1. [email protected] : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  2. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  3. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  4. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
পদ্মা সেতুর নবযাত্রায় ফেরি যুগের অবসান - ebarta24.com
  1. [email protected] : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  2. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  3. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  4. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
পদ্মা সেতুর নবযাত্রায় ফেরি যুগের অবসান - ebarta24.com
শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০৩:০৯ অপরাহ্ন

পদ্মা সেতুর নবযাত্রায় ফেরি যুগের অবসান

বিশেষ প্রতিবেদক
  • সর্বশেষ আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৬ জুন, ২০২২

ঢাকা থেকে সড়কপথে কুয়াকাটা পর্যন্ত একটা সময়ে ১৪টি ফেরি ছিল। গত ৩০ বছর দক্ষিণাঞ্চলবাসী সীমাহীন দুর্ভোগের শিকার হয়ে এসব ফেরি পারাপার করে রাজধানীতে আসা-যাওয়া করত।

পদ্মা সেতু চালুর মধ্য দিয়ে এই পথে সেই ফেরি যুগের অবসান ঘটতে চলেছে। এর ফলে দক্ষিণাঞ্চলের মেগা প্রকল্পগুলো জাতীয় অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখার সুযোগ তৈরি হবে।

সড়ক ও জনপথ বিভাগ অফিস সূত্রে জানা গেছে, নব্বইয়ের দশকে কুয়াকাটা থেকে ঢাকা পর্যন্ত মোট ১৪টি নদীর ওপর ফেরি ছিল। এগুলোর বেশির ভাগই ছিল লক্কড়ঝক্কড় মার্কা। তার মধ্যে আবার বেশ কয়েকটি ছিল কাঠের ফেরি।

একের পর এক ফেরি পার হয়ে ঢাকা থেকে কুয়াকাটা পর্যন্ত পৌঁছতে ক্ষেত্রবিশেষে ২৪ ঘণ্টারও বেশি সময় লেগে যেত। ঘণ্টার পর ঘণ্টা ঘাটে ফেরির জন্য অপেক্ষায় থাকতে হতো।

পদ্মা সেতু চালুর মধ্য দিয়ে দক্ষিণাঞ্চল থেকে রাজধানীতে আসা-যাওয়ায় ফেরি যুগের অবসান হতে যাচ্ছে।

আগামী ২৫ জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধনের খবরে ব্যাপকভাবে উল্লসিত দক্ষিণাঞ্চলের ভুক্তভোগী হাজারো মানুষ। তারা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সেসব দিনের দুর্দশার স্মৃতি তুলে ধরে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করছেন।

পটুয়াখালীর কলাপাড়ার বাসিন্দা আহসান পাভেল বলেন, ‘গত ৩০ বছর এই রুটে ১৪টি ফেরি পাড়ি দিয়ে ঢাকায় পৌঁছতে হয়েছে। অনেক কষ্ট হতো ফেরি পারাপারে। অন্যান্য ঘাটে আগেই সেতু হয়ে গেছে, তবে বড় চ্যালেঞ্জটা ছিল পদ্মা নদী পাড়ি দেয়া। পদ্মা সেতু চালু হওয়ার মধ্য দিয়ে সেই সীমাহীন ভোগান্তির অবসান হচ্ছে।’

নুরুজ্জামান মামুন নামের একজন সাংবাদিক ফেরিঘাটের দুঃসহ যন্ত্রণার কথা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তুলে ধরেছেন। ২০২০ সালের ৭ ডিসেম্বর রাতে তার বাবার লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্স মাওয়াঘাটে আটকে ছিল প্রায় এক দিন। এর আগে ২০১৬ সালে তার নানির জানাজায় অংশ গ্রহণ করতে পারেননি এই ঘাটের জ্যামের কারণে। সেই ঘাটে এবার সেতু হচ্ছে।

তিনি লিখেছেন, ‘পদ্মার বুকে নির্মিত এটি শুধু একটি সেতুই নয়, এটি বাংলাদেশের সক্ষমতার স্মারক। কুখ্যাত মোড়লদের বিশাল ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে এক স্বপ্ন জয়ের ইতিহাস। বিশ্ব দরবারে আজ আমরা মাথা উঁচু করে বলতে পারি, আমরাও পারি। অভিনন্দন প্রধানমন্ত্রী।’

