1. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  2. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  3. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
নির্মমতা জাতীয় চার নেতাকে মুছে ফেলতে পারেনি - ebarta24.com
  1. [email protected] : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  2. [email protected] : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  3. [email protected] : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
নির্মমতা জাতীয় চার নেতাকে মুছে ফেলতে পারেনি - ebarta24.com
শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:৫২ পূর্বাহ্ন

নির্মমতা জাতীয় চার নেতাকে মুছে ফেলতে পারেনি

ড. মিল্টন বিশ্বাস
  • সর্বশেষ আপডেট : বুধবার, ৩ নভেম্বর, ২০২১

৩ নভেম্বর জেলহত্যা দিবস। সেদিনের নির্মমতা জাতীয় চার নেতার অবদানকে মুছে ফেলতে পারেনি। বরং তাঁদের মুখ আজও উদ্ভাসিত। এক বিশাল উত্তরাধিকার, ব্যাপ্ত দেশপ্রেম ও বিজয়ের মুকুট সঙ্গে নিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের যে পদচারণা শুরু হয়েছিল, মুক্তিযুদ্ধের সাফল্যে যে ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন হয়েছিল, আবার তা বোনা শুরু হয় মাত্র কয়েক বছরের ব্যবধানে। ১৫ আগস্ট, ১৯৭৫ সালে নির্মমভাবে সপরিবারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করে দেশকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার উল্টো স্রোতের দিকে টেনে নেওয়া হয়।

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার কিছুক্ষণের মধ্যেই তাজউদ্দীন আহমদকে গ্রেপ্তার করে গৃহবন্দি করা হয়। এক সপ্তাহ পর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থানান্তরিত করা হয় তাঁকে। বন্দি করা হয় সৈয়দ নজরুল ইসলাম, এম মনসুর আলী ও এ এইচ এম কামরুজ্জামানসহ আরও অনেক নেতাকে। বাংলাদেশ যেন অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র হিসেবে আবার মাথা তুলে দাঁড়াতে না পারে, তাই ’৭১-এর পরীক্ষিত চারজন নেতাকে রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তায়, বন্দি অবস্থায় কারাগারের ভেতর হত্যা করা হয় ৩ নভেম্বর। অর্থাৎ হত্যা করা হয় মুক্তিযুদ্ধকালীন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রথম উপরাষ্ট্রপতি এবং বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ, প্রথম অর্থ ও বাণিজ্যমন্ত্রী এম মনসুর আলী এবং প্রথম স্বরাষ্ট্র ও ত্রাণ পুনর্বাসনমন্ত্রী এ এইচ এম কামরুজ্জামানকে।

একাত্তরে প্রদীপ্ত শিখার মতো এই জাতীয় নেতারা বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে দৃঢ় হাতে যুদ্ধের হাল ধরেছিলেন। লাখ লাখ শহীদের আত্মদান, আর্তনাদ, হাহাকার, বেদনা আর অশ্রু পেরিয়ে তারপর আমরা স্বাধীন ভূখণ্ড, মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকা পতাকা পেয়েছি সেদিনের সেই কীর্তিমানদের সাংগঠনিক তৎপরতায়। পৃথিবীর বুকে তাঁদের অসামান্য কীর্তির গর্বিত সন্তান আমরা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কয়েক’বছর আগে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে কিছু সময় কাটানোর অনুভূতি ব্যক্ত করেছেন তাঁর ‘সবুজ মাঠ পেরিয়ে’ গ্রন্থে। সেখানে কীর্তিমানদের স্মরণ করা হয়েছে নিম্নরূপে-

