1. alamin@ebarta24.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  2. online@ebarta24.com : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  3. reporter@ebarta24.com : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  4. news@ebarta24.com : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
বৈশ্বিক খাদ্যসংকট এড়াতে খাদ্য মজুত শুরু করেছে সরকার - ebarta24.com
  1. alamin@ebarta24.com : ডেস্ক রিপোর্ট : ডেস্ক রিপোর্ট
  2. online@ebarta24.com : অনলাইন ডেস্ক : অনলাইন ডেস্ক
  3. reporter@ebarta24.com : নিজস্ব প্রতিবেদক : নিজস্ব প্রতিবেদক
  4. news@ebarta24.com : নিউজ এডিটর : নিউজ এডিটর
বৈশ্বিক খাদ্যসংকট এড়াতে খাদ্য মজুত শুরু করেছে সরকার - ebarta24.com
মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ০৪:১৮ পূর্বাহ্ন

বৈশ্বিক খাদ্যসংকট এড়াতে খাদ্য মজুত শুরু করেছে সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • সর্বশেষ আপডেট : রবিবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২২

সম্ভাব্য বৈশ্বিক খাদ্যসংকট এড়াতে প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করেছে বাংলাদেশ। প্রস্তুতি হিসেবে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে খাদ্যের মজুত বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। ১০ লাখ টন চাল-গম আমদানি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। সরকারিভাবে আনা হচ্ছে আরও পাঁচ লাখ টন চাল। বেসরকারিভাবে ১৪ লাখ টন চাল আমদানির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সব মিলে ২৯ লাখ টন চাল-গম আমদানির উদ্যোগ রয়েছে সরকারের। আরও নতুন উৎস খোঁজা হচ্ছে। সুবিধামতো হলে আমদানি করা হবে আরও খাদ্যশস্য। এই উদ্যোগের ফলে আপতত খাদ্যের কোনো সংকট হওয়ার সম্ভাবনা থাকছে না।
আগামী বছর বিশ্বব্যাপী খাদ্য সংকটের পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্ব খাদ্য সংস্থা থেকে শুরু করে বিভিন্ন দেশের খাদ্য বিভাগ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও আশঙ্কা প্রকাশ করে বলছেন, আগামী বছর অর্থাৎ ২০২৩ সালে বিশ্বের অনেক দেশে দুর্ভিক্ষ দেখা দিতে পারে। বাংলাদেশও এই ঝুঁকিতে রয়েছে। সকলকে মিতব্যায়ী হতে এবং সর্তক থাকার অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি। সতর্কতার অংশ হিসেবেই খাদ্য আমদানির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সরকার মনে করে, ঘরে পর্যাপ্ত খাদ্য থাকলে বিশ্ব অর্থনৈতিক বিপর্যয়েও বাংলাদেশে তেমন কোনো ঝুঁকিপূর্ণ পরিবেশ তৈরি হবে না। আমাদের দেশে খাদ্য উৎপাদন চাহিদার খুব কাছাকাছি। অল্প কিছু খাদ্য আমদানি করে মজুত রাখতে পারলে আর কোনো শঙ্কাই থাকবে না।

যে সব কারণে বিশ্বব্যাপী দুর্ভিক্ষের পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে এর মধ্যে রয়েছে- রাশিয়া-ইউক্রেন চলমান যুদ্ধ, প্রাকৃতিক কারণে বিভিন্ন দেশে পর্যাপ্ত ফলন না হওয়া, অবরোধের কারণে খাদ্যের অবাধ প্রবাহ বিঘ্নিত হওয়া ইত্যাদি। ইউক্রেনে প্রচুর খাদ্য শস্য উৎপাদন হয়। দেশটিকে ইউরোপের রুটির ঝুঁড়িও বলা হয়। যুদ্ধের কারণে সেখানে ফসল ফলানো সম্ভব হচ্ছে না। এ ছাড়া পাকিস্তানে বন্যায় এবার ব্যাপক ফসলের ঘাটতি হয়েছে। আফ্রিকা, ইউরোপজুড়ে খরায় ফসলহানি ঘটেছে।

অস্ট্রেলিয়া, চীন, ভারতসহ বিশ্বের আরও অনেক দেশে এবার আশানুরূপ ফলন হয়নি। সব মিলে বিশ্বে খাদ্য উৎপাদন এবার অনেক কম হয়েছে। সারাবিশ্বে ইতোমধ্যে এর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। আগামী বছর এর প্রভাব আরও বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে। যে কারণে অনেক দেশে খাদ্য ঘাটতি মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে। খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে আমরা খাদ্য আমদানির ওপর জোর দিয়েছি। ইতোমধ্যে ভিয়েতনাম থেকে প্রায় সাড়ে পাঁচ লাখ টন চাল আমদানির চুক্তি হয়েছে। সরকারিভাবে আরও পাঁচ লাখ টন চাল কেনা হবে।  বেসরকারিভাবে চাল আমদানি অব্যাহত থাকবে। প্রাধানমন্ত্রী বেসরকারিভাবে চাল আমদানির মেয়াদ ডিসেম্বর থেকে বাড়িয়ে মার্চ পর্যন্ত করেছেন।
খাদ্যমন্ত্রী বলেন, রাশিয়া থেকে পাঁচ লাখ টন গম আমাদানি করা হচ্ছে। এর মধ্যে দুই লাখ টন ইতোমধ্যে দেশে এসে পৌঁছেছে। বুলগেরিয়া, আর্জেন্টিনা থেকে বেসরকারিভাবে দেড় লাখ টন গম আমদানি প্রকিয়াধীন রয়েছে। আমাদের খাদ্যের কোনো সমস্যা তো হবে না। সবকিছু ঠিক থাকলে এবং আগামী বোরো ফলন ভালো হলে আমরাই বরং চাল রপ্তানি করতে পারব বলে আশা করি। মন্ত্রী বলেন, বিশ্বজুড়ে দুর্ভিক্ষের আশঙ্কায় প্রধানমন্ত্রীর দূরদৃষ্টিমূলক পদক্ষেপের কারণে আমরা নিরাপদ অবস্থানে আছি।

খাদ্য বিভাগের একটি সূত্র জানায়, বাংলাদেশে এবার আমন ফলন মোটামুটি ভালো হয়েছে। প্রথম দিকে অনাবৃষ্টির কারণে ফসলহানির যে আশঙ্কা করা হয়েছিল, সরকারি তৎপরতায় সেচ দিয়ে তা অনেকটা পুষিয়ে গেছে। শেষদিকে বৃষ্টিতে ফসল ভালো হয়েছে। পাশাপাশি এবার নিচু এলাকায় যেখানে আমন ফলে না, এমন অনেক স্থানে আমনের ভালো ফলন হয়েছে। কৃষকরা ঝুঁকি নিয়ে সেখানে আমন লাগিয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরও সংবাদ
ebarta24.com © All rights reserved. 2021