শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৯:৩২ অপরাহ্ন
শীর্ষ সংবাদ
মসজিদের দানের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে মামুনুল অনুসারী হেফাজতের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, নিহত ১ হেফাজতভক্ত সাম্প্রদায়িক অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করছে ছাত্রলীগ : পাওয়া মাত্রই বহিষ্কার মুজিবনগর দিবসের সুবর্ণজয়ন্তীতে ‘সোনার বাংলার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে’ প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ়প্রতিজ্ঞা বিএনপি কেন পালন করে না মুজিবনগর দিবস? মামুনুল কাণ্ডে টালমাটাল হেফাজত যেকোনো মুহূর্তে গ্রেফতার মামুনুল কিংবদন্তী কবরীর জীবনাবসান চট্টগ্রামের ৩০০ পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রীর উপহার শিবিরের স্টাইলে কৃষক লীগ নেতার পায়ের রগ কেটে দিল ‘হেফাজত’ করোনা রোগীদের শয্যা প্রাপ্তিতে ছাত্রলীগের মানবিক টিম

মামুনুল হককে নিয়ে কোন্দল: দুই শীর্ষ হেফাজত নেতার ফোন আলাপ ফাঁস

ইবার্তা ডেস্ক
আপডেট : মঙ্গলবার, ৬ এপ্রিল, ২০২১

হেফাজতে ইসলামের কোন্দল আবারও প্রকাশ্যে এসেছে। রিসোর্টে নারী কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়া হেফাজতে ইসলামের বিতর্কিত নেতা মামুনুল হককে নিয়ে সংগঠনটির মধ্যে অসেন্তোষ দেখা দিয়েছে। এমনকি অসেন্তোষের আগুন রুপ নিয়েছে কোন্দলে।

হেফাজতের নায়েবে আমির আহমেদ আব্দুল কাদেরের সাথে সংগঠনটির যুগ্ম মহাসচিব ফজলুল করিম কাশেমির একটি ফোন আলাপে সংগঠনটির কোন্দলের চিত্র ধরা পড়েছে। ফোনে কথোপকথনের এক পর্যায়ে মামুনুল হককে পশ্রয় দেওয়ার জন্য হেফাজতের অন্যান্য কেন্দ্রীয় নেতাদের দায়ী করেন ফজলুল করিম কাশেমি। ৪ মিনিট ২০ সেকেন্ডের আলাপচারিতার এর পর্যায়ে ফজলুল করিম কাশেমি বলেন, আমি বলতে বাধ্য হচ্ছি আপনারা তাকে এমনভাবে উপস্থাপন করেন যেন সে একজন রাজপুত্র। আমার ওয়াইফ আমাকে বলতেছে, একজন হুজুর (মামুনুল) এগুলো করলে দেশ চলবে কি ভাবে?”
আলাপচারিতায় নায়েবে আমির আহমেদ আব্দুল কাদের বারবার ফজলুল করিম কাশেমিকে বলেন, আপনি মিটিংএ এসে কথাগুলো বলেন। আপনার কথা আমি বললে তো হবে না।

 

এর আগে হেফাজত নেতা মামুনুল হক অনৈতিক কর্মকাণ্ড করতে গিয়ে ধরা খেয়ে নিজেকে বাঁচানোর আপ্রাণ চেষ্টা করেন।  রিসোর্ট থেকে হেফাজতের নেতাকর্মীরা তাকে ছিনিয়ে নেওয়ার পর তিনি তার স্ত্রী আমেনা তৈয়বাকে ফোন করেন। স্ত্রীকে তিনি ফোনে জানান, রিসোর্টে থাকা ওই নারী জনৈক শহীদুল ইসলামের স্ত্রী। বিষয়টি নিয়ে কিছু মনে না করার অনুরোধ জানিয়ে হেফাজতের এই নেতা স্ত্রীকে বলেন, ‘কেউ জিজ্ঞাসা করলে তুমি বইলো আমি সব জানি।’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে কথোপকথনের অডিও ফাঁস হওয়ার পরপরই ওই নারীসঙ্গী যে মামুনুল হকের বৈধ স্ত্রী নন—সে বিষয় কিছুটা পরিষ্কার হয়ে যায়। এরমধ্যেই আরও পাঁচটি অডিও ফাঁস হয়। যেগুলোতে গত কয়েক দিনে মামুনুল হক ও তার কথিত সেই নারীসঙ্গীর সঙ্গে দেখা-সাক্ষাৎ করা নিয়ে আলোচনা রয়েছে। এমনকি ওই নারী মামুনুল হককে সাগর তীরে বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার প্রতিশ্রুতির কথাও মনে করিয়ে দেন। জবাবে মামুনুল ঝামেলা শেষ হলে সেই ইচ্ছা পূরণ করবেন বলে ওই নারীকে আশ্বস্ত করেন।

সংশ্লিষ্টরা জানান, মামুনুল ওই নারীকে যে স্ত্রী হিসেবে দাবি করেছিলেন সেই দাবি পণ্ড হয়ে যায় মামুনুল হকের বোন ও তার প্রথম স্ত্রীর অডিও ফাঁসের মাধ্যমে। ওই অডিওতে মামুনুল হকের বড় বোন মামুনুল হকের স্ত্রীকে বিষয়টি নিয়ে বোঝানোর চেষ্টা করেন। একপর্যায়ে শিখিয়ে দেন কেউ ফোন করলে কি বলতে হবে। মামুনুল হকের বোনকে বলতে শোনা যায়, ‘তুমি বলবা আমার শাশুড়ি বেঁচে থাকতেই এই বিয়ে হয়েছে। আমার এতে সম্মতি ছিল। আমরা পরিবারের লোকজন সবাই তোমার সঙ্গে আছি। ঝামেলা একটু শেষ হোক।’


আরও সংবাদ