‘আমরা এখান থেকে গেলাম জাতীয় চার নেতাকে যেখানে হত্যা করা হয়েছিল, সেই জায়গায়। সেখানে হেঁটেই গেলাম। আব্বার ঘনিষ্ঠ রাজনৈতিক সহচর সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, এম মনসুর আলী ও কামরুজ্জামান এই চারজনকে ৩ নভেম্বর ১৯৭৫ সালে কারাগারে বন্দী অবস্থায় নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। কেন্দ্রীয় কারাগারের ভেতরে ঢুকে হত্যা করার ঘটনা সভ্য জগতে বোধ হয় এই প্রথম। বাইরে থেকে অস্ত্রধারীরা ঢুকে একের পর এক হত্যা করে এই চার নেতাকে। এখানে বেদিতে ফুল দিলাম। চারটা স্তম্ভে চারজনের ভাস্কর্য করা হয়েছে। পানির ফোয়ারার ভেতরে এই ভাস্কর্যগুলো তৈরি করা হয়েছে। এখনো গরাদে বুলেটের চিহ্ন রয়ে গেছে। দেয়ালের গায়ে যে বুলেটের চিহ্ন ছিল, তা মেরামত করা হয়েছিল বহু আগেই। সেই চিহ্ন আর খুঁজে পাওয়া যায় না। তাজউদ্দীন সাহেবের দুই মেয়ে রিমি ও মিমি, মনসুর আলী সাহেবের ছেলে মো. নাসিম এবং কামরুজ্জামান সাহেবের ছেলে রাজশাহীর বর্তমান মেয়র লিটন উপস্থিত ছিল।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের প্রথম রাষ্ট্রপতি এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি। সৈয়দ নজরুল ইসলাম ছিলেন প্রথম উপরাষ্ট্রপতি এবং বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। তাজউদ্দীন সাহেব প্রথম প্রধানমন্ত্রী ছিলেন এবং দলের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ক্যাপ্টেন মনসুর আলী ও কামরুজ্জামান কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও মন্ত্রী ছিলেন। বঙ্গবন্ধু যেভাবে নির্দেশ দিয়েছেন, সেভাবেই তাঁরা স্বাধীনতাসংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা করেছেন। প্রতিটি সংগ্রামে অংশ নিয়ে জেল-জুলুম-অত্যাচার সহ্য করেছেন। অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা করে বিজয় অর্জন করেছেন। এই মুক্তিযুদ্ধের বিজয়টা ঘাতকের দল মেনে নিতে পারেনি; যে কারণে পরিকল্পিতভাবে ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করে আর ৩ নভেম্বর জেলখানায় এই হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়। মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তির দালালরা তাদের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতে এই জিঘাংসা চরিতার্থ করে। জাতি চিরদিন এই খুনি ও ষড়যন্ত্রকারীদের ঘৃণা করে যাবে।’

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে তাজউদ্দীনের বাসায় পাকিস্তানি সেনারা আক্রমণ করেছিল। সেই রাতে তাঁর স্ত্রী ছোট ছেলে আর মেয়েটিকে নিয়ে ভাড়াটিয়া সেজে পাকিস্তান আর্মির হাত থেকে রক্ষা পেয়েছিলেন। ২৬ তারিখ বাসার দেয়াল টপকে এদিক-সেদিক দুই রাত থেকে একপর্যায়ে এক ভদ্রলোকের বাড়িতে হাজির জন জোহরা তাজউদ্দীন। সেই ভদ্রলোক বিষয়টিকে সহজভাবে নিতে পারেন নি। তিনি তাঁদের আরও নিরাপদ বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে রাস্তার সামনে গিয়ে বলেন, আপনি একটু দাঁড়ান, আমি চাবি ফেলে এসেছি। চাবিটা নিয়ে এক মিনিটের মধ্যেই আসছি। তিনি যে ভেতরে গিয়েছিলেন আর দরজা খুলেন নি। জোহরা তাজউদ্দীন নিরুপায় হয়ে রাস্তার পাশে রাখা ইটের পাঁজার পেছনে ছোট বাচ্চা দুটিকে নিয়ে লুকিয়ে ছিলেন বাইরে, তখন কারফিউ ছিল ঢাকা শহরে।

মুক্তিযুদ্ধের সময় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সম্পূর্ণ সমর্থন পাকিস্তানের পক্ষে থাকার ফলে উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবিলা করা, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে আন্তর্জাতিক সমর্থন লাভের চেষ্টাসহ মুক্তিযুদ্ধের যাবতীয় কর্মকাণ্ড পরিচালিত হচ্ছিল বাংলাদেশ মুজিবনগর সরকারের নেতৃত্বে। এই নেতৃত্বের পুরোভাগে ছিলেন তাজউদ্দীন আহমদ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানিদের হাতে বন্দি থাকায় তাদের সমস্ত ক্রোধ এবং আক্রোশের মূল মানুষে পরিণত হন তাজউদ্দীন আহমদ। সে সময় পাকিস্তানি সেনারা তাজউদ্দীনকে হিন্দু ‘ত্যাজারাম সিং’ ও ভারতের গুপ্তচর বলে অভিহিত করেছে। প্রচার করা হয়েছিল তিনি আট বছর বয়সে নাম পাল্টে তাজউদ্দীন হয়েছেন। তারপর আস্তে আস্তে আওয়ামী লীগে ঢুকে পাকিস্তানকে ভাঙার ষড়যন্ত্র করছেন। ছাত্রদের মাথা খারাপ করে দিয়েছে আওয়ামী লীগ, যার মূল ষড়যন্ত্রকারী তিনি। তাঁর প্রতি আক্রোশ আর ঘৃণায় পাকিস্তানি সেনাদের চোখ জ্বল জ্বল করত। তারা বলত পাকিস্তানকে ভাঙতে চান তাজউদ্দীন কারণ তিনি হিন্দু। মুক্তিসংগ্রামে তাজউদ্দীনের সাহসী ভূমিকার সঙ্গে সঙ্গে স্মরণীয় হয়ে উঠেছিলেন অন্য তিনজন নেতাও। সে সময় এই চার নেতার ব্যক্তিগত সুখ, দুঃখ, ইচ্ছা, ক্রোধ, প্রতিশোধ- এগুলোর সবই ধাবিত হয়েছিল পাকিস্তানি শাসক তথা শত্রুর বিরুদ্ধে।

