1. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  2. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  3. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
ধর্ষণের আসামীকে উপদেষ্টা করে অধিকার পরিষদের কমিটি: পদত্যাগ ও ক্ষোভ - ebarta24.com
  1. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  2. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  3. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
ধর্ষণের আসামীকে উপদেষ্টা করে অধিকার পরিষদের কমিটি: পদত্যাগ ও ক্ষোভ - ebarta24.com
বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:১৪ অপরাহ্ন

ধর্ষণের আসামীকে উপদেষ্টা করে অধিকার পরিষদের কমিটি: পদত্যাগ ও ক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • সর্বশেষ আপডেট : রবিবার, ২৯ আগস্ট, ২০২১

অবশেষে রাশেদ ও ফারুকের প্রভাব সীমিত করতে আলোচিত ধর্ষণ মামলার আসামী হাসান আল মামুনকে উপদেষ্টা করে ছাত্র অধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। কোণঠাসা করে রাখা হয়েছে মশিউর রহমানকে। তবে মামুন ছাড়াও রাশেদ, ফারুককে উপদেষ্টা হিসেবে রাখা হলেও কোটা আন্দোলন ও ছাত্র অধিকার পরিষদের স্বপ্নদ্রষ্টা দাবীদার তারেক রহমানকে উপদেষ্টা করা হয় নি।

গতকাল বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের প্রথম কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিন ইয়ামিন মোল্লাকে সভাপতি, আরিফুল ইসলাম আদীবকে সাধারণ সম্পাদক ও মোল্যা রহমতুল্লাহকে সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত করে ছাত্র অধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা করেন ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরু।

নুরু বলেন, ‘সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে তিনজনকে নির্বাচিত করা হয়েছে। ৩৮ জনকে মনোনীত করে ৪১ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করা হলো। এছাড়া গত কমিটির পাঁচ সদস্যকে এই কমিটিতে উপদেষ্টা হিসেবে রাখা হয়েছে।’

শনিবার দুপুর ২টার দিকে রাজধানীর বিজয়নগরে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ভোট গ্রহণ শুরু হয় বলে দাবি করা হয়। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় ২৯৪ কাউন্সিলরের ভোট গণনা শেষ হলে কমিটি ঘোষণা করা হয়। মশিউর রহমানকে সভাপতি বা সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হবেন বলে অনেকের ধারণা ছিল। অভিযোগ রয়েছে নির্বাচিত তিন জনকে ভোট দেয়ার জন্য কাউন্সিলরদের আগেই নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল।

উপদেষ্টা কমিটিতে তারেক রহমানের না থাকা এবং ধর্ষণ মামলার আসামী পলাতক হাসান আল মামুনকে ছাত্র অধিকার পরিষদের উপদেষ্টা নির্বাচিত করায় সকলে বিস্ময় ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। কমিটি ঘোষণার ২ ঘণ্টা পার না হতেই কেন্দ্রীয় নেতা (সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক) রহমতুল্লাহ রবিন নেহাল ফেসবুক পেজে পদত্যাগের ঘোষণা দেন।

সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের মতে, নুরুর সংগঠনের কাছে ইতিবাচক তেমন কিছু আশা করা যায় না। তারা যখন-তখন নিজেদের সুবিধামতো অবস্থান পরিবর্তন করে ও দ্বিমুখী আচরণ করে। যা নিয়ে অন্যদের সমালোচনা করে তার নজির তাদের সংগঠনেই দেখা যায় অহরহ। বিশেষ করে, বিচারাধীন একটি আলোচিত মামলার পলাতক আসামীকে ছাত্রদের উপদেষ্টা হিসেবে মনোনীত করে নুরু নীতি ও নৈতিকতার চূড়ান্ত স্খলনের প্রমাণ দিয়েছে।





সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ





ebarta24.com © All rights reserved. 2021