শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৮:২১ অপরাহ্ন
শীর্ষ সংবাদ
মসজিদের দানের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে মামুনুল অনুসারী হেফাজতের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, নিহত ১ হেফাজতভক্ত সাম্প্রদায়িক অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করছে ছাত্রলীগ : পাওয়া মাত্রই বহিষ্কার মুজিবনগর দিবসের সুবর্ণজয়ন্তীতে ‘সোনার বাংলার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে’ প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ়প্রতিজ্ঞা বিএনপি কেন পালন করে না মুজিবনগর দিবস? মামুনুল কাণ্ডে টালমাটাল হেফাজত যেকোনো মুহূর্তে গ্রেফতার মামুনুল কিংবদন্তী কবরীর জীবনাবসান চট্টগ্রামের ৩০০ পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রীর উপহার শিবিরের স্টাইলে কৃষক লীগ নেতার পায়ের রগ কেটে দিল ‘হেফাজত’ করোনা রোগীদের শয্যা প্রাপ্তিতে ছাত্রলীগের মানবিক টিম

উগ্রবাদী, সন্ত্রাসীরা আলেম নামের কলঙ্ক : মুফতি অসিউর রহমান

ইবার্তা ডেস্ক
আপডেট : মঙ্গলবার, ৬ এপ্রিল, ২০২১

জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ অসিউর রহমান আলকাদেরি বলেছেন, যারা উগ্রবাদী যারা দেশে অরাজকতা সৃষ্টি করে ভাংচুর করে, জনগণের ও রাষ্ট্রের সম্পদ নষ্ট করে, নিরীহ জনগণের ওপর অবিচার করে, চলাফেরার মধ্যে আঘাত করে এটা ইসলামের দৃষ্টিতে জুলুম, অত্যাচার, অবিচার ও সন্ত্রাস। যারা ইসলাম ধর্মকে ব্যবহার করে দেশের সম্পদ নষ্ট করে, জনগণের সম্পদ নষ্ট করে, থানায় আক্রমণ করে, জ্বালাও পোড়াও করে এর সঙ্গে ইসলামের কোনো সম্পর্ক নেই। এটা সম্পূর্ণ জঙ্গিবাদী তৎপরতা।

 

সোমবার (৫ এপ্রিল) সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের জঙ্গিবাদবিরোধী আলেম-ওলামা-শিক্ষার্থী কনফারেন্সে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, মহানবী (স.) ইসলামের শান্তির বাণী প্রচার করেছেন। হাদিসের মর্ম অনুযায়ী, জেনে শুনে যে জালেমকে সহযোগিতা করবে, পথ চলবে, উৎসাহিত করবে সে ইসলাম থেকে বের হয়ে যাবে। সে আলেম হলে তা হবে নামধারী, মূলত সে জালেম। কোনো আলেম যদি জালেমকে মদদ করে, জালেমের মতো মন্দ আচরণ করে, মানুষের ওপর জুলুম করে, জনগণকে হয়রান করে, রাষ্ট্র-জনগণের সম্পদ ধ্বংস করে যে যত বড় শিক্ষিত হোক না কেন, যত বড় সনদধারী হোক না কেন সে প্রকৃত অর্থে আলেম হতে পারে না। যারা দেশে অরাজকতা, অশান্তি সৃষ্টি করে, ভাংচুর করে, গাড়িতে আগুন জ্বালায়, লাঠি নিয়ে বের হয়ে জনগণের ওপর অবিচার চালায় তারা আলেম হওয়া দূরের কথা তাদের কাছে ইমান আছে কিনা সন্দেহ। জালেম, উগ্রবাদীরা ইসলাম থেকে খারিজ হয়ে যায়। কাকে আমরা আলেম বলব তা চিন্তা করতে হবে। উগ্রবাদী, সন্ত্রাসীরা আলেম নামের কলঙ্ক। তাদের কারণে গোটা বিশ্বের মুসলমানের অপমান হচ্ছে। একজনের পাপের কারণে বিশ্বের মুসলিমরা হয়রানির শিকার হচ্ছেন।

 

গণতান্ত্রিক বাংলাদেশে সবাই নিজের বক্তব্য পেশ করতে পারবে শান্তি, সাম্য, শালীনতার মাধ্যমে। দেশে অরাজকতা করে নিজের মতামত প্রতিষ্ঠার অপচেষ্টা চালানো অবিচার। ধর্মকে নিজের স্বার্থ প্রতিষ্ঠার জন্য ব্যবহার ইসলামের দৃষ্টিতে প্রতারণা, ধোঁকাবাজি ও মুনাফেকী। এদের ব্যাপারে সজাগ থাকতে হবে। ইসলাম শান্তি, মানবতার ধর্ম।

সুচিন্তা ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম বিভাগের সমন্বয়ক অ্যাডভোকেট জিনাত সোহানা চৌধুরীর সঞ্চালনায়  চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের প্রধান পরীক্ষক ছৈয়দ মোহাম্মদ আব্দুল মান্নান, মিশরের আল আজহার বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিপি সৈয়দ মুহাম্মদ হাসান আল আজহারি, মুফতি মাওলানা মোহাম্মদ এহসানুল হক জেহাদী আল মুজাদ্দেদী ও জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া কামিল মাদ্রাসার প্রভাষক (আরবি) আল্লামা তারেকুল ইসলাম আলকাদেরি।


আরও সংবাদ