1. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  2. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  3. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
২ অক্টোবর - জিয়ার নারকীয়তার ভয়াল সেই দিন - ebarta24.com
  1. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  2. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  3. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
২ অক্টোবর - জিয়ার নারকীয়তার ভয়াল সেই দিন - ebarta24.com
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৫:১৬ পূর্বাহ্ন

২ অক্টোবর – জিয়ার নারকীয়তার ভয়াল সেই দিন

সম্পাদনা:
  • সর্বশেষ আপডেট : রবিবার, ৩ অক্টোবর, ২০২১

২ অক্টোবর (শনিবার)। এইদিনে জিয়াউর রহমান ইতিহাসের জঘন্যতম হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করেছিলেন। অবৈধভাবে ক্ষমতায় এসে স্বৈরশাসক জিয়াউর রহমান তার সামরিক ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে দেশের হাজার হাজার দেশপ্রেমিক সেনা ও বিমান বাহিনীর কর্মকর্তাসহ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নির্মমভাবে হত্যা করেন। সেনা ও বিমান বাহিনীর ১ হাজার ৪০০ সদস্যকে সামরিক ট্রাইব্যুনালে তথাকথিত বিচারের নামে কারা অভ্যন্তরে অমানবিকভাবে নির্যাতনের পর ফাঁসি কাষ্ঠে ঝুলিয়ে হত্যা করেন।

১৯৭৭ সালের এইদিনে বিমান বাহিনীর সদস্যদের ব্যর্থ অভ্যুত্থানেই ফাঁসি ও ফায়ারিং স্কোয়াডে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয় ১ হাজার ৩০০ জনের বেশি সেনাকে। অভ্যুত্থানে ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছিলেন শতাধিক সেনা অফিসার। অনেকে নিহত হয়েছিলেন অভ্যুত্থান দমাতে গিয়ে। আবার বিচারের নামে মেরে ফেলা হয় কয়েকশ সেনাকে। সব মিলিয়ে মোট সংখ্যা আড়াই হাজারের মতো বলে ধারণা করা হয়। এদের মধ্যে ফাঁসি ও ফায়ার স্কোয়াডে হত্যা করা ১হজার ৩০০ জনের বেশি সেনা সদস্যের কথা জানা গেলেও, বাকিদের মৃত্যুর কোনো দালিলিক প্রমাণ নেই। তাই আজও তারা পরিবারের কাছে নিখোঁজ।

১৯৭৭ সালের ২ অক্টোবরের অভ্যুত্থান নিয়ে জায়েদুল আহসানের লেখা বই রহস্যময় অভ্যুত্থান ও গণফাঁসি। জায়েদুল আহসান সে সময় সামরিক আদালতের রায়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়া ব্যক্তিদের আংশিক তালিকা উদঘাটন করেছিলেন ঢাকা, বগুড়া ও কুমিল্লা কারাগারের নথি ঘেঁটে।

বইতে তিনি লিখেছেন: ‘১৯৭৭ সালের ২ অক্টোবর ঢাকায় সামরিক বাহিনীর একটি অংশের অভ্যুত্থানের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে তৎকালীন সেনা শাসক জেনারেল জিয়াউর রহমানের নির্দেশে গঠিত বিশেষ সামরিক ট্রাইব্যুনালের কথিত বিচারে সেনা ও বিমানবাহিনীর যেসব সদস্যকে ফাঁসি দেয়া হয়েছিল, তাদের মধ্যে ১৯৩ জনের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়। ঐ ঘটনায় পূর্বাপর মৃতের সংখ্যা অনেক বেশি হওয়ায় এটা স্পষ্ট যে বিচারের আওতার বাইরেও অনেককে মরতে হয়েছে।

‘অভ্যুত্থান-পরবর্তী দুই মাস ১ হাজার ১শ থেকে ১ হাজার ৪শ সৈনিককে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে কিংবা ফায়ারিং স্কোয়াডে হত্যা করা হয়েছিল। ঐ সময় শুধু ঢাকা ও কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারে সৈনিকদের ফাঁসি কার্যকর করা হয়। ঢাকায় ১২১ জন আর কুমিল্লায় ৭২ জনের ফাঁসি হয়। এ ছাড়া ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে পাঁচ শতাধিক সৈনিককে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়।’

অক্টোবরের ওই অভ্যুত্থান প্রসঙ্গে প্রখ্যাত সাংবাদিক এন্থনি ম্যাসকারেনহাস আ লিগ্যাসি অব ব্লাড গ্রন্থে বলেছেন, ‘এ সময় পরবর্তী দুই মাসে বাংলাদেশের সরকারি রেকর্ড অনুযায়ী ১ হাজার ১৪৩ জন সৈনিকের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছিল। বাংলাদেশে সে সময়ে প্রায় সকল কারাগারে গণফাঁসি দেয়ার ঘটনা ঘটেছিল। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালসহ দেশের প্রায় সকল প্রগতিশীল সংগঠনই তখন এর প্রতিবাদ করেছিল। অভিযোগ উঠেছিল, প্রহসন ও কোনো আইনকানুনের পরোয়া না করে নামকাওয়াস্তে বিচার ও ফাঁসির ঘটনাগুলো ঘটানো হচ্ছিল।’