বিজয়ের পরে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিসভার বিভিন্ন দায়িত্বে নিয়োজিত চারজনই এমন সজ্জন ও নির্বিরোধ প্রকৃতির বিশিষ্ট ভদ্রলোক ছিলেন যে, তাঁদের সঙ্গে কারও শত্রুতার প্রশ্নই আসে না। তাঁদের মতো নির্দোষ প্রকৃতির ও অক্ষতিকর মানুষ রাজনীতিকদের মধ্যে কমই দেখা যায়। তাঁদের সরল জীবনযাপনও ছিল মুগ্ধ করার মতো। ৩ নভেম্বর জেল হত্যার পরিকল্পনাকারী, হুকুমদাতা ও হত্যাকারী কেউই চার রাজনৈতিক নেতার ব্যক্তিগত শত্রু ছিল না। তাজউদ্দীন আহমদ যখন অর্থমন্ত্রী; তখন বলতেন, ‘আমরা দেশ শাসন করছি, দেশের মঙ্গল চাই, কাজেই আমাদের দুর্বলতা আছে, এগুলো মানা উচিত। স্বীকার করা উচিত। আমরা তো সব জানি না, তাই শিখতে হবে।’ রাষ্ট্র ক্ষমতায় থেকেও তাঁরা কোনো নিন্দিত কাজ করেন নি। অনেকেই সৈয়দ নজরুল ইসলামের বাসায় গিয়ে দেখেছেন সকালে তিনি গেঞ্জি গায়ে দিয়ে খবরের কাগজ পড়ছেন। মধ্যবিত্তের স্নিগ্ধ আচরণ ছিল তাঁর মধ্যে। বাংলা ভাষায় কামরুজ্জামান চমৎকার বক্তৃতা করতেন। সুকণ্ঠের অধিকারী তিনি গান গাইতেও পারতেন। মনসুর আলী ছিলেন শান্ত, নির্বিরোধ। এ ধরনের মানুষের কোনো ব্যক্তিগত শত্রু থাকার কথা নয়; ছিল রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ।

ভাষা আন্দোলন থেকে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে যে শোষণ বিরোধী আন্দোলন শুরু হয় এই চার নেতা তখন থেকে সেই আন্দোলনের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিলেন। তাঁরা সকলে ছিলেন তৎকালীন রাষ্ট্রের সামরিক ও বেসামরিক আমলাতন্ত্রের বিপক্ষে। কারণ আমলারা বাঙালির আশা-আকাঙ্ক্ষাকে দলিত করছিল। এজন্য বাংলাদেশের মানুষের মুক্তির লক্ষে তাঁদের কাজ ছিল সঙ্ঘবদ্ধ। মুক্তিযুদ্ধের পূর্বে তাঁদের লড়াই ছিল বাঙালির ন্যায্য দাবির লড়াই, স্বায়ত্তশাসনের প্রশ্নে আপসহীন পথযাত্রা। ষাটের দশক থেকে এই চার জাতীয় নেতা তৎকালীন পূর্ববাংলার সমগ্র জনগণকে একটি অসাম্প্রদায়িক জাতীয়তাবাদী চেতনায় উদ্বুদ্ধ করেছিলেন; মানুষকে দাবি আদায়ের বিষয়ে আশাবাদী করে তুলেছিলেন। ইসলাম ধর্মভিত্তিক পাকিস্তান-বিশ্বাসী মানুষকে সার্বজনীন গণতান্ত্রিক চেতনায় উজ্জীবিত করার কৃতিত্ব তাঁদের। আর মুক্তিযুদ্ধে তাঁদের নেতৃত্ব সারা বিশ্ববাসীর কাছে ছিল সুউচ্চ ও মহান। স্বাধীনতার পরে সরকার গঠিত হলে তাঁরা মানুষের কল্যাণে নিবেদিত হন। দেশের স্বার্থ ক্ষুণ্ন না করে মানুষের মঙ্গলাকাঙ্ক্ষায় উজ্জীবিত ছিলেন তাঁরা। ভাল রাজনৈতিক মাত্রই ভালো প্রশাসক হবেন এটা ঠিক নয়; তবে তাঁরা সে যোগ্যতার প্রমাণ রাখতে পেরেছিলেন। কারণ তাঁরা কেউ ষাটের দশকের আদর্শবাদী রাজনীতির বাইরে চলে যান নি। বরং একটি অসাম্প্রদায়িক বৈষম্যহীন সমাজ গঠনে আত্মনিয়োগ করেছিলেন; বঙ্গবন্ধুর ইচ্ছাকে সম্মান জানিয়ে বাকশালের পতাকাতলে একত্রিত হয়েছিলেন। কারণ তখনও বাংলাদেশ একটি ধর্মনিরপেক্ষ ও সমাজতান্ত্রিক মতাদর্শের দেশ। কিন্তু পুরনো শত্রুরা সক্রিয় ছিল তখনও। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, পাকিস্তান ও সৌদি আরব বঙ্গবন্ধু সরকারের নীতিকে পছন্দ করত না। দেশ ও দেশের বাইরে মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শত্রুদের নানান তৎপরতা চলতে থাকে। এরই পরিণতিতে ঘটে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের ঘটনা ও ৩ নভেম্বরের জেল হত্যা। এর পরই পাকিস্তানি ঘরানার ইসলামি রাজনীতি পুনর্বহাল হয় বাংলাদেশে।

