মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭:৩৭ পূর্বাহ্ন
শীর্ষ সংবাদ
শেখ হাসিনাকে জন্মদিনে মোদী পাঠালেন ফুল, চীনের শুভেচ্ছা জ্ঞাপন পঁচাত্তরের খুনিদের দায়মুক্তি অধ্যাদেশ “ধর্ষিত” মামুনের স্ক্রিনশপ জালিয়াতি ফাঁস : ইলিয়াস সহ সুশীলদের কটাক্ষ জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ : বিশ্ব সভায় বাংলা ভাষার প্রথম আনুষ্ঠানিক প্রতিনিধিত্ব গার্ডিয়ানে প্রকাশিত শেখ হাসিনার নিবন্ধ: ‘আ থার্ড অফ মাই কান্ট্রি ওয়াজ জাস্ট আন্ডারওয়াটার। দ্য ওয়ার্ল্ড মাস্ট অ্যাক্ট অন ক্লাইমেট’ হেফাজতের কর্তৃত্ব যাচ্ছে দেওবন্দের কাফের ঘোষিত জামায়াতের কব্জায় ! অনলাইনে মিলছে টিসিবির পেঁয়াজ আজ টিউলিপ সিদ্দিকের জন্মদিন বাংলাদেশের সঙ্গে রাজনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক বাড়াতে চায় যুক্তরাষ্ট্র প্রধানমন্ত্রীকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর ফোন

‘রোহিঙ্গা সমস্যার জন্য সরকার দায়ী’; ‘সুসম্পর্ক রক্ষায় রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিন’: খালেদা জিয়া

ইবার্তা ডেস্ক
আপডেট : মঙ্গলবার, ২৯ আগস্ট, ২০১৭

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া রোহিঙ্গা সমস্যার জন্য বাংলাদেশ সরকারকে দায়ী করে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয় ও নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

সোমবার এক বিবৃতিতে খালেদা জিয়া এ কথা বলেন। বর্তমানে লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপি চেয়ারপারসনের পক্ষে দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বিবৃতিটি গণমাধ্যমে পাঠিয়েছেন।
খালেদা জিয়া বলেন, “রোহিঙ্গা সমস্যার জন্য বাংলাদেশ সরকারর কূটনৈতিক দুর্বলতাও এজন্য দায়ী।”

মিয়ানমারের সাথে সুসম্পর্ক রক্ষায় রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ার পরামর্শ দিয়ে  খালেদা জিয়া বলেন, “দীর্ঘদিন ধরে রোহিঙ্গারা সমাধানহীন একটি অরাজক পরিস্থিতির মধ্যে থাকলে আঞ্চলিক স্থিতিশীলতার অবনতি হতে থাকবে। এতে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে ঐতিহ্যগত সম্পর্কে বিরূপ প্রভাব পড়বে।”

বিবৃতিতে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সহিংসতার ঘটনায় নিন্দা জানান তিনি। রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিবর্ষণের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে খালেদা জিয়া বলেন, “শক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে যেকোনো সঙ্কট আরও ঘনীভূত হয়। যুগ যুগ ধরে রোহিঙ্গারা অত্যাচারিত হচ্ছে। ভূমিচ্যুত হয়ে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে প্রধানত বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে আসছে। এ ছাড়া আরও কিছু দেশেও রোহিঙ্গারা উদ্বাস্তু হয়ে জীবনযাপন করছে।”

রোহিঙ্গাদের জীবন ও বসবাসের নিরাপত্তা বিধান এবং তাদের ওপর রক্তাক্ত সহিংসতার পুনরাবৃত্তি বন্ধ করতে মিয়ানমার সরকার প্রাজ্ঞ ও দূরদর্শী নীতি নিয়ে অগ্রসর হবে বলে খালেদা জিয়া আশা প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, গতকাল পর্যন্ত রাখাইনে পুলিশ ফাঁড়ি ও সেনা ঘাটিসহ কয়েকটি হামলা চালিয়েছে ‘রোহিঙ্গা বিদ্রোহীরা’। রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স সূত্রে জানা গেছে, রোববার পর্যন্ত নিরাপত্তা বাহিনীর ১২ সদস্যসহ ৯৮ জন নিহত হয় বলে জানায়। নারী ও শিশুসহ কয়েক হাজার রোহিঙ্গা নাফ নদী ও স্থল সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশের চেষ্টা করছে।


আরও সংবাদ