মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১, ০৬:০৯ অপরাহ্ন
শীর্ষ সংবাদ
৫০০ গৃহকর্মী ও ৮১ তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ পেলেন প্রধানমন্ত্রীর উপহার ৭ মে – শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন : গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার দিবস যে যেখানে আছে সেখানেই ঈদ : ‘নবসৃষ্ট অবকাঠামো ও জলযান’ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী জাহাঙ্গীরনগরের দেয়ালগুলো যেভাবে রঙিন হলো সংসদ ভবনে হামলার পরিকল্পনায় গ্রেফতার ২ : নেপথ্যে হেফাজত অনিয়মের বিরুদ্ধে সাবধান করলেন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার আল্টিমেটামের পরেই হেফাজতের তাণ্ডব সারদেশে প্রধানমন্ত্রীর উপহার পেলেন শ্রমিক, ইমাম, ভ্যানচলক : আশ্রয়হীদের জন্য সরকারি ঘর উগ্রতার দায়ে স্থায়ীভাবে বন্ধ করে দেওয়া হল কঙ্গনার টুইটার অ্যাকাউন্ট বিচ্ছেদের আগেই সম্পত্তি ভাগাভাগির চুক্তি !

যড়যন্ত্রের নীলনকশা : সে যুগের বাসন্তী, এ যুগের মারুফ

নিশাত বিজয়
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল, ২০২১

বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের বৈধতা দেওয়ার আগে খুনি চক্র মাস্টারপ্ল্যান নিয়ে নেমেছিল। তাদের মাস্টারপ্ল্যানে মঞ্চস্ত হয় বাসন্তী নামক এক নাটক যেখানে একটি হতদরিদ্র পরিবারের বাক ও বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী বাসন্তীকে নগদ পঞ্চাশ টাকার বিনিময়ে রাজি করানো হয় একটি ফটোসেশনে। দরিদ্র বাসন্তী চকচকে পঞ্চাশ টাকার নোটটি পাবে, যদি একটি ছেঁড়া জাল সে পরিধান করে মাত্র কয়েক মিনিটের জন্য।

সেটাই যেন ফিরে এলো এই তথ্যপ্রযুক্তির যুগে ২০২১ সালে। পুরান ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত এলাকা থেকে এক সাংবাদিকের লাইভের মাঝে এক পথশিশু লকডাউন নিয়ে প্রশ্ন তোলার ভিডিও এবং পরে ওই শিশুর চোখে জখমের একটি ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। বিএনপি-জামাত ও এক শ্রেণীর বামেরা বলার চেষ্টা করছে লকডাউন নিয়ে সরকারি অবস্থানের বিরোধিতা করার কারণেই তাকে ছাত্রলীগ কর্মীরা মারধর করেছে।

লকডাউন নিয়ে প্রশ্ন তোলা শিশুর চোখে জখম কেন

লাইভের মাঝখানে ঢুকে পড়া মারুফ (বাঁয়ে) এবং তার জখম চোখের ভাইরাল ছবি

 

তার কথা বলা প্রায় শেষের দিকে ক্যামেরার ফ্রেমে ঢুকে পড়ে এক পথশিশু। শিশুটি বলে ওঠে, ‘এই যে লকডাউন দিছে, মানুষ খাবে কী? সামনে ঈদ। এই যে মাননীয় মন্ত্রী একটা লকডাউন দিছে, এটা ভুয়া। থ্যাঙ্কু।’

তারপর রুহুল আমিন নামের এক ফেসবুক ব্যবহারকারী একটি সেলফি দেয় শিশুটিকে নিয়ে, সেখান থেকে শিশুটির ছবি কেটে ছড়িয়ে দেয়া হয় ফেসবুকে। মূল পোস্টদাতা কোনো কারণ না জানালেও বিভিন্ন পোস্টে দাবি করা হয়, শিশুটি সরকারের নির্যাতনের শিকার।

 

আমার ছাত্রলীগের সহযোদ্ধা হামজা রহমান অন্তর আজ বিকালে ঘটনাস্থলে গেলে এলাকাবাসীরা জানায়, তারা শিশুটিকে নেশাগ্রস্ত হিসেবে চিনে আর কেউ খাবার দিলে খায়, আবার অনেক সময় চেয়ে নিয়ে খায়। মা-বাবার বিষয়ে কোনো খোঁজ নেই শিশু মারুফের। পুরান ঢাকার বাহাদুর শাহ পার্ক এলাকায় সে ফুটপাতে থাকে। অথচ এই নেশাগ্রস্ত বালককে দিয়েই স্বাধীনতাবিরোধী ও বিপ্লবের নেশায় বুঁদ একদল উন্মাদ পাচ্ছে সরকার পতনের যড়যন্ত্র। মারুফ যেন তাদের কাছে আরেক বাসন্তী।

হামজা রহমান অন্তর শিশুটির জন্যে খাবারও নিয়ে গিয়েছিল কিন্তু শিশুটি সে খাবারের সাথে তাকে যখন জড়িয়ে ধরে তখন তার ম্যানিব্যাগ চুরি করারও চেষ্টা করেছে সেটা ভাইরাল ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে।

 

চুয়াত্তরে দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকাটির রিপোর্টার শফিকুল কবির এবং ফটোগ্রাফার আফতাব আহমেদ রংপুরের কুড়িগ্রামে।

দুর্ভিক্ষ ও বাসন্তী নাটকের মঞ্চায়ন

নিজামীর হাত থেকে পুরস্কার নিচ্ছে আফতাব আহমেদ

বিশেষ একটি নৌকায় বিশেষ একটি অঞ্চলে গিয়ে এ সেই সময়, ১৯৭৪ সালে, হতদরিদ্র বাসন্তীর কাছে পঞ্চাশটি টাকা ছিল স্বপ্নের মতো। বাসন্তী রাজি হয়েছিল। শফিকুল পঞ্চাশ টাকার নোটটি বাসন্তীর হাতে তুলে দিয়েছিলেন। স্থানীয় চেয়ারম্যান আনছার আলী বেপারীর সংগৃহীত ছেঁড়া জালটি গায়ে জড়িয়ে কলার থোড় সংগ্রহ করছে অনাহারী বাসন্তী। তার পাশে দুর্গাতি নামের ছিন্ন জাল পরা আরেকটি মেয়ে। আফতাবের ক্যামেরা সেই পূর্বপরিকল্পিত সাজানো ছবিটি ধারণ করে। তার পুরস্কার সে পেয়েছে বিএনপি-জামাত জোট সরকারের সময় রাজাকার মতিউর রহমান নিজামীর হাত দিয়ে।

 

বঙ্গবন্ধুকে মেরেছিল, এখন এদের নতুন প্রজেক্ট কি শেখ হাসিনা? এই যড়যন্ত্রকারীদের পিছনে যারা আছে তাদের খুঁজে বের করতে হবে।


আরও সংবাদ