১৯৮৭ সালে বিমানবাহিনী থেকে প্রকাশিত বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর ইতিহাস বইতে এই অভ্যুত্থানের দিনকে ‘কালো দিন’ হিসেবে উল্লেখ করা হয়। বইটিতে এই বিদ্রোহের কারণে সরকার নির্দেশিত বিশেষ সামরিক আদালতে বিচার ও পরে প্রশাসনিক ব্যবস্থায় মোট ৫৬১ জন বিমান সেনা হারানোর ঘটনার কথা উল্লেখ করা হয়।

আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা রয়টার্সের বরাত দিয়ে ১৯৭৭ সালে ৩ অক্টোবর নিউ ইয়র্ক টাইমস-এ ‘100 Reported killed in Dacca Coup Attempt’ শিরোনামে অভ্যুত্থান-সম্পর্কিত একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়।

১৯৭৮ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি ওয়াশিংটন পোস্ট-এ ‘Bangladesh Executions: A Discrepancy` শিরোনামে এক প্রতিবেদনে বলা হয়: ‘১৯৭৮ সালের ১৯ জানুয়ারি স্টেট ডিপার্টমেন্টে পাঠানো একটি গোপন তারবার্তায় ঢাকার আমেরিকান দূতাবাসের চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স জানান, তার পাওয়া তথ্য অনুসারে ২১৭ জন মিলিটারি সদস্যকে ক্যু প্রচেষ্টার পরবর্তীকালে হত্যা করা হয়।

‘আমাদের মনে হয় মিলিটারি কোর্ট স্থাপনের আগেই সম্ভবত এদের ৩০-৩৪ জনকে হত্যা করা হয়েছিল’- বলেন চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স আলফ্রেড ই বার্গেনসেন।

জায়েদুল আহসান তাঁর বইতে লিখেছেন, ‘৭৭-এর ২ অক্টোবর অভ্যুত্থান দমনের পর থেকেই সশস্ত্র বাহিনীর সহস্রাধিক সদস্যকে কোনো কিছু না জানিয়ে কর্তব্যরত অবস্থায় আটক করা হয়। এদের প্রায় সবাইকে পরে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়। কারাগারে ঠাঁই না পাওয়াদের রাখা হয় সেনানিবাসের ভেতরে বিভিন্ন নির্যাতন সেলে।

‘তাদের হাত-পা-চোখ বেঁধে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে দিনের পর দিন আটকে রাখা হয়েছিল। জিজ্ঞাসাবাদের নামে চলত অকথ্য নির্যাতন। সম্পূর্ণ উলঙ্গ করে ছোট একটি কক্ষে ৫০-৬০ জনকে একই সঙ্গে রাখা হতো। অপরদিকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দিদের ৭ অক্টোবর থেকে সামরিক ট্রাইব্যুনালে বিচারকার্য শুরু হয়। বন্দিদের এই বিচার চলে ২৬ অক্টোবর পর্যন্ত। ট্রাইব্যুনালে হাজিরা দেয়ার জন্য প্রতিদিন কারাগার থেকে বাসভর্তি করে সশস্ত্র প্রহরায় তাদের সেনানিবাসে নিয়ে যাওয়া এবং ফিরিয়ে আনা হতো।

‘সামরিক আদালতের রায় প্রতিদিন রাত ৯টার মধ্যে বন্দি সামরিক ব্যক্তিদের জানানো হতো। যাদের ফাঁসির আদেশ হতো তাদের সঙ্গে সঙ্গে পাঠানো হতো কনডেমড সেলে । রায় জানানোর রাতেই কিংবা পরের রাতে তাদের ফাঁসি কার্যকর করা হতো।

`৭৭-এর অক্টোবর-নভেম্বর মাসে কারাগারগুলোতে যখন সন্ধ্যা নেমে আসত, তখন প্রতিটি কক্ষ থেকে ভেসে আসত গগনবিদারী কান্নার রোল। সামরিক বাহিনীর তত্ত্বাবধানে কারা কর্তৃপক্ষ এতই তড়িঘড়ি করে ফাঁসি দিচ্ছিল যে, একই নামের একজনের জায়গায় অন্যজনকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে দেয়া হতো। পশুপাখির মতো, জোর করে টেনেহিঁচড়ে নিয়ে গলায় রশি বেঁধে ঝুলিয়ে দেয়া হতো। প্রাণ যাওয়ার আগেই কেটে ফেলা হতো হাত-পায়ের রগ । কারাগারের ড্রেনগুলো সৈনিকদের রক্তের প্লাবন বয়ে যেত।’





সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ





ebarta24.com © All rights reserved. 2021