শনিবার, ১৯ জুন ২০২১, ০১:৫৬ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ

এবার নোয়াখালীতে এক থোকায় ৩০ লাউ!

কমলিকা হাসান
আপডেট : রবিবার, ৯ মে, ২০২১

নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলায় এক কৃষকের বাড়িতে এক থোকায় ৩০টি লাউ ধরেছে। এ নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। আশপাশের এলাকা থেকে ওই বাড়িতে ছুটে যাচ্ছে শত শত উৎসুক জনতা। ওই লাউ গাছের মালিক চাটখিল উপজেলার সাহাপুর ইউনিয়নের পুরষোত্তমপুরে জাহাঙ্গীর আলম-রেহানা বেগম দম্পতি।
শনিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, গাছের বোঁটায় আমের মতো ঝুলে আছে লাউগুলো। একেকটি লাউয়ের ওজন হবে ২০০ গ্রামের মতো। লাউগুলো এখনো পরিপক্ক হয়নি। নতুন করে আরও কিছু ফুল আসছে ওই গাছে।
 
জাহাঙ্গীর আলম বলেন, স্থানীয় সোমপাড়া বাজার থেকে লাউয়ের চারা কিনে গাছটি নিজ হাতে লাগিয়ে ছিলাম। শুরুতে স্বাভাবিকভাবেই লাউ ধরেছে। সেগুলো থেকে তিনটি লাউ খেয়েছি। দুটি বীজের জন্য রেখেছি।
তিনি বলেন, ১০-১২ দিন আগে হঠাৎ করে দেখি একটি বোঁটায় অনেকগুলো লাউ। গত কয়েকদিনে এগুলো বড় হয়েছে। ওই বোঁটায় ৩০টি লাউ ধরেছে। সেগুলোর মধ্যে বেশ কিছু বড়ও হচ্ছে।
লাউগাছ দেখতে আসা সোমপাড়া বাজারের ব্যবসায়ী রিয়াদ হোসেন বলেন, আমাদের বাজারের অনেকেই লাউগুলো দেখতে এসেছেন। এ নিয়ে বাজারে আলোচনা হয় প্রতিদিন। তাই আমিও দেখতে এসেছি। দেখে অবাক হলাম। এক বোঁটায় ৩০টি লাউ।
চাটখিল উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম বলেন, চাটখিল উপজেলার পুরুষোত্তমপুর গ্রামের একজন কৃষকের লাউগাছের এক বোঁটায় ৩০টি লাউ ধরার কথা শুনেছি। এটি এক ধরনের অস্বাভাবিক ফলন। সাধারণত এমনটা হয় না।  অস্বাভাবিক হরমোনের কারণে এমনটি হয়েছে। কোনো কারণে যদি কোনো গাছে অতিরিক্ত ফ্লোরিজেন হরমোন উৎপাদন হয়; সেক্ষেত্রে গাছের কাণ্ড থেকে একাধিক ফুল এসে বেশি পরিমাণ লাউ আসতে পারে।
 
এরা আগে কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীতে কৃষক শামসুল হক ও জয়নব বেগম দম্পত্তির বাড়ির পিছনের মাচায় লাগানো একটি লাউগাছের এক একটি গিঁট (গাছের শাখার সংযোগস্থল) থেকে ৪০টি লাউ ধরেছিলো। এটিকেও হরমোনের সমস্যার (হরমোনাল ডিজঅর্ডার) ফলাফল বলে জানিয়েছিলেন ভূরুঙ্গামারী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান।


এ বিভাগের আরও সংবাদ