1. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  2. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  3. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
সাম্প্রদায়িক অপশক্তি কখনো জয়ী হয়নি - ebarta24.com
  1. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  2. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  3. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
সাম্প্রদায়িক অপশক্তি কখনো জয়ী হয়নি - ebarta24.com
রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৫:২০ পূর্বাহ্ন

সাম্প্রদায়িক অপশক্তি কখনো জয়ী হয়নি

তাপস হালদার
  • সর্বশেষ আপডেট : মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২১

রামু থেকে কুমিল্লা হয়ে নোয়াখালী, রংপুর একই চিত্রনাট্য, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমকে ব্যবহার করে মিথ্যা গুজব রটিয়ে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপর পরিকল্পিত হামলা। তবে কুমিল্লা শহরের নানুয়া দীঘির পাড়ের মন্দিরের ঘটনাটি যে ছিল সুপরিকল্পিত গভীর ষড়ডন্ত্র সেটি ইকবাল হোসেনের গ্রেপ্তারের মধ্য দিয়ে দিবালোকের মতো স্পষ্ট হয়েছে।

কুমিল্লার নানুয়া দীঘির পাড়ের মন্দিরে হনুমান মূর্তির ওপর কোরআন শরিফ রেখে ইসলাম ধর্মকে অবমাননা করা হয়েছে এমন অভিযোগ তুলে সেই ঘটনাটিকে ফেইসবুকে লাইভ করে ভাইরাল করা হয়। মুহূর্তের মধ্যেই শত শত দুর্বৃত্ত লাঠিসোঁটা নিয়ে মন্দিরে হামলা করে এবং নারী, পুরুষ, শিশু যাকেই যেখানে পেয়েছে তাকেই সেখানে আহত করেছে। এই একই অভিযোগে শুধু কুমিল্লাই নয়, আরও অন্ততপক্ষে পনেরোটি জেলায় দুর্গা মূর্তি কিংবা মন্দিরে হামলা চালানো হয়েছে।

এটা কোনো পাগলেও বিশ্বাস করবে না যে, হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক নিজেদের দুর্গোৎসবকে বানচাল করতে এমন কাজ করবে? ঘটনার পরবর্তী কার্যক্রমও প্রমাণ করে মৌলবাদী গোষ্ঠী সম্প্রীতির দুর্গোৎসবকে বানচাল ও দেশকে অস্থিতিশীল করতেই এমন কাজ করেছে। কুমিল্লার ঘটনাকে পুঁজি করে সারা দেশে একটি অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরি করার চেষ্টা করা হয়। সরকার দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার ফলে তাদের প্রচেষ্টা শতভাগ বাস্তবায়ন করতে পারেনি। তবে অস্বীকার করার উপায় নেই, নোয়াখালী, ফেনী, চাঁদপুরসহ বেশ কয়েকটি জায়গায় সংঘর্ষ এড়ানো সম্ভব হয়নি।

মানুষকে মানুষ হিসেবে বিবেচনা না করে ধর্ম-বর্ণ, জাতি-গোত্র ইত্যাদি দিয়ে বিবেচনা করে দেখা-ই সাম্প্রদায়িকতা। সাধারণ মানুষের ধর্মীয় অনুভূতিকে পুঁজি করে একশ্রেণির সুবিধাবাদী লোকজন রাজনৈনিক ফায়দা হাসিলের চেষ্টা করে।

ধর্মের নাম ব্যবহার করে এই উপমহাদেশে হানাহানি, রক্তপাত, হত্যার ঘটনা তো নতুন নয়। ১৯৬৪ সালে পূর্ব পাকিস্তানের দাঙ্গা থামাতে বঙ্গবন্ধু রাস্তায় নেমে বলেছিলেন ‘পূর্ব পাকিস্তান রুখিয়া দাঁড়াও’। বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে সাড়া দিয়ে সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে বাঙালি জাতি রুখে দাঁড়িয়েছিল।

ধর্মের ভিত্তিতে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠিত হলেও ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে জাতি-ধর্ম, বর্ণ একসঙ্গে যুদ্ধ করে বাংলাদেশকে স্বাধীন করে। সেদিনও মৌলবাদীরা ইসলামের দোহাই দিয়ে পাকিস্তানের পক্ষে অবস্থান নিয়েছিল। কিন্তু দেশের অধিকাংশ মানুষ মৌলবাদীদের প্রত্যাখ্যান করে অসাম্প্রদায়িক চেতনার পক্ষেই অবস্থান নিয়েছে।

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু পবিত্র সংবিধানে জাতীয় চার মূলনীতির একটি ধর্মনিরপেক্ষতাকে স্থান দিয়ে ১৯৭২ সালে গণপরিষদের ভাষণে বলেছিলেন- ‘ধর্মনিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা নয়, রাজনৈতিক কারণে ধর্মকে ব্যবহার করা যাবে না।’ তিনি আরও বলেন, ‘হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খৃষ্টান সবার সম্মিলিত অংশগ্রহণে এক সাগর রক্তের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীন বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক রাজনীতি চলতে পারে না।’ বঙ্গবন্ধু সরকার তখন ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক দল ও তাদের কার্যক্রমকে নিষিদ্ধ করে।

১৯৭৫ সালের পর বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িকতার বীজ বপন করে জিয়াউর রহমান ও হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। জিয়াউর রহমান ধর্মভিত্তিক দলগুলোকে রাজনীতি করার সুযোগ দিয়েছে, অপরদিকে আরেক কদম এগিয়ে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ইসলাম ধর্মকে রাষ্ট্রধর্ম করে ধর্মনিরপেক্ষতার কফিনে শেষ পেরেকটি ঢুকিয়ে দিয়েছে।

