শনিবার, ১৯ জুন ২০২১, ০২:৩০ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ সংবাদ

ফেসবুক অ্যাকাউন্ট নিরাপদ রাখতে পুলিশের ৯ নির্দেশনা

কমলিকা হাসান
আপডেট : শনিবার, ২৯ মে, ২০২১

ফেসবুকের নিরাপত্তাবিষয়ক নিয়ম-কানুন ভালোভাবে না জানার ফলে অনেকের আইডি হ্যাক হয়ে যায়। এতে করে অনেকেই নানা হয়রানি ও বিড়ম্বনার মধ্যে পরতে হচ্ছে। এভাবে আইডি হ্যাক করে এবং ভুয়া আইডি খুলে বিভিন্ন অপকর্মে জড়াচ্ছে একটি মহল। যেটি তৈরি করছে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি। গত শুক্রবার (২৮ মে) পুলিশ সদর দফতরের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগ পরিচালিত বাংলাদেশ পুলিশের ফেসবুক পেজে এ সংক্রান্ত একটি পোস্ট দেওয়া হয়। যেখানে নিজেদের ফেসবুক আইডি নিরাপদ রাখতে ৯টি সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

১. ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খোলার সময় আপনার যে মোবাইল নম্বর বা ইমেইল অ্যাড্রেস ব্যবহার করবেন সেগুলো সবসময় সচল রাখুন। কারণ হ্যাকার আপনার অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড বা ইমেইল পরিবর্তন করলে সাথে সাথেই ফেসবুক থেকে ইমেইল পাঠিয়ে আপনাকে (অ্যাকাউন্ট হোল্ডারকে) সতর্ক করে একটি Recovery লিংক পাঠিয়ে দেয়। তাতে ক্লিক করে সহজেই হ্যাক হওয়া আইডি রিকভার করা সম্ভব।

২. ফেসবুক অ্যাকাউন্টে Two Factor Authentication অপশনটি চালু রাখুন (ফেসবুকের সেটিংস থেকে Security and login use two-factor authentication এ গিয়ে মোবাইল নম্বর কিংবা ইমেইল যুক্ত করুন)।

৩. সরল/দুর্বল পাসওয়ার্ড ব্যবহার না করে শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন। ব্যক্তিগত তথ্যের সাথে সংশ্লিষ্ট তথ্য (যেমন : জন্ম তারিখ, নিজের নাম, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নাম ইত্যাদি) পাসওয়ার্ড হিসেবে ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন।

৪. Capital letter, small letter number & symbol মিলিয়ে কমপক্ষে ১২ ক্যারেক্টারের শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন।

৫. ফেসবুকের ক্ষেত্রে Trusted Contact-এ ৩ থেকে ৫ জন ঘনিষ্ঠ ফেসবুক বন্ধুকে যুক্ত রাখুন। এর ফলে আইডি হ্যাক হয়ে গেলেও তা উদ্ধার করা সহজ হবে।

৬. ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খোলার সময় জাতীয় পরিচয়পত্রের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নাম ও জন্ম তারিখ ব্যবহার করুন। এতে আপনার আইডি হ্যাক হলে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা সহজ হবে।

৭. জন্ম তারিখ, ফোন নম্বরসহ অন্যান্য ব্যক্তিগত তথ্য উন্মুক্ত রাখবেন না। এতে বিভিন্ন রকমের হয়রানি ও প্রতারণা থেকে নিজেকে মুক্ত রাখা সহজ হবে।

৮. ফেসবুকের ক্ষেত্রে Privacy Settings অপশনটি ব্যবহারের মাধ্যমে ব্যক্তিগত তথ্য, ছবি, পোস্টের নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন। প্রয়োজনে প্রোফাইল লক করে রাখুন।

৯. স্ট্যাটাস, ছবি ইত্যাদি সতর্কতার সাথে এবং প্রাইভেসি নিশ্চিত করে শেয়ার করুন। ফেসবুকে নিজের জীবনাচরণকে যতবেশি উন্মুক্ত করবেন আপনি ততবেশি ঝুঁকিতে থাকবেন।


এ বিভাগের আরও সংবাদ