শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ০৪:৫২ অপরাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ
মডেল মসজিদ ও শেখ হাসিনার দূরদর্শিতা সারা বছর শিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখতে হবে ‘শিক্ষা চ্যানেল’ দেশেই হবে ভ্যাকসিন উৎপাদন : প্রধানমন্ত্রী তামাক, ধূমপান, জর্দা ও গুল প্রাণঘাতী নেশা : প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে নবীন -প্রবীণদের কাছে ভিডিও শুভেচ্ছা বার্তা আহবান হেফাজত নেতার আড়ালে ‘আনসার আল ইসলাম’ জঙ্গি : চট্টগ্রামে গ্রেপ্তার টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) বাস্তবায়নে শীর্ষ তিনে বাংলাদেশ কমপক্ষে তিনটি করে গাছ লাগান : প্রধানমন্ত্রী মামলা-মোকদ্দমার প্রাথমিক জ্ঞান ও ভোগান্তি এড়াতে করণীয় পরীমণিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা মামলায় নাসিরসহ ৩ জন গ্রেফতার

স্ত্রীর পরিকল্পনায় তার স্বামীকে খুন করেন হেফাজত নেতা

সুভাষ হিকমত
আপডেট : বুধবার, ২৬ মে, ২০২১

রাজধানীর দক্ষিণখানে মসজিদের সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে নিখোঁজ যুবকের ছয় টুকরা মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী ছিলেন নিহত আজহারের স্ত্রী আসমা আক্তার (২২)। তার পরিকল্পনায় ও নির্দেশনায় স্বামী আজহারকে কুপিয়ে হত্যা করেন দক্ষিণখানের সরদার বাড়ি জামে মসজিদের ইমাম ও হেফাজত নেতা মাওলানা আব্দুর রহমান। মসজিদের এই ইমামের সঙ্গে পরকীয়ার সম্পর্কের জেরেই এ হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে বলে দাবি করছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

বুধবার (২৬ মে) জাগো নিউজকে এসব তথ্য জানান র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

 

তিনি বলেন, ‘নিহত আজহারের স্ত্রী আসমাকে রাজধানীর আব্দুল্লাহপুর থেকে মঙ্গলবার রাতে আমরা গ্রেফতার করেছি। গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে চাঞ্চল্যকর তথ্য পেয়েছি। আজহারের স্ত্রী এ হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী। মসজিদের ইমাম ও হেফাজত নেতা আব্দুর রহমানের সঙ্গে আসমার প্রেমের সম্পর্ক হয়। আজহারকে সরিয়ে দেয়ার জন্য মসজিদের ইমাম ও হেফাজত নেতাকে ভাড়াটে কাউকে দিয়ে হত্যা করার জন্য বলেন আসমা। কিন্তু তিনি ভাড়াটে কাউকে দিয়ে হত্যা না করিয়ে নিজেই হত্যা করেন।’

তিনি বলেন, ‘গ্রেফতার দক্ষিণখানের সরদার বাড়ি জামে মসজিদের ইমাম ও হেফাজত নেতা মাওলানা আব্দুর রহমানের সঙ্গে নিহত আজহারের পারিবারিক সম্পর্কের মতো ছিল। আজহার-আসমা দম্পতির চার বছরের শিশুসন্তানকে আরবি পড়াতেন ইমাম আব্দুর রহমান। নিহত আজহারকেও আরবি পড়াতেন তিনি। সেই সুবাদে পাঁচ-ছয় মাস ধরে তাদের বাসায় আসা যাওয়া ছিল ইমামের। বাসায় আসা-যাওয়ার এক পর্যায়ে আজহারের স্ত্রী আসমার সঙ্গে মসজিদের ইমামের অবৈধ সম্পর্ক তৈরি হয়। অবৈধ সম্পর্ক বাস্তবায়নের উদ্দেশ্যে আসমা আক্তারই আজহারকে হত্যা করার পরিকল্পনা করে।’

জানা যায়, আগে থেকে পরিচয় থাকার সুবাদে গত ১৯ মে রাতে আজহারকে মসজিদে ডেকে নেন ইমাম রহিম। সেখানেই ছুরি দিয়ে হত্যা করা হয় আজহারকে। এরপর ইমাম আব্দুর রহমানের শয়নকক্ষে আজহারের মরদেহ ছয় খণ্ড করে সেপটিক ট্যাঙ্কে লুকিয়ে রাখা হয়।

এর আগে মঙ্গলবার (২৫ মে) সন্ধ্যায় রাজধানীর আব্দুল্লাহপুর এলাকা থেকে নিহতের স্ত্রী আসমা আক্তারকে গ্রেফতার করে র‍্যাব-১।

মঙ্গলবার বিকেলে কারওয়ান বাজার র‍্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে চাঞ্চল্যকর এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনার বর্ণনা দেন র‍্যাব-১ এর অধিনায়ক (সিও) লেফটেন্যান্ট কর্নেল আব্দুল মুত্তাকিম।

