত ও প্রায় অশিক্ষিত গোষ্ঠীর কাছে সবই মিথ্যা, মামুনুল মহাপুরুষ!
বিভিন্ন ইস্যুতে যখন প্রচারণা চলে, তখন অনেকে ক্রিয়েটিভি ও বলদিভিটি ধরে রাখতে পারে না। মোদীর সঙ্গে মামুনুলের ছবি বসানো হয়, পুরোনো কোনো ছবি এনে বর্তমানের বলা হয়। এবারও দেখছি মামুনুল হক ও শহীদুলের যৌথ মালিকানার স্ত্রীর মূল ছবির সঙ্গে অন্য ছবি যুক্ত করা হয়েছে। আমাদের তো ছাগুদের মতো মিথ্যা প্রচারণা দরকার নাই! একই কাজ ছাগুরা করছে; রিসোর্টে তোলা জান্নাত আরার ছবিকে ছাগুকূল যুবলীগ নেতার স্ত্রী বলে প্রচার করছে।
বলদিভিটি দেখানো একদল ছাগল অডাসিটি সফটওয়্যারের স্ক্রিনশট দিয়ে বলছে ডিপ ফেইক অডিওর মাধ্যমে বিভিন্ন ফোনালাপ নকল হয়েছে! ইউটিউব শিক্ষিত হলে যা হয়, ডিপ ফেইক কি সেটাই জানে না! ডিপ ফেইক প্রযুক্তি হচ্ছে ভিডিওর জন্য; এটি প্রাথমিক পর্যায়ে আছে। এছাড়া উদ্ভট দাবি করছে – অডিও ক্লোনিংয়ের। দেইল্লার নারী কেলেঙ্কারির পর এবার মামুনুল হকের জন্য এই সাফাই দেয়া হলো। পৃথিবীর সব ফোনালাপ সঠিক শুধু সাঈদী ও মামুনুলদের ছাড়া!
মোল্লাদের চরিত্র এত নিম্নমানের আমার জানা ছিল না! এদের মধ্যে নূন্যতম মাত্রায়ও ন্যায়, সততা, সত্যবাদিতা, সৌজন্য ও তাকওয়া নেই। এদেরকে কঠোরভাবেই দমন করা উচিত।

 

লেখক: আব্দুল্লাহ হারুন জুয়েল, কলামিস্ট, ইসলামি গবেষক, রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও সাবেক ছাত্রনেতা।


আরও সংবাদ