শুধু মামুন আর আহসান পাভেলই নন, এ রকম দুঃসহ স্মৃতির উল্লেখ করে দক্ষিণাঞ্চলের হাজারো মানুষ প্রায় প্রতিদিনই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পদ্মা সেতু নিয়ে আনন্দ-উচ্ছ্বাস প্রকাশ করছেন।

সওজ সূত্রে জানা গেছে, নব্বইয়ের দশকে চারটিসহ গত ১৯ বছরে ১০টি সেতু নির্মিত হয়েছে এই পথে। ২০১৫ সালের ২০ আগস্ট কলাপাড়া উপজেলায় সবশেষ শিববাড়িয়া নদীর ওপর ‘শেখ রাসেল সেতু’ উদ্বোধন করেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরের বছরের ২৫ ফেব্রুয়ারি একই উপজেলার সোনাতলা নদীর ওপর ‘শেখ জামাল সেতু’ এবং আন্ধারমানিক নদীর ওপর ‘শেখ কামাল সেতু’ একসঙ্গে উদ্বোধন করেন তিনি।

২০০৫ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে পটুয়াখালীর লাউকাঠি নদীর ওপর ‘পটুয়াখালী সেতু’, ২০২১ সালের ২৪ অক্টোবর পটুয়াখালীর পায়রা (লেবুখালী) নদীর ওপর ‘পায়রা সেতু’, ২০১১ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি বরিশালের দপদপিয়া নদীর ওপর ‘আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সেতু’, ২০০৩ সালের ৮ এপ্রিল বরিশালের দোয়ারিকা নদীর ওপর ‘এমএ জলিল সেতু’, ২০০৩ সালের ৩ এপ্রিল শিকারপুর নদীর ওপর ‘ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সেতু’, ২০১৭ সালের ৪ নভেম্বর আড়িয়াল খাঁ নদীর ওপর ‘আড়িয়াল খান সেতু’ উদ্বোধন করা হয়।

এ ছাড়া ধলেশ্বর-১ ও ধলেশ্বর-২, বুড়িগঙ্গা এবং পটুয়াখালীর মৌকরণ সেতু নব্বইয়ের দশকে নির্মিত হয়।

এক হিসাবে দেখা যায়, ২০০৩ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত ১৯ বছরে মাওয়া থেকে কুয়াকাটা পর্যন্ত ১০টি নদীর ওপর ১০টি নান্দনিক সেতু নির্মিত হয়েছে (পদ্মাসহ)।

আগামী ২৫ তারিখ পদ্মা সেতু উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে ঢাকা-কুয়াকাটা সড়ক পথে সেই ফেরি যুগের পরিসমাপ্তি ঘটতে চলেছে।

ফেরির পরিবর্তে সেতু নির্মাণের দাবিতে বছরের পর বছর আন্দোলন-সংগ্রামে অংশগ্রহণকারীরাও আজ মহাখুশি ফেরিবিহীন এই সড়কপথের কারণে। বিশেষ করে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের খবরে তারা বেশি উচ্ছ্বসিত।

‘মাওয়ায় পদ্মা সেতু চাই- পটুয়াখালীবাসী’ আন্দোলনকারী ফরহাদ জামান বলেন, ‘অনেক আন্দোলন-সংগ্রাম করেছি মাওয়ায় পদ্মা সেতু নির্মাণের দাবিতে। স্মৃতিতে সবকিছু ভাসছে। এখন পদ্মা সেতু উদ্বোধনের খবরে মনটা আনন্দে ভরে যায়।’

গত ২৫ বছর ধরে কুয়াকাটা-ঢাকা রুটে চলাচল করা পরিবহনকর্মী আলম মিয়া বলেন, ‘বাসায় ঘুমানোর সুযোগ খুব কম ছিল। বেশির ভাগ সময় ফেরিঘাটেই ঘুমিয়ে পার করতাম। যাত্রীদের সঙ্গে প্রতিদিন কথা-কাটাকাটি আর ঘণ্টার পর ঘণ্টা ফেরিঘাটে অপেক্ষা করাটা ছিল আমাদের নিয়মিত রুটিন।

‘এখন ফেরি নেই। সব সেতু হয়ে গেছে। কয়েক দিন পরই পদ্মা চালু হবে। কি যে মজা লাগতেছে ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না। একদিকে সময় কম লাগবে। ট্রিপও বেশি দিতে পারব। যাত্রীরাও নিরাপদে আসা-যাওয়া করতে পারবে।’