সেই সময় জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের পেছনে কিছু সেনা কর্মকর্তার ক্ষমতার লোভ প্রত্যক্ষভাবে সক্রিয় ছিল। ১৫ আগস্টের ঘটনার পরে খালেদ মোশাররফ মোশতাকের সঙ্গে প্রাথমিক সমঝোতা করে জিয়াকে সরিয়ে দিয়ে নিজে স্বঘোষিত ‘মেজর জেনারেল’ হন। এর পরই তিনি নিজে সামরিক আইনশাসক ও মোশতাককে সরিয়ে ওসমানীকে রাষ্ট্রপতি করার পরিকল্পনা করেন। ওসমানী রাষ্ট্রপতি হতে অসম্মত হওয়ায় প্রধান বিচারপতি সায়েমকে লোক দেখানো রাষ্ট্রপতি বানানো হয়। মোশতাক-মোশাররফের ক্ষমতার লড়াইয়ের সময়ই জেলহত্যা ঘটেছে। অর্থাৎ ক্ষমতালোভী সুবিধাবাদীদের ক্যু ও পাল্টা ক্যু চলছিল তখন।

জেলহত্যার সুদূরপ্রসারী লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য ছিল। ১৫ আগস্ট ও ৩ নভেম্বরের ঘটনাবলির সঙ্গে যুক্ত ছিল অথবা ওই ঘটনার সমর্থক ব্যক্তিদের নিয়ে জিয়া ও এরশাদ ১৩ বছর রাজনীতি করেছেন। তাদের সেই রাজনীতির ধারাটি ছিল প্রতিক্রিয়াশীল মুসলিম জাতীয়তাবাদী রাজনীতির ধারা। অন্যদিকে জিয়াউর রহমান নিজেই ১৫ আগস্ট ও ৩ নভেম্বরের ঘটনাবলির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ছিলেন বলে আজকে তথ্য-প্রমাণ আবিষ্কৃত হয়েছে। এজন্যই কি তিনি সেই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত ঘাতকদের বিচারের সামনে দাঁড় করানো থেকে বিরত থেকেছিলেন? যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাসহ অনেক মুক্তিযোদ্ধাকে ফাঁসিতে ঝুলিয়েছিলেন?

২০০১ সালে প্রকাশিত সিমিন হোসেন রিমি’র ‘আমার ছোটবেলা, ১৯৭১ এবং বাবা তাজউদ্দীন আহমদ’ গ্রন্থের ১৯৫ থেকে ২০০ পৃষ্ঠায় জেলহত্যা ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীদের প্রতিবেদন উপস্থাপিত হয়েছে। ওই প্রতিবেদনে সেদিনের ঘটনার ভয়াবহ অভিজ্ঞতার দুটি অংশ এখানে উল্লেখ করা হলো।

ক) তৎকালীন আইজি প্রিজনস এন নুরুজ্জামান ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ছিলেন। তাঁর প্রতিবেদন নিম্নরূপ-

‘১৯৭৫ সালের ২ নভেম্বর রাত ৩টায় আমি বঙ্গভবন থেকে মেজর রশিদের একটি ফোন পাই। তিনি আমার কাছে জানতে চান, ঢাকা সেন্ট্রাল জেলে কোনো সমস্যা আছে নাকি। আমি জানালাম, ঠিক এই মুহূর্তের অবস্থা আমার জানা নাই। এরপর তিনি আমাকে জানালেন, কয়েকজন বন্দীকে জোর করে নিয়ে যেতে কয়েকজন সেনা সদস্য জেল গেটে যেতে পারে, আমি যেন জেল গার্ডদের সতর্ক করে দিই। সে অনুযায়ী আমি সেন্ট্রাল জেলে ফোন করি এবং জেল গেটে দায়িত্বে থাকা ওয়ার্ডারকে মেসেজটি জেলারকে পৌঁছে দিতে বলি, যাতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়।

