শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৮:৫৭ অপরাহ্ন
শীর্ষ সংবাদ
মসজিদের দানের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে মামুনুল অনুসারী হেফাজতের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, নিহত ১ হেফাজতভক্ত সাম্প্রদায়িক অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করছে ছাত্রলীগ : পাওয়া মাত্রই বহিষ্কার মুজিবনগর দিবসের সুবর্ণজয়ন্তীতে ‘সোনার বাংলার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে’ প্রধানমন্ত্রীর দৃঢ়প্রতিজ্ঞা বিএনপি কেন পালন করে না মুজিবনগর দিবস? মামুনুল কাণ্ডে টালমাটাল হেফাজত যেকোনো মুহূর্তে গ্রেফতার মামুনুল কিংবদন্তী কবরীর জীবনাবসান চট্টগ্রামের ৩০০ পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রীর উপহার শিবিরের স্টাইলে কৃষক লীগ নেতার পায়ের রগ কেটে দিল ‘হেফাজত’ করোনা রোগীদের শয্যা প্রাপ্তিতে ছাত্রলীগের মানবিক টিম

মাইকিং হলো ‘আপনার সন্তান যেনো জামায়াত-হেফাজতের ফাঁদে না পড়ে’

সুভাষ হিকমত
আপডেট : শুক্রবার, ৯ এপ্রিল, ২০২১

শোডাউনে মাইকিং করছেন সংসদ সদস্য আলহাজ জাফর আলম। কক্সবাজারের চকরিয়া ও পেকুয়ায় স্বাধীনতাবিরোধী ও মৌলবাদী চক্রকে আর মাঠে নামতে না দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন কক্সবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম। এরই অংশ হিসেবে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা এবং একাধিক পথসভা করেন তিনি।

শোভাযাত্রায় মাইকিং করে চকরিয়া ও পেকুয়াবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে এমপি বলেন, ‘কোন পরিবারের স্কুল, কলেজ বা মাদরাসায় পড়ুয়া সন্তান যেনো ইসলামের লেবাসধারী বিএনপি-জামায়াত বা হেফাজতসহ মৌলবাদী চক্রের ফাঁদে পা না দেয়। কোন সন্তান যাতে ইসলাম রক্ষার নামে কোনো ধরণের ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ডে জড়িত হতে না পারে।’

 

বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টার দিকে চকরিয়া পৌরশহরের ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ কর্নার’-এর সামনে থেকে শোভাযাত্রাটি বের হয়। এ সময় আওয়ামী লীগসহ এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

 

কক্সবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ জাফর আলম বলেন, ‘আমার নির্বাচনী এলাকা চকরিয়া, পেকুয়া ও মাতামুহুরী উপজেলায় স্বাধীনতাবিরোধী বিএনপি, জামায়াত ও হেফাজতচক্রের কোনো স্থান নেই। জনগণের জানমাল, সরকারি সম্পদ, মানুষের বাড়িঘরে আগুন-সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালানোর কোনো অপচেষ্টা করলে তা কঠোরভাবে দমন করা হবে। আমরা সেভাবেই প্রস্তুতি নিয়ে মাঠে নেমেছি। এরপরও কোনো অপশক্তি মাথাচাড়া দেওয়ার চেষ্টা করলে তার পরিণতি হবে অতীতের চেয়ে ভয়াবহ।’
তিনি জানান, স্বাস্থবিধি মেনে মোটরসাইকেল শোভাযাত্রা এবং একাধিক পথসভা করা হয়েছে। চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের ৩৯ কিলোমিটার সড়কে এ প্রচারণা চালানো হয়। দুই উপজেলার ২৫টি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সম্পাদককে সবার বাড়ি বাড়ি এ বার্তা পৌঁছে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।


আরও সংবাদ