রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৪১ অপরাহ্ন
শীর্ষ সংবাদ
শেখ হাসিনাকে জন্মদিনে মোদী পাঠালেন ফুল, চীনের শুভেচ্ছা জ্ঞাপন পঁচাত্তরের খুনিদের দায়মুক্তি অধ্যাদেশ “ধর্ষিত” মামুনের স্ক্রিনশপ জালিয়াতি ফাঁস : ইলিয়াস সহ সুশীলদের কটাক্ষ জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ : বিশ্ব সভায় বাংলা ভাষার প্রথম আনুষ্ঠানিক প্রতিনিধিত্ব গার্ডিয়ানে প্রকাশিত শেখ হাসিনার নিবন্ধ: ‘আ থার্ড অফ মাই কান্ট্রি ওয়াজ জাস্ট আন্ডারওয়াটার। দ্য ওয়ার্ল্ড মাস্ট অ্যাক্ট অন ক্লাইমেট’ হেফাজতের কর্তৃত্ব যাচ্ছে দেওবন্দের কাফের ঘোষিত জামায়াতের কব্জায় ! অনলাইনে মিলছে টিসিবির পেঁয়াজ আজ টিউলিপ সিদ্দিকের জন্মদিন বাংলাদেশের সঙ্গে রাজনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্ক বাড়াতে চায় যুক্তরাষ্ট্র প্রধানমন্ত্রীকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর ফোন

ওয়াহাব মিঞার ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি: আপিল বিভাগে নিয়োগ পাচ্ছেন দুজন বিচারপতি

ইবার্তা ডেস্ক
আপডেট : মঙ্গলবার, ৩ অক্টোবর, ২০১৭
সুপ্রিমকোর্ট
সুপ্রিমকোর্ট

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা মঙ্গলবার থেকে ছুটিতে যাওয়ায় ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্‌হাব মিঞার নেতৃত্বে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের ১ নম্বর কোর্টের বিচার কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল ৯টা ৫ মিনিটে পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চে কার্যক্রম শুরু হয়।

বিচার কার্যক্রমের শুরুতে আদালত অ্যাটর্নি জেনারেলকে উদ্দেশে করে বলেন, আজকে কোর্ট চলবে ১০টা পর্যন্ত।

সোমবার রাতে রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে আইন মন্ত্রণালয় মো. আবদুল ওয়াহ্‌হাব মিঞার ভারপ্রাপ্ত বিচারপতি সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে।

বাংলা ইনসাইডারে প্রকাশ, আপিল বিভাগে বর্তমানে কাগজে কলমে বিচারপতির সংখ্যা ছয়। কিন্তু প্রধান বিচারপতি ছুটিতে। তাই কার্যত বিচারপতির সংখ্যা পাঁচ। বিভাগের দুটি বেঞ্চ এই সংখ্যক বিচারক দিয়ে গঠন করা অসম্ভব। তাই আপিল বিভাগে মামলার জট হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এই আশঙ্কা দূর করতে শিগগিরই আপিল বিভাগে দুজন নতুন বিচারপতি নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যেই এই নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

গত জুলাই মাসেও আপিল বিভাগে বিচারপতি ছিলেন সাতজন। তবে ৭ জুলাই অবসরে যান দেশের প্রথম নারী বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা। তিনি অবসরে যাওয়ার পর নতুন করে কোনো বিচারপতি নিয়োগ হয়নি আপিল বিভাগে। এরপরও ছয় বিচারপতি দিয়ে আপিল বিভাগের দুটি বেঞ্চ চলছিল। কিন্তু আজ মঙ্গলবার থেকে দীর্ঘ এক মাসের ছুটিতে গেছেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। আর আগামী ৩১ জানুয়ারি অবসরে যাচ্ছেন তিনি। তাই অবসরে যাওয়ার পূর্বের কয়েকদিনও প্রধান বিচারপতিকে পাচ্ছে না আপিল বিভাগ। তাই কার্যত পাঁচজন নিয়েই এই বিভাগকে চলতে হবে।

বিচারপতি সিনহার ছুটিকালীন সময়ে ভারপ্রাপ্তের দায়িত্বে থাকছেন আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি আব্দুল ওয়াহহাব মিঞা। বর্তমানে আপির বিভাগে থাকা অপর চার বিচারপতি হলেন, সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, মো. ঈমান আলী, হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী, মির্জা হোসাইন হায়দার।

আপিল বিভাগে একটি বেঞ্চে তিনজন বিচারপতি বসেন। দুটি বেঞ্চে আপিল বিভাগের কার্যক্রম পরিচালিত হয়। কিন্তু বিচারপতি পাঁচজন হয়ে পড়ায় দুটি বেঞ্চ গঠনও অসম্ভব হয়ে পড়েছে। আর দুটি জায়গায় একটি বেঞ্চে আপিল বিভাগ পরিচালিত হলে স্বভাবতই এই বিভাগে মামলা জট বাড়বে। তাই এখনই দুজন বিচারক নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করেছে আইন মন্ত্রণালয়।

সংবিধানের ৯৫ ধারার ১ উপধারায় বিচারপতি নিয়োগের বিষয়ে বলা হয়েছে, প্রধান বিচারপতি রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নিযুক্ত হইবেন এবং প্রধান বিচারপতির সহিত পরামর্শ করিয়া রাষ্ট্রপতি অন্যান্য বিচারককে নিয়োগদান করিবেন।

সাধারণত হাইকোর্টের জ্যেষ্ঠ বিচারকদের মধ্যে থেকেই প্রধান বিচারপতি নিয়োগ দেওয়া হয়। এই মুহূর্তে আপিল বিভাগের কয়েকজন জ্যেষ্ঠ বিচারপতি হলেন, সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন, বিচারপতি সৈয়দ এ বি মাহমুদুল হক, বিচারপতি তারিক উল হাকিম, বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী

তবে অনেক সময়ই বিচারকদের জ্যেষ্ঠতার চেয়ে বিচারকদের দক্ষতা এবং রাষ্ট্রপতির ও সরকারেরর অভিপ্রায়ও বিচারক নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রাধান্য পায়।

আইন মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, এরই মধ্যে আপিল বিভাগে দুই বিচারপতি নিয়োগ প্রক্রিয়ায় প্রাথমিক কাজ শুরু হয়েছে। অতি শিগ্রই দুজন বিচারপতিকে আপিল বিভাগে নেওয়া হচ্ছে।


আরও সংবাদ