৩ / ৪ মিনিট পর বঙ্গভবন থেকে আরেকজন আর্মি অফিসারের ফোন পাই। তিনি জানতে চান আমি ইতোমধ্যেই ঢাকা সেন্ট্রাল জেলে গার্ডদের সতর্ক করে দিয়েছি কিনা। আমি ইতিবাচক জবাব দেওয়ার পর তিনি আমাকে নিরাপত্তা ব্যবস্থা স্বচক্ষে দেখার জন্য জেলগেটে যেতে বলেন। আমি তখন ঢাকা সেন্ট্রাল জেলের ডিআইজি প্রিজনকে ফোন করি। খবরটি জানিয়ে আমি তাঁকে তাৎক্ষণিকভাবে জেলগেটে চলে যেতে বলি। দেরি না করে আমিও জেলগেটে চলে যাই এবং ইতোমধ্যেই সেখানে পৌঁছে যাওয়া জেলারকে আবার গার্ডদের সতর্ক করে দিতে বলি। এর মধ্যে ডিআইজিও জেলগেটে পৌঁছেন। বঙ্গভবন থেকে পাওয়া খবরটি আমি আবার তাঁকে জানাই।

এর পরপরই মেজর রশিদের আরেকটি ফোন পাই। তিনি আমাকে জানান, কিছুক্ষণের মধ্যেই জনৈক ক্যাপ্টেন মোসলেম জেলগেটে যেতে পারেন। তিনি আমাকে কিছু বলবেন। তাঁকে যেন জেল অফিসে নেওয়া হয় এবং ১. জনাব তাজউদ্দীন আহমদ ২. জনাব মনসুর আলী ৩. জনাব সৈয়দ নজরুল ইসলাম ৪. জনাব কামারুজ্জামান-এই ৪ জন বন্দীকে যেন তাঁকে দেখানো হয়।

এ খবর শুনে আমি প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কথা বলতে চাই এবং টেলিফোন প্রেসিডেন্টকে দেওয়া হয়। আমি কিছু বলার আগেই প্রেসিডেন্ট জানতে চান, আমি পরিষ্কারভাবে মেজর রশিদের নির্দেশ বুঝতে পেরেছি কিনা। আমি ইতিবাচক জবাব দিলে তিনি আমাকে তা পালন করার আদেশ দেন।

কয়েক মিনিটের মধ্যেই ৪ জন সেনা সদস্যসহ কালো পোশাক পরা ক্যাপ্টেন মোসলেম জেলগেটে পৌঁছান। ডিআইজি প্রিজনের অফিসকক্ষে ঢুকেই তিনি আমাদের বলেন, পূর্বোল্লিখিত বন্দীদের যেখানে রাখা হয়েছে সেখানে তাঁকে নিয়ে যেতে। আমি তাঁকে বলি, বঙ্গভবনের নির্দেশ অনুযায়ী তিনি আমাকে কিছু বলবেন। উত্তরে তিনি জানান, তিনি তাঁদের গুলি করবেন। এ ধরনের প্রস্তাবে আমরা সবাই বিমূঢ় হয়ে যাই। আমি নিজে ও ডিআইজি প্রিজন ফোনে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করি, কিন্তু ব্যর্থ হই। সে সময় জেলারের ফোনে বঙ্গভবন থেকে মেজর রশিদের আরেকটি কল আসে। আমি ফোনটি ধরলে মেজর রশিদ জানতে চান, ক্যাপ্টেন মোসলেম সেখানে পৌঁছেছেন কিনা। আমি ইতিবাচক জবাব দিই এবং তাঁকে বলি, কি ঘটছে আমি কিছুই বুঝতে পারছি না। তখন মেজর রশিদ আমাকে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কথা বলতে বলেন। আমি প্রেসিডেন্টকে ক্যাপ্টেনের বন্দীদের গুলি করার ইচ্ছার কথা জানাই। প্রেসিডেন্ট জবাব দেন, সে যা বলছে তাই হবে। তখন আমরা আরও উত্তেজিত হয়ে যাই। ক্যাপ্টেন মোসলেম বন্দুকের মুখে আমাকে, ডিআইজি প্রিজন, জেলার ও সে সময় উপস্থিত অন্যান্য কর্মকর্তাদের সেখানে যাওয়ার নির্দেশ দেন, যেখানে উপরোল্লিখিত বন্দীদের রাখা হয়েছে। ক্যাপ্টেন ও তার বাহিনীকে তখন উন্মাদের মতো লাগছিল এবং আমাদের কারও তাদের নির্দেশ অমান্য করার উপায় ছিল না। তার নির্দেশ অনুযায়ী পূর্বোল্লিখিত ৪ জনকে অন্যদের কাছ থেকে আলাদা করা হয় এবং একটি রুমে আনা হয়, সেখানে জেলার তাদের শনাক্ত করেন। ক্যাপ্টেন মোসলেম এবং তার বাহিনী তখন বন্দীদের গুলি করে হত্যা করে। কিছুক্ষণ পর নায়েক এ আলীর নেতৃত্বে আরেকটি সেনাদল সবাই মারা গেছে কিনা তা নিশ্চিত হতে জেলে আসে। তারা সরাসরি সেই ওয়ার্ডে চলে যায় এবং পুনরায় তাদের মৃতদেহে বেয়নেট চার্জ করে।’