২০০৫ সাল পর্যন্ত পটুয়াখালীর লাউকাঠি নদীতে চলাচলরত ফেরিতে দায়িত্ব পালন করেছেন স্বপন কুমার। বর্তমানে তিনি পটুয়াখালী ও মির্জাগঞ্জ উপজেলার সংযোগস্থল পায়রা নদীতে পায়রাকুঞ্জ ফেরিতে কাজ করছেন।

তিনি জানান, ‘ভালো লাগছে এখন সব সেতু হয়ে গেছে। চোখের সামনে ফেরিতে অ্যাম্বুলেন্সে অনেক মানুষের আহাজারি দেখেছি। কিন্তু স্রোতের টানে ফেরি দ্রুত চালানো যায়নি। সে জন্য অনেক বকাও খেয়েছি। আজ সেসব নদীতে সেতু হয়েছে। ভালো লাগছে।’

সেতুর কারণে দক্ষিণাঞ্চলের মেগা প্রকল্পগুলো জাতীয় অর্থনীতিতে বড় ভূমিকা রাখা সহজতর হবে বলে মনে করেন পটুয়াখালী পৌরসভার মেয়র ও চেম্বার অফ কমার্সের সাবেক সভাপতি শিল্পপতি মহিউদ্দিন আহমেদ।

তিনি বলেন, ‘পদ্মা সেতু বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটাবে এ অঞ্চলের অর্থনীতিতে। মানুষজন ঢাকা থেকে সকালে রওনা হয়ে কাজ শেষে আবার সন্ধ্যায় ঢাকায় পৌঁছতে পারবে। বড় বড় শিল্পোদ্যোক্তারা এই এলাকায় আসবেন শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ার জন্য।

‘পটুয়াখালীতে রয়েছে অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি সাগরকন্যা খ্যাত কুয়াকাটা পর্যটন কেন্দ্র। এর আশপাশেই গড়ে উঠেছে সরকারের একাধিক মেগা প্রকল্প। পায়রা সমুদ্রবন্দর, পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র, জাহাজ তৈরির কারখানা, পটুয়াখালী শহরের পাশেই ইপিজেড, ঢাকা-কুয়াকাটা রেললাইনসহ আরো বড় বড় প্রকল্প চলমান।’

মহিউদ্দিন আরও বলেন, ‘আমরা পটুয়াখালী শহরকেও ঢেলে সাজাচ্ছি। মেগা প্রকল্পগুলোর দাপ্তরিক কাজকর্ম সারতে সবাই যেন পটুয়াখালী শহরকে বেছে নেয় আমরা সেই লক্ষ্য নিয়ে গোটা শহরকে সাজানোর চেষ্টা করছি। পদ্মা সেতু চালুর পর গোটা দক্ষিণাঞ্চলের জন্য পটুয়াখালী শহরকে ব্যাবসায়িক দিক থেকে একটি হটস্পটে পরিণত করাই এখন আমাদের প্রধান লক্ষ্য।’

পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী আলমগীর হোসেন বলেন, ‘পদ্মা সেতু আত্মবিশ্বাস আর নির্ভরতার প্রতীক। এই সেতুর সুফল পটুয়াখালীবাসী সবচেয়ে বেশি ভোগ করবে। এখানকার অর্থনীতি চাঙ্গা হবে। এখানকার কৃষি, মৎস্য, পর্যটন ব্যবসা এই সেতুর কারণে জাতীয় অর্থনীতিতে বিরাট ভূমিকা রাখার সুযোগ পাবে।

‘কৃষিজ ফসল ঢাকাসহ সারা দেশে পৌঁছানোর জন্য আগে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ফেরিঘাটে অপেক্ষা করতে হতো। ফলে পচেগলে নষ্ট হতো অনেক ফল। ব্যবসায়ীরা লোকসানে পড়ত। কৃষক ও ব্যবসায়ীদের আর সেই ভোগান্তিতে পড়তে হবে না। ইলিশসহ সামুদ্রিক মাছ রপ্তানিও অনেক সহজ হবে।’

‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত এক যুগে এই অঞ্চলের মানুষকে চাওয়ার চেয়েও অনেক বেশি দিয়েছেন। তার প্রতি আমরা চিরকৃতজ্ঞ।’

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ
ebarta24.com © All rights reserved. 2021