তিনি বলেন, রাজধানীর দক্ষিণখানের বাসিন্দা আজহারের স্ত্রীর প্রতি কুনজর ছিল দক্ষিণখানের সরদার বাড়ি জামে মসজিদের ইমাম ও হেফাজত নেতা মাওলানা আব্দুর রহমানের। বিষয়টি জানার পর ইমামকে নিষেধ করতে মসজিদে গিয়েছিলেন তিনি। সেখানে যাওয়ার পর বাগবিতণ্ডার একপর্যায়ে ধারালো ছুরি দিয়ে আজহারের গলায় আঘাত করেন ইমাম।

মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর আজহারের মরদেহ ছয় টুকরো করা হয়। এরপর মসজিদের সেপটিক ট্যাঙ্কে মরদেহের টুকরাগুলো লুকিয়ে রাখেন ইমাম। ইমাম পুরো কাজটি করেন দক্ষিণখানের সরদার বাড়ি জামে মসজিদে তার শয়নকক্ষে।

ট্যাঙ্ক থেকে দুর্গন্ধ ছড়ালে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে আজহারের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে মাওলানা মো. ইমাম আব্দুর রহমানকে (৫৪) গ্রেফতার করে র‍্যাব।

কী নিয়ে বাগবিতণ্ডা হয়েছিল জানতে চাইলে র‍্যাব-১ এর অধিনায়ক আব্দুল মোত্তাকিম বলেন, ইমাম রহমান বলেছেন- আজহার অভিযোগ করেছিলেন তার স্ত্রীর দিকে ইমামের কুনজর রয়েছে। কিন্তু আজহারের স্ত্রীর সঙ্গে কোনো সম্পর্ক থাকার কথা অস্বীকার করেছেন ইমাম।

 

এর আগে র‍্যাব জানিয়েছিল, হত্যাকাণ্ডে নিহতের স্ত্রী জড়িত কি-না তা জানতে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ঘটনার একদিন আগে স্ত্রী আসমা তার গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলে চলে যান। তিনি ঘটনার আগের দিন থেকে টাঙ্গাইলেই ছিলেন কি-না এবং হত্যায় তার সম্পৃক্ততা সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

সোমবার (২৪ মে) মসজিদের সিঁড়িতে রক্তের দাগ ও সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে দুর্গন্ধ বের হচ্ছিল। এছাড়া আজহার ১৯ মে থেকে নিখোঁজ ছিলেন। এমন ঘটনায় অনুসন্ধান শুরু করে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। পরে র‍্যাব ইমামকে আটক করে এবং জিজ্ঞাসাবাদে হত্যার ঘটনা জানতে পারে। এ সময় অভিযুক্তের কাছ থেকে হত্যায় ব্যবহৃত তিনটি চাকু ও মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।

র‍্যাব জানায়, মাওলানা মো. আব্দুর রহমান সরদার বাড়ি জামে মসজিদে ৩৩ বছর ইমামতি করে আসছিলেন। নিহত আজহারের ছেলে আরিয়ান মসজিদটির মক্তবে পড়াশোনা করত। নিহত আজহারও তার কাছে কুরআন শিক্ষা গ্রহণ করতেন। এই সুবাদে তাদের মধ্যে পারিবারিক সম্পর্ক ছিল।

গত ১৯ মে মাওলানা আব্দুর রহমানের সঙ্গে আজহারের কথাকাটাকাটি হয়। কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয়ে আজহারের গলার ডান পাশে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করেন আব্দুর রহমান। পরে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ধামাচাপা দিতে তিনি মরদেহ টুকরো টুকরো করে সরদার বাড়ি জামে মসজিদের সেপটিক ট্যাঙ্কে লুকিয়ে রাখেন। এরপর ইমাম আব্দুর রহমান মসজিদে নিজের রুমেই অবস্থান করছিলেন।

পরকীয়ার কোনো ঘটনা ছিল কি-না জানতে চাইলে লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোত্তাকিম বলেন, ‘এ ঘটনায় পরকীয়ার কোনো ঘটনা ঘটেছে কি-না তা আমরা যাচাই-বাছাই করছি। এখনই কিছু বলতে পারছি না। ইমাম আব্দুর রহমান বলেছেন, আজহার তাকে ভয়ভীতি দেখিয়েছে এবং বলেছে তার স্ত্রীর দিকে আমি (আব্দুর রহমান) কুদৃষ্টি দিয়েছি। এ কারণে তার সঙ্গে বাগবিতণ্ডা হয়। এরপরই রাগান্বিত হয়ে হত্যার ঘটনা ঘটে।’

নিহতের স্ত্রী র‍্যাব হেফাজতে কি-না এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আমরা কিছু সময় আগে তার স্ত্রী আসমা বেগমকে আমাদের হেফাজতে নিয়েছি। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। বিস্তারিত তথ্য পরে জানানো সম্ভব হবে।’

ধারালো অস্ত্রগুলো কীভাবে এলো জানতে চাইলে লেফটেন্যান্ট কর্নেল আব্দুল মুত্তাকিম বলেন, ‘তিনি (ইমাম) দীর্ঘদিন ধরে ওই মসজিদে চাকরি করতেন। কোরবানির সময় পশু জবাই করার জন্য তিনি এগুলো রাখতেন। সেই অস্ত্র দিয়েই এ হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে।’


এ বিভাগের আরও সংবাদ