খ) সেসময় ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে কর্তব্যরত ডিআইজি প্রিজন আবদুল আউয়ালের প্রতিবেদন –

‘২ নভেম্বর ‘৭৫ দিবাগত রাত ৩ ঘটিকায় আমি আমার বাসভবনে অবস্থানকালে জেলের ইন্সপেক্টর জেনারেলের কাছ থেকে আমাকে জেলগেটে যাওয়ার নির্দেশ সংবলিত একটি মেসেজ পাই। তিনি আরও জানান, বঙ্গভবন থেকে প্রাপ্ত নির্দেশের ভিত্তিতে তিনি নিজেও জেলগেট অভিমুখে রওনা দিচ্ছেন। আমাকে আরও বলা হয়, কতিপয় সামরিক কর্মকর্তা জেলগেটে আসতে পারেন এবং জোরপূর্বক কয়েকজন বন্দীকে নিয়ে যেতে পারেন। মুহূর্তমাত্র ব্যয় না করে আমি জেলগেটের উদ্দেশে রওনা দিলাম এবং রাত ৩টা ২০ মিনিট নাগাদ সেখানে পৌঁছলাম। গিয়ে দেখি জেলগেটে জেলের ইন্সপেক্টর জেনারেল এবং জেলার আগে থেকেই উপস্থিত। অতঃপর আমি ইন্সপেক্টর জেনারেলকে সঙ্গে নিয়ে আমার অফিস কক্ষে গেলাম। একটু পরেই জেলের ইন্সপেক্টর জেনারেল একটি টেলিফোন কল রিসিভ করলেন, আমাকে বলা হলো তা বঙ্গভবন থেকে এসেছে। এখানে বলা যেতে পারে, এই টেলিফোন সংলাপে ইন্সপেক্টর জেনারেল প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কথা বলার ইচ্ছা পোষণ করেছিলেন। টেলিফোনে আলাপ সেরে ইন্সপেক্টর জেনারেল আমাকে জানালেন যে, তাঁকে বলা হয়েছে কয়েকজন সশস্ত্র গার্ড নিয়ে ক্যাপ্টেন মোসলেম জেলে আসবেন এবং তাঁকে ভেতরে নিয়ে যেতে হবে। তিনি (মোসলেম) যা করতে চান তাঁকে তা করতে দিতে হবে এবং বন্দী তাজউদ্দীন আহমদ, মনসুর আলী, সৈয়দ নজরুল ইসলাম ও এ এইচ এম কামরুজ্জামান কারা, তাঁকে তা চিনিয়ে দিতে হবে। ইতোমধ্যে ইন্সপেক্টর জেনারেল বঙ্গভবন থেকে আর একটি টেলিফোন মেসেজ রিসিভ করলেন। ইন্সপেক্টর জেনারেল আমাকে জানালেন, তাঁকে আবার প্রশ্ন করা হয়েছিল, সব গার্ডকে ঠিকমতো সতর্ক করা হয়েছে কিনা। তিনি কর্মকর্তাসহ অন্যান্য স্টাফদের খুবই সতর্ক ও অতন্দ্র থাকার নির্দেশ দিলেন। ইন্সপেক্টর জেনারেলের এই নির্দেশ পালন করা হলো। এর কিছুক্ষণ পর স্টেনগান, এসএলআর প্রভৃতিতে সুসজ্জিত ৪ জন সশস্ত্র কর্মকর্তা সহযোগে ভীতিকর ভঙ্গিতে ক্যাপ্টেন মোসলেম আমার অফিসকক্ষে এলেন এবং জেলের ইন্সপেক্টর জেনারেলকে জিজ্ঞেস করলেন, তিনিই নুরুজ্জামান কিনা। জেলের ইন্সপেক্টর জেনারেল ‘হ্যাঁ’ বোধক উত্তর দিলেন। এরপর তিনি ইন্সপেক্টর জেনারেলকে তাড়াতাড়ি করতে বললেন। ইন্সপেক্টর জেনারেল তাঁকে জিজ্ঞেস করলেন, কি করতে হবে? আমাদের ভয়ানক আতঙ্কিত করে তিনি ইন্সপেক্টর জেনারেলকে বললেন, তাঁর কাছে পূর্বে যে কয়জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে তিনি তাদের গুলি করবেন। ইন্সপেক্টর জেনারেল বললেন যে, তিনি পূর্বে এ জাতীয় কোনো নির্দেশ পাননি এবং তাঁকে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কথা বলে নিতে হবে। আমার অফিসের টেলিফোনে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কয়েকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলো কিন্তু যোগাযোগ করা গেল না। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই ইন্সপেক্টর জেনারেলকে জানানো হলো যে, জেলারের অফিসের টেলিফোন সেটে তাঁর নামে বঙ্গভবন থেকে টেলিফোন এসেছে। ইন্সপেক্টর জেনারেল টেলিফোন ধরার জন্য রওনা দিলেন। আমি তাঁকে অনুসরণ করলাম। পেছন পেছন চলল সামরিক কর্মকর্তারা। টেলিফোনে কথা বলার সময় ইন্সপেক্টর জেনারেল প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কথা বলতে চাইলেন এবং তার অনুরোধ রাখা হলো বলে স্পষ্ট মনে হলো। ইন্সপেক্টর জেনারেলকে বলতে শুনলাম, ক্যাপ্টেন মোসলেম তাঁদের গুলি করবেন বলে বলেছেন। এরপর ইন্সপেক্টর জেনারেল টেলিফোন রেখে দিলেন এবং তাঁর মুখ বিবর্ণ হয়ে গেল।

