1. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  2. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  3. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
ধর্ম ব্যবসায়ীরা সমাজ, রাষ্ট্র ও ধর্মের শত্রু - ebarta24.com
  1. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  2. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  3. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
ধর্ম ব্যবসায়ীরা সমাজ, রাষ্ট্র ও ধর্মের শত্রু - ebarta24.com
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৫৭ পূর্বাহ্ন

ধর্ম ব্যবসায়ীরা সমাজ, রাষ্ট্র ও ধর্মের শত্রু

জাফর ইকবাল
  • সর্বশেষ আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৪ অক্টোবর, ২০২১

১. মসজিদে মূর্তি রাখলে নামাজ হবে না এটা যেমন প্রত্যেকটি মুসলমান জানে তেমনই মন্দিরে কোরআন রাখলে পূজা হবে না এটাও সকল হিন্দুরা জানে। তাহলে হিন্দুরা মন্দিরে কোরআন রাখবে কেন?

২. এই ধরনের একটা ঘটনা ঘটালে মুসলিমরা ক্ষেপে তাদের উপাসনালয়ে হামলা করবে এটা সকল হিন্দুরা খুব ভালো করেই জানে। তারপর বাংলাদেশ মুসলিম প্রধান দেশ, এইদেশে এটা করা আত্মহত্যার শামিল। কোন সুস্থ মস্তিষ্কের মানুষ জেনেশুনে নিশ্চয় আত্মহত্যা করতে পারে না।

৩. কোরআন অবমাননা শব্দটাই আমার কাছে ধর্মীয় মনে হয় না এটি সম্পন্ন রাজনৈতিক। কারণ মহান আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআন শরিফে ঘোষণা করেছেন, ‘ আমিই (আল্লাহ) কোরআন অবতীর্ণ করেছি। আর অবশ্যই আমি এর সংরক্ষক। (সুরা : হিজর, আয়াত : ৯)

তাহলে যেই ধর্মগ্রন্থের হেফাযতের দায়িত্ব মহান আল্লাহ তায়ালা নিজে নিয়েছেন সেই ধর্মগ্রন্থের অবমাননা কি করে সাধারণ মানুষ করতে পারে?

মহান আল্লাহ তায়াল যেই কোরআন হেফাজতের দায়িত্ব নিজে নিয়েছেন সেই কোরআন হেফাজতের নামে যেসব তৌহিদী জনতা রাস্তায় নেমে মন্দিরে ভাঙচুর এবং হিন্দুদের উপর হামলা করছে তারা কি প্রকাশ্যেই সৃষ্টিকর্তাকে চ্যালেঞ্জ করলো না? আল্লাহ তায়ালা যেই দায়িত্ব নিয়েছেন সেই দায়িত্ব মানুষ হয়ে পালন করতে যাওয়া কি তাকে চ্যালেঞ্জ করা না? (নাউজুবিল্লাহ)

৪. শাপলা চত্বর ট্যাজেডির সময় আমরা দেখেছি ধর্মকে পূঁজি করে রাজনীতি করা হেফাযত-জামাত বায়তুল মোকাররমে কোরআন শরিফে আগুন দিয়েছে। কোরআন শরিফে আগুন দিয়ে সাধারণ জনগণকে ক্ষেপিয়ে তারা রাষ্ট্রের মসনদ আরোহণের স্বপ্নে বিভোর ছিলো। কোরআনে আগুন দিলে কি কোরআন অবমাননা হয় না? নাকি ইসলামের জিম্মাদার দাবি করা ওই সকল ধর্ম ব্যবসায়ীদের বেলায় অবমাননা টার্মটি ভিন্ন?

কিছুদিন আগেও আমরা দেখেছি কোরআনের ভেতরে করে ইয়াবা পাচারের দৃশ্য। এতেও কি কোরআন অবমাননা হয় নি?

বাংলা ভাই, শায়েখ আব্দুর রহমান এবং মুফতি হান্নানরা কোরআনের ভেতরের পাতা কেটে পিস্তল রেখে ঘুরে বেড়িয়েছে। তখনও কি কোরআন অবমাননা হয় নাই? এই তৌহিদী জনতা তখন বিরোধিতা কিংবা এখন নিন্দা জানাচ্ছে না কেনো? নাকি কোরআন অবমাননা ব্যক্তিবেধে হয়?

৫. কোনো মুসলমান এই ধরনের কাজ করতে পারে না। কারণ আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআনের সূরা আনামে বলেছেন, ‘খবরদার, তোমরা তাদের উপাস্যকে গালি দিও না তাহলে তারা তোমাদের হক আল্লাহকে গালি দেবে।’ তারমানে কোনো মুসলিম হিন্দুদের প্রতিমা নিয়ে ব্যঙ্গ, টিটকারি কিংবা প্রতিমায় হামলা করতে পারে না।

আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআনের সূরা আল মায়িদায় ঘোষণা করেছেন, ‘হে কিতাবধারী! নিজেদের ধর্ম নিয়ে অযথা বাড়াবাড়ি করো না। আর (ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করে) তোমাদের আগে যারা নিজেরা পথভ্রষ্ট হয়ে ও অন্যদের পথভ্রষ্ট করে সহজ-সরল পথচু্যত হয়েছে, তাদের পথ অবলম্বন করো না।’ (আয়াত: ৭৭)

তাহলে এখন যারা ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করতে চায় তারা কারা?

হযরত মোহাম্মদ (সাঃ) বলেছেন, কোনো অমুসলিমকে কিংবা মুসলিম দেশে থাকা কোনো বিধর্মীকে কেউ যদি হত্যা করে তাহলে সে জান্নাতের সুঘ্রাণ পাবে না অথচ ৪০ হাজার বছরের দুরত্ব থেকেও জান্নাতের সুঘ্রাণ পাওয়া যায়।

তারমানে কোনো মুসলিম যেনেশুনে সমাজে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির জন্য এই ধরনের কাজ করতে পারে না। জেনেশুনে কোনো মুসলিম হিন্দুদের উপর হামলা করতে পারে না। প্রতিমা ভাঙচুরও করতে পারে না।

তাহলে প্রশ্ন কে বা কারা এই ধরনের কাজ করে সমাজে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে।
সোজা উত্তর সেটা তদন্তে বের হবে। আর একটু ভেবে বল্লে, পূর্বে যারা কোরআন অবমাননা করে, ধর্মকে পুঁজি করে সমাজে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছে। জনগণকে উসকে দিয়ে রাষ্ট্র ক্ষমতায় যেতে চেয়েছে তারাই এর পেছনে দায়ী। এরা সমাজ, রাষ্ট্র ও ধর্মের শত্রু। এদের বয়কট করুন। বাঙালির হাজার বছরের ঐতিহ্যের অসাম্প্রদায়িক সম্পৃতি রক্ষায় এদের প্রতিহত করা অত্যন্ত জরুরি।

লেখক: জাফর ইকবাল, সাংবাদিক ও বিতার্কিক।





সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ





ebarta24.com © All rights reserved. 2021