বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০১:৩৭ পূর্বাহ্ন

পূর্বাচলে বসছে বঙ্গবন্ধুর তর্জনীর ৭১ ফুট ভাস্কর্য

ইবার্তা ডেস্ক
আপডেট : সোমবার, ১৬ নভেম্বর, ২০২০

রাজধানীর পূর্বাচলে বঙ্গবন্ধুর শূণ্যে উত্থিত তর্জনীর ৭১ ফুট ভাস্কর্যের নির্মাণকাজ এগিয়ে চলছে। একাত্তরের ৭ মার্চ তৎকালীন রেসকোর্স ময়দানে জাতির জনক যে ভাষণ দিয়েছিলেন তার রুপকে গড়ে উঠছে ‘বঙ্গবন্ধু চত্বর’।

এদিকে, ব্রোঞ্জ দিয়ে তৈরি ওই ভাস্কর্য এবং বঙ্গবন্ধু চত্বর নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ৫৫ কোটি এক লাখ ৬৪ হাজার টাকা। ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে এই প্রকল্পের কাজ কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী বছরের মার্চে ঐতিহাসিক এ স্থাপনার উদ্বোধন করবেন বলে জানা গেছে।

রাজধানীর পূর্বাচল নতুন শহর ৩০০ ফিট এলাকায় ১৫ নম্বর সেক্টরের ২০৩ নম্বর সড়কের ১৭ নম্বর প্লটে দুই দশমিক তিন একর জমিতে নির্মাণ কাজ চলছে বঙ্গবন্ধু চত্বরের। অদূরে চলছে ১১১ তলা বঙ্গবন্ধু ট্রাই টাওয়ার নির্মাণের প্রাথমিক কাজ।

পূর্বাচলে বসছে বঙ্গবন্ধুর তর্জনীর ৭১ ফুট ভাস্কর্য

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রকল্পের পাইলিং কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। মাটিতে এখনও স্থাপনার কোনো অংশ দৃশ্যমান হয়নি। নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ করা নিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যে রয়েছে খোদ রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক)।

অন্যদিকে, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি পূর্বাচল নতুন শহরে ‘বঙ্গবন্ধু চত্বর’ নির্মাণের পরিকল্পনা করে। ‘বঙ্গবন্ধু চত্বর’ স্থাপনে অর্থায়নসহ যাবতীয় দায়িত্ব গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের ওপর ন্যস্ত করা হয়। এখানে সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে দায়িত্ব পায় সরকারের স্থাপত্য অধিদফতর এবং রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষকে (রাজউক) দায়িত্ব দেওয়া হয়।

প্রসঙ্গত, ভাস্কর্যটির উচ্চতা ৭১ ফুট দেওয়া হয়েছে মহান মুক্তিযুদ্ধের ১৯৭১ সাল কে ঘিরে। আর শূন্যে উত্থিত তর্জনী দেওয়া হয়েছে ৭ই মার্চের ভাষণের রুপ ফুটিয়ে তুলতে। ভাস্কর্যটিকে বেষ্টন করে দুই দিকে লেক থাকবে।

এ ব্যাপারে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) একজন প্রকৌশলী সারাবাংলাকে জানান, লেক থাকবে পেছনে। সামনে হবে ভাস্কর্য। এখন পাইলিংয়ের কাজ প্রায় শেষ। ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যে এটি শেষ করার পরিকল্পনা তাদের। আর মার্চে বঙ্গবন্ধু চত্বরের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী।


আরও সংবাদ