ক্যাপ্টেন মোসলেম তখন বন্দুকের নল ঠেকিয়ে আমাদের তখনই পূর্বোক্ত বন্দীরা যেখানে আটক রয়েছে সেখানে যাওয়ার হুকুম দিলেন। নির্দেশমাফিক সামরিক কর্মকর্তাদের নিয়ে ইন্সপেক্টর জেনারেল রওনা দিলেন। আমি জেলার এবং অন্যান্য নির্বাহী স্টাফরাও সঙ্গে চললাম। পথিমধ্যে আমি প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কথা বলার ইচ্ছার কথা জানালাম। ক্যাপ্টেন হুমকির সুরে জিজ্ঞেস করলেন, আপনি ভয় পাচ্ছেন? আমি বললাম, ভয়ের প্রশ্ন আসছে না, আমার ৩২ বছরের চাকরি জীবনে আমি এ জাতীয় ঘটনার কথা শুনিনি। তিনি ক্রোধান্বিত হলেন এবং একজন সামরিক কর্মকর্তা (সেপাই) আমার কাঁধে হাত রেখে আমাকে চলে যেতে বললেন। এতে ইন্সপেক্টর জেনারেল বললেন, না, উনি থাকবেন। আতঙ্ক ধরিয়ে দেওয়া চোখে ক্যাপ্টেন আমার দিকে তাকালেন। ইতিমধ্যে ক্যাপ্টেন মোসলেমের নির্দেশে জেলার এবং অন্যান্য কয়েকজন নির্বাহী স্টাফ মিলে তাজউদ্দীন আহমদ, মনসুর আলী, সৈয়দ নজরুল ইসলাম এবং এ এইচ এম কামরুজ্জামানকে অন্যান্য বন্দীদের থেকে আলাদা করলেন। তাঁদের একটা ওয়ার্ডে জড়ো করা হলো এবং ওই ওয়ার্ডের অন্যান্য সদস্যদের সেখান থেকে সরিয়ে ফেলা হলো।

ইতোমধ্যে ক্যাপ্টেন এ জাতীয় বিলম্বে বেশ কয়বার বিরক্তি প্রকাশ করে বলছিলেন, শেখ মুজিবকে খতম করতে তার মাত্র ৩ মিনিট সময় লেগেছিল। যখন তাঁদের জানানো হলো ৪ বন্দীকে একটি কক্ষে আনা হয়েছে, ক্যাপ্টেন মোসলেম আর তাঁর দল তৎক্ষণাৎ সেই রুমের দিকে রওনা হয়ে গেলেন। যে ওয়ার্ডে উক্ত বন্দীদের আটক রাখা হয়েছে সেখান থেকে ৪০ গজ দূরে আমি আর জেলের ইন্সপেক্টর জেনারেল দাঁড়িয়ে রইলাম। অচিরেই আমাদের কানে গুলি করার ভয়াবহ শব্দ ভেসে এল। তাঁরা ফিরে এলেন আর তড়িঘড়ি জেলগেটের দিকে এগিয়ে গেলেন। আমরা তাঁদের অনুসরণ করলাম। রেকর্ড অনুসারে ক্যাপ্টেন মোসলেম আর তার দল জেলগেটে ঢুকেছে ভোর ৪টায় এবং জেলগেট ছেড়ে গেছে ভোর ৪টা ৩৫ মিনিটে। এরপর ভোর ৫টা ২৫ মিনিটে বঙ্গভবন থেকে নায়েক এ আলীর নেতৃত্বে সশস্ত্র কর্মকর্তাদের আর একটি দল এল এবং গুলি করার জায়গাটি পরিদর্শন করে ভিকটিমদের মৃত্যু সম্বন্ধে নিশ্চিত হতে চাইল। তাদের নির্দেশও পালন করা হলো। যেহেতু আমি সে সময় আমার অফিস কক্ষে ফজরের নামাজ পড়ছিলাম আমি এই দলটিকে স্বচক্ষে দেখিনি। নামাজ শেষ করে আমি জেলের ইন্সপেক্টর জেনারেলের কাছ থেকে এ তথ্য পেলাম। তিনি তখনো তার অফিস কক্ষে ছিলেন। দলটি তাদের পরিদর্শন শেষে ৫টা ৩৫ মিনিটে জেল ছেড়ে চলে যায়। আমি পরে জানতে পারি এই দলটি মনসুর আলী এবং নজরুল ইসলামের দেহে বেয়নেট দিয়ে আঘাতও করে। জেলের ইন্সপেক্টর জেনারেল ভোর ৫টা ৪৫ মিনিটে জেল ত্যাগ করেন এবং আমি সকাল ৭টা ৪০ মিনিটে আমার অফিসকক্ষ ত্যাগ করি। আমি আবার অফিসে ফিরে আসি সকাল ৮টা ৩৫ মিনিটে।’

