শুক্রবার, ১৪ অগাস্ট ২০২০, ০৮:২৯ অপরাহ্ন

বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ড বাংলাদেশের বিরুদ্ধে একটি পরিকল্পিত ষড়যন্ত্র : প্রধান বিচারপতি

ইবার্তা ডেস্ক
আপডেট : বুধবার, ১৬ আগস্ট, ২০১৭
প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা

ইবার্তা টুয়েন্টিফোর ডটকম: প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বলেছেন বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ড বাংলাদেশের বিরুদ্ধে একটি পরিকল্পিত ষড়যন্ত্র। ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সুপ্রিমকোর্টের আয়োজনে রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ১৫ আগস্টের হত্যাকান্ডকে কতিপয় উচ্ছৃংখল সেনা কর্মকর্তার বিদ্রোহ বলে অনেকে চালানোর চেষ্টা করলেও এটা যে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে একটা ষড়যন্ত্র ছিল তার প্রমাণ মাত্র দেড় মাসের মধ্যে হত্যাকারীদের দায়মুক্তি দেয়া।

বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার বিচারিক কার্যক্রমে অংশ নিতে সিঙ্গাপুরে ক্যান্সারের চিকিৎসা বাদ রেখে দেশে ফিরে আসার কথা উল্লেখ করে প্রধান বিচারপতি বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকান্ড ছিল কাপুরুষোচিত। আরো কষ্টদায়ক হলো, বঙ্গবন্ধু হত্যার পর হত্যাকারীদের রাষ্ট্রের আইন দ্বারা বিচারের পথ বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল।

প্রধান বিচারপতি বলেন, আমাদের রায়ে আমরা পরিষ্কারভাবে বলে দিয়েছি, এটা একটা ক্রিমিনাল কন্সপিরেসি (ষড়যন্ত্র)। পরিকল্পিতভাবে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করা হয়েছিল। তিনি বলেন, হত্যাকারীদের উদ্দেশ্য ছিল বঙ্গবন্ধুর সমস্ত পরিবারকে ইতিহাস থেকে মুছে ফেলা।

তিনি আরও বলেন, ১৫ আগস্টের হত্যাকান্ড হৃদয়বিদারক! বঙ্গবন্ধু হয়তো কারও শত্রু বা বিরাগভাজন হতে পারেন। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর সমস্ত পরিবারকে ইতিহাস থেকে মুছে ফেলার চক্রান্তের অংশ হিসেবে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদেরও হত্যা করা হয়।

তিনি বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার ষড়যন্ত্রের সঙ্গে অনেক রাঘব বোয়াল জড়িত ছিল। কিন্ত আমরা তাদের বিচারে সোপর্দ করতে পারিনি।

আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞা তার বক্তৃতায় বলেন, বঙ্গবন্ধু জাতির জনক। এতে সন্দেহের কোনো অবকাশ নেই। তিনি ছিলেন বলে দেশ স্বাধীন হয়েছে। পাকিস্তান যদি থাকত, হাইকোর্ট পর্যন্ত হয়তো যাওয়া যেত, কিন্তু সুপ্রিমকোর্টের প্রধান বিচারপতি বা বিচারপতি হওয়া কল্পনার বাইরে ছিল। কাজেই বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ করি কারণ তাঁর জন্যই আমি স্বাধীন দেশের একজন নাগরিক।


আরও সংবাদ