বাংলাদেশের মানুষ যেহেতু ধর্মভীরু সেই সুযোগটি কাজে লাগিয়ে দীর্ঘ দুই দশক স্বাধীনতার পরাজিত শত্রুরা রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাকে ব্যবহার করে যেভাবে সাম্প্রদায়িকতার বীজ সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে ছড়িয়ে দিয়েছে যার কুফল ভোগ করছে আজকের বাংলাদেশ।

নব্বইয়ের দশক থেকেই একদল মৌলবাদীরা সম্প্রীতি বিনষ্টের নোংরা খেলায় মেতে উঠেছে। তারা কখনও রাষ্ট্রীয় মদদে আবার কখনও রাষ্ট্রকে চ্যালেঞ্জ করেই ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উপর তাণ্ডব চালিয়ে যাচ্ছে।

ভারতে বাবরি মসজিদকে কেন্দ্র করে ১৯৮৯ থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত ধারাবাহিকভাবে এদেশের হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর বর্বরতা চালানো হয়। ১৯৯০ ও ১৯৯২ সালে বাংলাদেশের জাতীয় মন্দির ঢাকেশ্বরী মন্দিরে হামলা করা হয়। ১৯৯১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর প্রায় একমাস ধরে একটানা সাম্প্রদায়িক হামলা চালানো হয়েছে৷

২০০১ সালের নির্বাচনের পর হত্যা, লুটপাট, গণধর্ষণ, ধর্মান্তরিত করা, দেশত্যাগে বাধ্য করাসহ এহেন এমন কোনো কাজ নেই, যা বিএনপি-জামায়াত করেনি। নির্যাতিত ও ভুক্তভোগীরা থানায় বা আদালতে অভিযোগ পর্যন্ত করতে পারেননি। কেউ অভিযোগ করতে পারলেও রাজনৈতিক কারণে তদন্ত হয়নি। বিএনপি-জামায়াত আমলের পুরো পাঁচ বছর ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উপর অত্যাচার একটা রেওয়াজে পরিণত হয়৷

মৌলবাদী অংশটি এতদিন সমাজের একটি ক্ষুদ্র অংশ ছিল। কিন্তু এখন এদের ওপর ভর করেছে বিএনপি-জামায়াত, হেফাজত। একপক্ষ চায় এদেশে তালেবানি রাষ্ট্র কায়েম করতে, অন্যপক্ষ চায় অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরি করে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতাচ্যুত করতে। উভয়পক্ষের ষড়যন্ত্রের বলি এদেশের ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়। নির্বাচন-পরবর্তী সংহিসতা কিংবা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার এমনকি যেকোনো ইস্যু তৈরিতে ভিকটিম হচ্ছে ধর্মীয় ‘সংখ্যালঘু’রা।

এতকিছুর পরও আমাদের আশা ও ভরসার জায়গা দুইটি। এক. বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। দুই. এদেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কুমিল্লার ঘটনার পর অত্যন্ত দৃঢ়তার সঙ্গে বলেছেন-

‘যেখানে যেখানে যারাই এ ধরনের ঘটনা ঘটাবে সঙ্গে সঙ্গে তাদের খুঁজে বের করা হবে। যথাযথ শাস্তি তাদের দিতে হবে। এমন শাস্তি দিতে হবে ভবিষ্যতে যেন আর কেউ সাহস না পায়।’

এদেশের জনগণের বঙ্গবন্ধুকন্যার প্রতি শতভাগ বিশ্বাস আছে। তিনি অনেক অসম্ভব কাজকে সম্ভব করেছেন। তিনি এই মৌলবাদী ধর্মান্ধগোষ্ঠীকে অবশ্যই পরাজিত করবেন। দ্বিতীয়টি হলো এদেশের বৃহৎ জনগোষ্ঠী কখনও সাম্প্রদায়িকতাকে মেনে নেয়নি। সেজন্যই এতকিছুর পরও সাম্প্রদায়িকতা কখনও এদেশে বিজয়ী হতে পারেনি।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ১৯৭৪ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অধিবেশনে নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেছিলেন- ‘যারা এ বাংলার মাটিতে সাম্প্রদায়িকতা করতে চায়, তাদের সম্পর্কে সাবধান হয়ে যাও। আওয়ামী লীগের কর্মীরা, তোমরা কোনো দিন সাম্প্রদায়িকতাকে পছন্দ করো নাই। তোমরা জীবনভর তার বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেছ। তোমাদের জীবন থাকতে যেন বাংলার মাটিতে আর কেউ সাম্প্রদায়িকতার বীজ বপন না করতে পারে।’

এই সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী শুধু ধর্মীয় ‘সংখ্যালঘু’দেরই শত্রু নয়। এরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের শত্রু, দেশরত্ন শেখ হাসিনার উন্নয়নের শত্রু, বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার শত্রু, সর্বোপরি মানবতার শত্রু। অনতিবিলম্বে সরকারের পাশাপাশি মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সব পক্ষকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। মনে রাখতে হবে এই দেশ মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টানসহ ১৬ কোটি বাঙালির দেশ।

লেখক: তাপস হালদার, সাবেক ছাত্রনেতা ও সদস্য, সম্প্রীতি বাংলাদেশ





সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ





ebarta24.com © All rights reserved. 2021