শনিবার, ১৯ জুন ২০২১, ০৩:৩৭ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ

‘ভার্সিটির মাল’ খ্যাত আমির হামজা গ্রেপ্তার

সুভাষ হিকমত
আপডেট : মঙ্গলবার, ২৫ মে, ২০২১

নিজেকে ‘ভার্সিটির মাল’ বলে পরিচয় দিয়ে ওয়াজ করা ধর্মীয় বক্তা আমির হামজাকে কুষ্টিয়ায় তার বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পুলিশের জঙ্গিবিরোধী একটি ইউনিটের কর্মকর্তা বলেছেন তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

২৪ মে বিকেল চারটার দিকে কুষ্টিয়ার সদরের ডাবিরাভিটা গ্রামে নিজ বাড়ি থেকে হামজাকে নিয়ে যাওয়া হয় বলে জানিয়েছেন আমির হামজার দাদা জান মোহাম্মদ।

তিনি জানান, হামজা গত রাতে বাড়ি এসেছিলেন। কালো রঙের একটি মাইক্রোবাসে করে এসে পাঞ্জাবি পরা পাঁচ থেকে ছয় জন এসে তাকে ধরে নিয়ে যান।

তার দাবি, যারা এসেছিলেন, তাদের পোশাকে ডিবি লেখা ছিল, কোমরে ছিল পিস্তল।

তিনি বলেন, ‘নিয়ে যাওয়ার পর আমরা বিভিন্ন জায়গায় যোগাযোগ করছি কিন্তু তাকে কোথায় নেয়া হয়েছে কেউ বলতে পারছে না।’

স্থানীয় যুবক মো. রাকিব জানিয়েছেন, ‘ব্রিজের ওপর মাইক্রোবাসটি এসে থামে। এরপর একজন অপরিচিত লোক বাড়ি দেখিয়ে দেন। পরে দেখলাম আমির হামজাকে ধরে নিয়ে গেল।’

 

তবে কুষ্টিয়া গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আমিনুল বলেন, ‘ডিবি পুলিশ আমির হামজাকে আটক করেনি। বিষয়টি আমাদের জানা নেই।’

পুলিশের জঙ্গিবিরোধী বিশেষ শাখা কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম-সিটিটিসির এক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা তাকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পরে সিটিটিসি প্রধান মো. আসাদুজ্জামান জানান, ওয়াজে উসকানিমূলক বক্তব্য দেয়ার অভিযোগে সাম্প্রতিক একটি মামলায় আমির হামজাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মামলার বিস্তারিত প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে জানানো হবে।’

আমির হামজা কুষ্টিয়া সদর উপজেলার পাটিকাবাড়ী ইউনিয়নের রিয়াজ সর্দারের ছেলে।

কয়েকদিন ধরে বিভিন্ন মাধ্যমে তিনি পালিয়ে আছেন বলে প্রচার হচ্ছিল।’

এর আগে ওয়াজের মাধ্যমে ধর্মের অপব্যাখ্যা ও দেশজুড়ে উগ্রবাদ ছড়ানোর অভিযোগে আলোচিত ইসলামী বক্তা মুফতি আমির হামজাকে খুঁজছে পুলিশ এমন খবর প্রকাশ হয়। পুলিশের দাবি, আমির হামজা ওয়াজ-মাহফিলে ইসলামের নামে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়িয়েছেন। ইউটিউবে অবমুক্ত তার বেশ কিছু বক্তব্য উগ্রবাদ ছড়াচ্ছে। যা শুনে কিশোর-তরুণরা জঙ্গিবাদে আকৃষ্ট হচ্ছে।

কুষ্টিয়ার আঞ্চলিক ভাষায় ওয়াজকারী আমির হামজার জন্ম ১৯৯১ সালে। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় কুষ্টিয়া থেকে আল-কোরআনের ওপর অনার্স ও মাস্টার্স করেছেন তিনি।

আমির হামজা যখন ওয়াজ শুরু করেন, তখন তিনি নিজেকে পরিচয় দিতেন, ‘আমি ভার্সিটির মাল’।

তবে ওয়াজিয়দের একাংশ আবার এ নিয়ে তাকে আক্রমণ করার পর তিনি আর সে পরিচয় দেননি।

 

করোনার সঙ্গে পবিত্র কোরআনকে জড়িয়ে সমালোচিত

গত বছর দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়ার পর আমির হামজা ক্রমাগতভাবে মাস্ক না পরতে উৎসাহ দিয়ে আসছিলেন। বলেছেন, করোনা এসেছে ইসলামে অবিশ্বাসীদের শায়েস্তা করতে।

তিনি এমনও বলেন, পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়লে কারও করোনা হবে না।

সামাজিক মাধ্যমে ছড়ানো ভিডিওতে দেখা যায় আমির হামজা বলেন, ‘আমি কসম দিচ্ছি আপনার কাছে করোনা আসবে না। যদি আসে আমার কাছ থেকে বুঝে নিয়েন যান। যদি আসে তাহলে কোরআন শরিফ মিথ্যা হয়ে যাবে। আল্লাহ কি তার কোরআনকে মিথ্যা প্রমাণ করবেন?’


এ বিভাগের আরও সংবাদ