ইতিহাসের জঘন্য ও নৃশংস এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ১৯৭৫ সালেই লালবাগ থানায় একটি মামলা হয়েছিল। কিন্তু দীর্ঘ ২১ বছর এ হত্যাকাণ্ডের তদন্ত ও বিচার প্রক্রিয়া বন্ধ রাখা হয়। ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে আওয়ামী লীগ সরকার জেলহত্যা মামলার প্রক্রিয়া পুনরুজ্জীবিত করে। এরপর দীর্ঘ ৮ বছরেরও বেশি সময় বিচারকাজ চলার পর বিগত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে ২০০৪ সালের ২০ অক্টোবর ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালত মামলাটির রায় ঘোষণা করেন। রায়ে ২০ আসামির মধ্যে ১৫ সাবেক সেনা কর্মকর্তার শাস্তি এবং অপর ৫ জনকে খালাস দেওয়া হয়। সাজাপ্রাপ্তদের মধ্যে পলাতক তিন আসামির মৃত্যুদণ্ড এবং অপর ১২ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়।কিন্তু ২০০৮ সালের ২৮ আগস্ট হাইকোর্টের রায়ে কেবল রিসালদার মোসলেমউদ্দিনের মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখে অন্যান্য মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তদের খালাস দেওয়া হয়। তবে জেলহত্যা মামলায় খালাস পেলেও বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত চারজনের ফাঁসির রায় কার্যকর হয়েছে ২০১০ সালের ২৭ জানুয়ারি। অন্যদিকে হাইকোর্টের রায়ে পলাতক অপর আট যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পাওয়া আসামি সম্পর্কে কোনো মতামত না দেওয়ায় তাদের দণ্ড বহাল আছে বলে আইনজীবীরা ব্যাখ্যা দিয়েছিলেন। তবে জেল হত্যাকাণ্ডের সুদীর্ঘ সময় পর এর বিচারের রায় হলেও জাতীয় চার নেতার পরিবারের সদস্যসহ আমরা এ রায়কে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও প্রহসনের রায় হিসেবে আখ্যায়িত করেছি। একইসঙ্গে রায়টি প্রত্যাখ্যানও করা হয়েছে। কারণ জেল হত্যার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকার দায়ে কাউকে শাস্তি দেওয়া হয়নি। জাতির ইতিহাসের নির্মম এ হত্যাকাণ্ডের পুনঃতদন্ত ও পুনঃবিচার বর্তমান প্রজন্মের দাবি বলেই বর্তমান সরকার সেই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছে।

সংসদীয় গণতন্ত্র ও অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী আওয়ামী লীগ সরকার এখন ক্ষমতায়। কিন্তু প্রতিক্রিয়াশীল রাজনীতির ধারা এখনো অব্যাহত রয়েছে। বিভিন্ন সময় শেখ হাসিনাকে হত্যার প্রচেষ্টা তার জ্বলন্ত প্রমাণ। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ২০০৮ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে উল্লেখ করেছিল, ‘জেলখানায় চার নেতার হত্যাকাণ্ডের পুনর্বিচার করা হবে।’ জেলহত্যার নির্মম বলি মহান ব্যক্তিরা ছিলেন অসাম্প্রদায়িক সংসদীয় গণতান্ত্রিক রাজনীতির ধারার সমর্থক। তাঁদের হত্যার বিচার ও ষড়যন্ত্রকারী দোষীদের শাস্তি বিধানের পর সেই রাজনৈতিক ধারা সমুন্নত রাখতে পারলে তাঁদের প্রতি যথার্থ সম্মান জানানো হবে। জাতীয় জীবনে তাঁদের অবদানের স্মৃতি আমাদের এগিয়ে চলার পাথেয়।

লেখক : ড. মিল্টন বিশ্বাস, ইউজিসি পোস্ট ডক ফেলো, বিশিষ্ট লেখক, কবি, কলামিস্ট, সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরাম, নির্বাহী কমিটির সদস্য, সম্প্রীতি বাংলাদেশ এবং অধ্যাপক, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।
[email protected]





সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ





ebarta24.com © All rights reserved. 2021