[…]নওগাঁ ও জয়পুরহাটে বন্যা দুর্গতদের মধ্যে আরও চাল বিতরণ […]নওগাঁ ও জয়পুরহাটে বন্যা দুর্গতদের মধ্যে আরও চাল বিতরণ

নওগাঁ ও জয়পুরহাটে বন্যা দুর্গতদের মধ্যে আরও চাল বিতরণ

ইবার্তা টুয়েন্টিফোর ডটকম:
আপডেট সময়:আগস্ট ২২, ২০১৭ , ২:২৯ অপরাহ্ন
বিভাগ: জাতীয় সংবাদ

নওগা ও জয়পুরহাট জেলার বিভিন্ন স্থানে বন্যাদুর্গতদের মাঝে আরও চাল বিতরণ করা হয়েছে।

নওগাঁয় সোমবার দুপুর পর্যন্ত বন্যা দুর্গতদের মধ্যে আরও ১১০ মেট্রিক টন চাল এবং ১ লাখ ৩ হাজার ৫শ’ নগদ টাকা বিতরণ করা হয়। জেলার ১১টি উপজেলার মধ্যে সবগুলো উপজেলাই এখন বন্যা কবলিত। জেলার ৬৬টি ইউনিয়নের ৫৪২টি গ্রামের ৪ লাখ ৫২ হাজার ৩২৫ জন মানুষ এখন পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন।

জেলা প্রশাসক ড. মো. আমিনুর রহমান জানিয়েছেন, এ নিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত ৪৫৭ মেট্রিক টন চাল এবং ১৬ লাখ ২৫ হাজার ৫শ’ টাকা নগদ ত্রাণ বিতরণ করা হলো।

নওগাঁ শহরের বিভিন্ন রাস্তাঘাট এখনও পানির নিচে। শহরের বোয়ালিয়া মোড় থেকে তুলশীগঙ্গা ব্রীজ পর্যন্ত বাইপাস সড়কের উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। আত্রাই উপজেলার সাথে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

জেলায় মোট ৪৩টি আশ্রয়কেন্দ্রে প্রায় ৫ হাজার মানুষ দুর্বিসহ জীবনযাপন করছেন। জেলায় ফসলের ক্ষতি হয়েছে ৭২ হাজার ৪৮৫ হেক্টর জমির। এ পর্যন্ত জেলায় মোট ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে আত্রাই উপজেলায় ২ জন, মান্দা উপজেলায় ২ জন, রানীনগর উপজেলায় ১জন এবং ধামইরহাট উপজেলায় ১জন।

এদিকে জয়পুরহাটে ৭শ’ ৫০ বন্যার্ত পরিবারের মাঝে চাল বিতরণ করা হয়।
জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ্যাড: সামছুল আলম দুদু এমপি বন্যার্ত মানুষের হাতে মঙ্গলবার ওই চাল তুলে দেন।

জয়পুরহাট সদর উপজেলার ভাদশা ইউনিয়নের সগুনাচড়া গ্রাম, পুরানাপৈল ইউপি’র জলাটুল গ্রাম, ক্ষেতলালের মামুদপুর এলাকা, ধরঞ্জীর গদাইপুর এলাকায় বন্যার্ত মানুষের মাঝে চাল বিতরণ করা হয়।

গত কয়েক দিনে উজানের ঢলে জেলায় সৃষ্ট বন্যায় ফসলের ক্ষতির পাশাপাশি ১০ হাজার পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ক্ষতি পুশিয়ে নিতে নতুন করে রোপা আমনের চারা উৎপাদন করার জন্য সোমবার ক্ষেতলাল উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ২শ’ কৃষকের মাঝে উন্নত মানের ধানবীজ বিতরণ করা হয়েছে।

জয়পুরহাটের ওপর দিয়ে বয়ে চলা ছোট যমুনার পানি মঙ্গলবার সকাল ৯টায় বিপদসীমার ৫৫ সেন্টিমিটার ও তুলশীগঙ্গা নদীর পানি বিপদসীমার ৩৮ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।



নির্বাচন বার্তা