1. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  2. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  3. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
নাম তাদের ‘দুর্জয়’ ও ‘অবন্তিকা’ - ebarta24.com
  1. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  2. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  3. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
নাম তাদের ‘দুর্জয়’ ও ‘অবন্তিকা’ - ebarta24.com
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:২৫ অপরাহ্ন

নাম তাদের ‘দুর্জয়’ ও ‘অবন্তিকা’

কমলিকা হাসান
  • সর্বশেষ আপডেট : মঙ্গলবার, ১৭ আগস্ট, ২০২১

লকডাউনের অবকাশে আড়াই মাস আগে ঢাকার মিরপুর জাতীয় চিড়িয়াখানায় জন্ম নেওয়া দুই বাঘের ছানা আনুষ্ঠানিক নাম পেয়েছে।

বেঙ্গল টাইগার প্রজাতির এ দুই ব্যাঘ্র শাবকের মধ্যে মেয়েটির নাম রাখা হয়েছে ‘অবন্তিকা’, আর ছেলেটির নাম দুর্জয়।

তাদের নিয়ে মিরপুর চিড়িয়াখানায় বাঘের সংখ্যা বেড়ে ১১টি হয়েছে বলে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম জানান, সোমবার বাঘের ছানা দুটির নামকরণ করা হয়েছে। চিড়িয়াখানা খুললে দর্শনার্থীরা তাদের দেখতেন পাবেন।
অবন্তিকা আর দুর্জয় এখন খাঁচায় তাদের মা বেলীর সঙ্গেই থাকছে, তবে তাদের বাবা টগরকে রাখা হয়েছে আলাদা খাঁচায়।

রেজাউল করিম বলেন, “ছেলে বাচ্চাটির নাম ‘দুর্জয়’, যা সহজে জয় করা যায় না, জয় করতে হয় কঠিনভাবে। আর মেয়ে বাচ্চাটির নাম হচ্ছে ‘অবন্তিকা’, যার নিকটবর্তী শব্দ হচ্ছে রাণী।”

করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে বিধিনিষেধের মধ্যে অন্যসব বিনোদন কেন্দ্রের সঙ্গে চিড়িয়াখানও বন্ধ রাখা হয়েছিল। স্বাস্থ্যবিধি মানার শর্তে ১৯ অগাস্ট থেকে আবার সব পর্যটন কেন্দ্র ও বিনোদন কেন্দ্র খোলার অনুমতি দিয়েছে সরকার।
মিরপুর চিড়িয়াখানার পরিচালক ডা. মো. আব্দুল লতিফ মঙ্গলবার বলেন, “মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ থেকে চিড়িয়াখানা খোলার বিষয়ে একটি পরপিত্র জারি করা হয়েছে, এটি এখনও আমরা হাতে পাইনি, তবে দর্শনার্থীদের জন্য চিড়িয়াখানা খুলে দেওয়ার সব প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে।”

আর মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, ১৯ তারিখেই চিড়িয়াখানা দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া যাবে বলে তিনি আশা করছেন।
ডা. লতিফ জানান, মিপুর চিড়িয়াখানার জন্য ১৯৮১ সালে খুলনা অঞ্চল থেকে প্রথম একটি পুরুষ বাঘ সংগ্রহ করা হয়। এরপর ১৯৯০ সালে ভারত থেকে তিনটি মেয়ে এবং দুটি পুরুষ বাঘ আনা হয়।

১৯৯০ সালের সেপ্টেম্বরে এ চিড়িয়াখানায় প্রথম বাঘের ছানার জন্ম হয়। তার পর থেকে এ পর্যন্ত মোট ৪০টি বাঘের জন্ম হয় হয়েছে এ চিড়িয়াখানায়। সেখান থেকে ১১টি বাঘ পাঠানো হয়েছে দেশের বিভিন্ন চিড়িয়াখানা এবং সাফারি পার্কে। এছাড়া দুটি বাঘ কুয়েত সরকারকে উপহার হিসেবে পাঠানো হয়েছে।”

গত ২৬ এপ্রিল দুর্জয় ও অবন্তিকার জন্মের আগে সর্বশেষ ২০১৬ সালে মিরপুর চিড়িয়াখানায় দুটি বাঘের ছানার জন্ম হয়েছিল, তবে জন্মের কিছুদিনের মধ্যেই সেগুলো মারা যায় বলে জানান পরিচালক আব্দুল লতিফ।





সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ





ebarta24.com © All rights reserved. 2021