1. অন্যরকম
  2. অপরাধ বার্তা
  3. অভিমত
  4. আন্তর্জাতিক সংবাদ
  5. ইতিহাস
  6. এডিটরস' পিক
  7. খেলাধুলা
  8. জাতীয় সংবাদ
  9. টেকসই উন্নয়ন
  10. তথ্য প্রযুক্তি
  11. নির্বাচন বার্তা
  12. প্রতিবেদন
  13. প্রবাস বার্তা
  14. ফিচার
  15. বাণিজ্য ও অর্থনীতি

হাঁস-মুরগি ও গরু-ছাগলের হিট স্ট্রোক কমাতে সিমেন্ট শিট

ডেস্ক রিপোর্ট : ইবার্তা টুয়েন্টিফোর ডটকম
বুধবার, ১০ জুলাই, ২০২৪

দেশের প্রাণিসম্পদ খাত, বিশেষ করে হাঁস-মুরগি ও গবাদি পশু উচ্চ তাপমাত্রার ঝুঁকিতে রয়েছে, যা এ খাতের জন্য দুশ্চিন্তার কারণ। এই দুশ্চিন্তা কমাতে সিমেন্ট শিট বড় ভূমিকা রাখতে পারে। শিটগুলো ৬ স্তরের হওয়ায় অতিরিক্ত গরমের সময় শেডের ভেতরের তাপমাত্রা ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত নিয়ন্ত্রণ করে, এতে শেডের ভেতরের পরিবেশ তুলনামূলক শীতল থাকে। যা মুরগি ও গবাদি পশুর হিট স্ট্রোকে মৃত্যু হ্রাস করে।

তাদের দাবি প্রাণিসম্পদ খাতের খামারে সিমেন্ট শিট ব্যবহার করলে দেশে বছরে প্রায় ১২ হাজার কোটি টাকার বেশি উৎপাদন বাড়ানো সম্ভব। এছাড়া এ শিট ব্যবহারে এক দিকে উৎপাদন খরচ কমাবে অন্যদিকে ভোক্তারা কম মূল্যে ডিম, দুধ, মাংস খেতে পারবে।

বাংলাদেশসহ সারাবিশ্বে গবাদিপশু হাঁস-মুরগী উৎপাদনে সিমেন্ট শিট ব্যবহারে নিরব বিপ্লব ঘটেছে। দেশে সিমেন্ট শিট ব্যবহারের ফলে ডিম, দুধ ও মাংস উৎপাদন প্রায় ৯ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। সিমেন্ট শিট মৎস্য ও গবাদি-পশুকে রোগ-ব্যাধি থেকে শুধু রক্ষাই করছে না সেই সঙ্গে মৃত্যুহার প্রায় ১০ শতাংশ কমাচ্ছে।

নানা কারণে বাংলাদেশ উচ্চ তাপমাত্রার ঝুঁকিতে রয়েছে, যা প্রাণিসম্পদ ও কৃষি খাতের জন্য দুশ্চিন্তার কারণ। এই দুশ্চিন্তা কমাতে সিমেন্ট শিট বড় ভূমিকা রাখতে পারে। শিটগুলো ৬ স্তরের হওয়ায় অতিরিক্ত গরমের সময় শেডের ভেতরের তাপমাত্রা ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত নিয়ন্ত্রণ করে, এতে শেডের ভেতরের পরিবেশ তুলনামূলক শীতল থাকে। যা মুরগি ও গবাদি পশুর হিট স্ট্রোকে মৃত্যু হ্রাস করে।

এই শিট ব্যবহারে খামার নির্মাণ ব্যয় ৩০ শতাংশ পর্যন্ত হ্রাস করে। যা উৎপাদন খরচ কমিয়ে আনতে সহায়তা করে।

কর্মশালায় বিভিন্ন গবেষণার তথ্য তুলে ধরে মূল প্রবন্ধে বলা হয়, সিমেন্ট শিট একটি বহুমুখী এবং টেকসই বিল্ডিং উপাদান পদ্ধতি যা বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন নির্মাণ প্রকল্পে ব্যবহৃত হচ্ছে। পরিবেশবান্ধব, টেকসই নির্মাণ, ব্যয় সাশ্রয়ী, তাপ ও অগ্নি প্রতিরোধকসহ নানা সুবিধার কারণে বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশে ও আবাসিক, বাণিজ্যিক, শিল্প এবং কৃষি খাতের অবকাঠামো নির্মাণে ঢেউটিনের পরিবর্তে সিমেন্ট শিটের ব্যবহার দিন দিন বাড়ছে।

বিভিন্ন গবেষণা বলছে অতিরিক্ত হিটের কারণে গবাদিপশু ও মুরগি ২৫ শতাংশ পর্যন্ত খাদ্য গ্রহণ কমিয়ে দেয়, যার ফলে উৎপাদন হ্রাস পায়। সিমেন্ট শিট দিয়ে তৈরি শেড নির্মাণের ফলে তাপ প্রায় ৬-ডিগ্রি সেলসিয়াস হ্রাস করার ফলে গবাদি পশু ও মুরগির খাদ্য গ্রহণ বৃদ্ধি পায়। যা গবাদি পশু ও পোল্ট্রি খাতে হিট স্টোকে মৃত্যুহার হ্রাস করে ও ডিম, দুধ, মাংসের উৎপাদন বৃদ্ধিতে সহায়ক হয়।

দেশে বর্তমানে মোট ১.২৫ লাখ পোল্ট্রি খামার রয়েছে যার মধ্যে ৩৫ শতাংশ খামের শেড সিমেন্ট শিট দিয়ে তৈরি। এতে বছরে ডিমের উৎপাদন প্রায় ১১ শতাংশ বা ২৫৭ কোটি পিস ডিম বেড়েছে। যদি শতভাগ খামারে সিমেন্ট শিট ব্যবহার করা যায় তবে বছরে প্রায় ৭০০ কোটি পিস ডিম অতিরিক্ত উৎপাদন হবে, যার বাজার মূল্য প্রায় ৮ হাজার ৪০০ কোটি টাকা।

এছাড়া দেশে প্রায় ৪.২৫ লাখ গবাদি পশুর (ডেইরি ও ফ্যাটেনিং) বাণিজ্যিক খামার রয়েছে। এর বাইরে অন্যান্য গৃহপালিত গবাদি পশুসহ দেশে মাংসের উৎপাদন বছরে ৮৭.১০ লাখ টন।

বর্তমানে, দুগ্ধ ও পশু মোটাতাজাকরণ খামাগুলোর প্রায় ১৯ শতাংশ শেড সিমেন্ট শিট দিয়ে তৈরি, যদি শতভাগ খামার সিমেন্ট শিট দিয়ে তৈরি করা যায়, তবে দেশে বছরে মাংসের উৎপাদন অতিরিক্ত প্রায় ৬ লাখ টন বাড়বে যার বাজার মূল্য প্রায় ৩ হাজার ৯০০ কোটি টাকা।

অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য অনুসারে, বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত সিমেন্ট শিট সেক্টরে প্রায় ১ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ হয়েছে। বর্তমানে দেশে ৫টি সিমেন্ট শিট উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের বার্ষিক প্রায় ৩.৬২ লাখ মেট্রিক টন উৎপাদন সক্ষমতা রয়েছে। যার মধ্যে আনোয়ার সিমেন্ট শিট লি. সিংহভাগ উৎপাদন ও বাজারজাত করে।


সর্বশেষ - অভিমত